মুন্সীগঞ্জ-২ : জোটে উপযুক্ত প্রার্থী না থাকলে সুদিন বিকল্প ধারার

গোলাম মঞ্জুরে মাওলা অপু লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ)
নির্বাচনী উত্তাপ ক্রমশ ছড়িয়ে পড়ছে মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের নির্বাচনী এলাকায়। তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীকে সাথে নিয়ে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলেও গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন কেউ কেউ। সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিকল্পধারার চেয়ারম্যান অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী এ আসন থেকে প্রার্থী হওয়ায় রাজনৈতিকভাবে এটি বেশ আলোচিত। এ আসনে বিকল্প ধারার প্রার্থিতা নিয়ে কোনো সংশয় না থাকলেও বিএনপি’র প্রার্থিতা নিয়ে রয়েছে গৃহবিবাদ। ’৭৫ পরবর্তী কোনো সংসদ নির্বাচনে আ’লীগ এ আসনে জয়লাভ করতে পারেনি। তাই সাধারণ ভোটাররা মনে করছেন মহাঐক্যজোট থেকে বি চৌধুরী প্রার্থী হলে একমাত্র তার পক্ষেই বিএনপি’র এ দুর্গে ফাটল ধরানো সম্ভব হবে। ২০০১ সালে নির্বাচিত হন বিএনপি’র মিজানুর রহমান সিনহা। তার নিকটতম প্রার্থী ছিলেন আ’লীগের অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি। এমনকি বিএনপি’র বেশকিছু বিদ্রোহী নেতাকর্মী বি চৌধুরীর পক্ষে কাজ করার সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দিচ্ছেন না প্রবীণ রাজনীতিবিদরা।
স্খানীয় নির্ভরযোগ্য কয়েকটি সূত্রে জানা যায়, মনোনয়নের ব্যাপারে বিএনপি এখানে চমক সৃষ্টি করতে পারে। এ ক্ষেত্রে মনোনয়ন দৌড়ে দু’জন নতুন মুখসহ মাঠে নেমেছেন আরো দু’জন প্রভাবশালী সাবেক সংসদ সদস্য। তারা হলেন- ’৯১ ও ’৯৬ সালের সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়লাভকারী নির্বাচিত এমপি উইং কমান্ডার (অব:) এম হামিদুল্লাহ খান বীরপ্রতীক, সাবেক স্বাস্খ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহা, ঢাকা মহানগর বিএনপি’র সাবেক সহসভাপতি আবু সাঈদ খান খোকন, যুবদলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ। তবে লৌহজং উপজেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মতে সাংগঠনিক দিক থেকে পিছিয়ে থাকা এবং যোগ্য নেতৃত্ব সঙ্কট দূর করতে এ আসনে বিএনপি’র হাল ধরতেই এগিয়ে এসেছেন এম হামিদুল্লাহ খান বীরপ্রতীক। ইতোমধ্যেই এলাকায় তার গ্রহণযোগ্যতা ও জনপ্রিয়তা আগের তুলনায় অনেকাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা বলছেন, জাতীয়তাবাদী শক্তিকে সমুন্নত রাখতে এ আসনে তার কোনো বিকল্প নেই। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, এর আগে এ আসনে বিএনপিতে দ্বন্দ্ব ছিল না। একক নেতা ছিলেন মিজানুর রহমান সিনহা। ২০০১ সালের নির্বাচনের পর দলের নিষ্ঠাবান নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়নের পাল্লা দিন দিন ভারী হতে থাকে। এ সময় বিএনপি’র কিছুসংখ্যক সুবিধাভোগী নেতাকর্মীর দৌরাত্ম্যে দলের ভাবমর্যাদা মারাত্মকভাবে ক্ষুণí হয়। ওয়ান-ইলেভেনের পর এসব নেতাকর্মী হন এলাকাছাড়া। তাই একক নেতৃত্বের স্খলে একাধিক নেতৃত্ব সৃষ্টি হয়েছে। এ অবস্খায় চারদলীয় জোটের জন্য উপযুক্ত বিকল্প প্রার্থীকে মনোনয়ন না দিলে শেষ পর্যন্ত মহাজোট প্রার্থীর বিজয়ের সম্ভাবনা বেশি বলে সরেজমিন ও বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়। সবকিছু মিলিয়ে গণসংযোগ ও কর্মীসমাবেশের মাধ্যমে বিএনপি ও বিকল্প ধারা নির্বাচনী মাঠ সরগরম করে তুললেও আওয়ামী লীগ এখন পর্যন্ত এ আসনে অনেকটাই নিûিক্রয় রয়েছে। তবে মহাজোট থেকে বিকল্প ধারার প্রার্থী বি চৌধুরীর মনোনয়ন প্রাপ্তি অনেকটাই নিশ্চিত হওয়ার কারণেই আ’লীগের মধ্যে এ ধরনের প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

Leave a Reply