মুন্সীগঞ্জে প্রাথমিক শিক্ষার নাজুক অবস্থা

মুন্সীগঞ্জে প্রাথমিক শিক্ষার অবস্থা খুবই নাজুক। রবিবার ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) সহযোগিতায় সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা সেবার এরকমই চিত্র তুলে ধরেছে। বিশিষ্ট ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে এক মতবিনিময় সভায় প্রাথমিক শিক্ষার রিপোর্ট জরিপ প্রকাশ করা হয়। প্রতিবেদনে এ সব চিত্র তুলে ধরেন টিআইবির সহকারী গবেষণা কর্মকর্তা এ এম শামছুদ্দৌলা এবং ঊর্ধ্বতন গবেষণা কর্মকর্তা মো. ওয়াহিদ আলম।

টিআইবির জরিপে উল্লেখ করা হয়েছে, সরকারিভাবে আর্থিক বরাদ্দের অভাব, শিক্ষক স্বল্পতা, শিক্ষকদের স্বল্প পরিমাণে বেতন, অতিরিক্ত কাজের চাপ, ম্যানেজমেন্ট কমিটির অবহেলাসহ বিভিন্ন সমস্যা ও অনিয়মের কারণে মুন্সীগঞ্জে প্রাথমিক শিক্ষার এ দুরবস্থা। মুন্সীগঞ্জের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভৌত অবকাঠামো, পাঠ্যপুস্তক বিতরণ, শ্রেণীকক্ষে শিক্ষা উপকরণ ব্যবহার, উপবৃত্তি, বিভিন্ন খাতে চাঁদা/ফি প্রদান সংক্রান্ত নানা অনিয়ম, দুর্নীতি ও সমস্যা তুলে ধরা হয়েছে।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সরকারিভাবে ৫০ জন শিক্ষার্থীর জন্য একজন শিক্ষক থাকার কথা থাকলেও বর্তমানে ৮৪ জন শিক্ষার্থীর জন্য একজন শিক্ষক রয়েছেন। ১০০টি শিক্ষকের পদ শূন্য রয়েছে। বৃত্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য নির্ধারিত ফি ৪০ টাকা হলেও ৪০ টাকা থেকে ১৫০ টাকা নেয়া হচ্ছে পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে। ৭৩ ভাগ অভিভাবক জানিয়েছেনÑ উপবৃত্তির টাকা গ্রহণকালে ২০-৪০ টাকা পর্যন্ত ঘুষ দিতে হয়। ৯৬ ভাগ অভিভাবক জানান, পাঠ্যপুস্তক বিতরণকালে টাকা দিতে হয়। যদিও শিক্ষা অফিস থেকে প্রতি বিদ্যালয়কে পাঠ্যপুস্তক বিতরণকালে ২০০ টাকা করে দেয়া হয়। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর জন্য ৫ টাকা, তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণীর জন্য ১০ টাকা ও সমাপনী পরীক্ষার জন্য ২০ টাকা ফি নির্ধারিত হলেও প্রতিটি ক্ষেত্রে অধিক হারে টাকা নেয়া হচ্ছে। বিদ্যালয় থেকে সার্টিফিকেট গ্রহণের জন্য ৫০ থেকে ১০০ টাকা দিতে হচ্ছে। যদিও এর জন্য ফি নেয়ার কোনো নিয়ম নেই। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হতে সরকারিভাবে নির্ধারিত কোনো ফি না থাকলেও ১০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত দিয়ে শিক্ষার্থীদের ভর্তি হতে হচ্ছে।
শিক্ষকদের হোম ভিজিটের দায়িত্ব থাকলেও অধিকাংশ শিক্ষকই এ দায়িত্ব পালন করেন না। এতে সভাপতিত্ব করেন মুন্সীগঞ্জ সচেতন নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক অনিল কুমার চক্রবর্তী। এ সময় বক্তব্য রাখেন গিয়াস উদ্দিন পিন্টু, খালেদা খানম, শহীদ-ই হাসান তুহিন, মামুনুর রশীদ খোকা, তানভীর হাসান, জাহাঙ্গীর সরকার মন্টু, হামিদা খাতুন, অ্যাডভোকেট নাছিমা আক্তার, আলী আকবর মিলন, কাজী আবদুল বাতেন, গোলজার হোসেন, শেখ মো. রতন, শাহ আলম প্রমুখ।

[ad#co-1]

Leave a Reply