‘অনেকবার অনেক নির্বাচনই করলাম। তাই পার্টি নতুন নেতা খুঁজতে থাকুক’

khokaসাদেক হোসেন খোকা
সাদেক হোসেন খোকা। ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র। পাশাপাশি তিনি বিএনপি’র অন্যতম নেতা। জরুরি অবস্থা চলাকালে দলের চেয়ার পারসন বেগম খালেদা জিয়ার ক্ষমতা বিকেন্দ্রিকরণের ঘোষণা দিয়ে তিনি আলোচনায় আসেন। পরে মহানগর বিএনপি’র সভাপতির পদ থেকে তাকে বাদ দেয়া হয়। এরই মধ্যে তিনি কোনো নির্বাচন করবেন না বলেও ঘোষণা দিয়েছেন। রাজনীতিতে কৌশলী খেলুড়ে হিসেবে পরিচিত এই রাজনীতিবিদ কয়েকদিন আগে সাপ্তাহিক-এর সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করেন। আলোচনার প্রসঙ্গ ছিল নির্বাচন ও নিজের দলসহ বিভিন্ন বিষয়। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন পার্থ সারথি দাস

সাপ্তাহিক : আপনি কি মনে করেন সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য দেশে উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি হয়েছে ?

সাদেক হোসেন খোকা : আমাদের দেশে জরুরি অবস্থা প্রত্যাহারের কথা জোরেশোরে বলা হয়েছিল। এ অবস্থায় আমাদের চারটি সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন হয়েছে। কিন্তু কোনো অনুযোগ তো শোনা যায়নি। সবাই ভোট দিতে পেরেছে। কিন্তু মূল জিনিসটা হলোÑ জরুরি অবস্থার মধ্যে নির্বাচন হওয়া জাতির জন্য দুর্ভাগ্যজনক। কারণ আমরা এত বছর হলো স্বাধীন হয়েছি। অনেক নির্বাচন করেছি। তারপরও এখন আমাদের জরুরি অবস্থার দরকার হচ্ছে। জরুরি অবস্থায় কিছু কঠোরতা তো আছেই। জরুরি অবস্থা শিথিল করা হয়েছে। তারপরও গোপন কিছু কঠোরতা তো থাকবেই। মানুষের ভয় পুরোপুরি দূর হয়নি। আর আমাদের দেশের জাতীয় নির্বাচন মানেই হলো একটা উৎসব। ক্যাম্পেইন হয়। মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ থাকে। এবার নির্বাচন কমিশন যেসব আদেশ-নির্দেশ জারি করেছে তাতে তারা অনেক কিছু না করলেও পারত। আমাদের সমস্যা হলো আমরা যখন যেটা করি তখন সেটা কঠিনভাবে করি। যখন একদিকে যাই তখন পেছনে ফেরত আসার চিন্তা করি না। আবার যখন যেদিকে যাই এক্সট্রিমলি যাই। এখন নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে নির্বাচনটাকে কন্ট্রোল করার যে বিষয়গুলো নিয়ে আসা হয়েছে এটাও আমি মনে করি যে খুব কঠিনভাবে নিয়ে আসা হয়েছে।

সাপ্তাহিক : আসন্ন নির্বাচনে কি তাহলে উৎসবমুখর পরিবেশ থাকবে না?

খোকা : উৎসবের পরিবেশটা নির্ভর করছে বিএনপি অংশগ্রহণ করছে কি না তার ওপর। এখনো তো চারদলীয় জোটের অংশগ্রহণটা অস্পষ্ট। এটা স্পষ্ট না হওয়া পর্যন্ত এ আমেজটা পাওয়া যাবে না। আমার তাই মনে হয়।

সাপ্তাহিক : নির্বাচন সামনে রেখে বিএনপির প্রস্তুতি কেমন?

খোকা : বিএনপির নির্বাচনের প্রস্তুতি একেবারেই দেখি না। বিএনপি একটি বড় দল। জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেয়ার জন্য অন্তত ২০০০-এর বেশি সংখ্যক প্রার্থীর সাক্ষাৎকার নিতে হয়। এ থেকে প্রার্থী বাছাই করতে হয়। তার ওপর সারা দেশে একটা খোঁজখবর রাখতে হয়। সেদিক থেকে বিএনপি তো কোনো কাজ করছে বলে মনে হয় না। সেটা আমি দেখিনি। কারণ বিএনপির এ কাজগুলো করার জন্য সময় দেয়া হয়নি।

সাপ্তাহিক : বিএনপির মধ্যে প্রগতিশীল ও মুক্তিযোদ্ধাদের যে একটা ধারা বা অংশ ছিল সেটা এখন কোণঠাসা হয়ে গেছে বলে অনেকে বলেন। বিএনপির ওপর জামায়াতের প্রভাবটা এখন বেশি হয়ে গেছে। আপনার কী মনে হয়? জামায়াতের পৃষ্ঠপোষক তো এখন বিএনপিই নাকি?

খোকা : এ প্রশ্নের জবাব এক কথায় দেয়া যাবে না। এ প্রশ্নের জবাব দিতে গেলে ১৯৭২ সালের দিকে তাকাতে হবে। ৭২ সালে যখন শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশে আসলেন, ক্ষমতা নিলেন- সেই সময় থেকেই স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রশ্রয় দেয়া হচ্ছে।

রায়েরবাজার বধ্যভূমিতে যে বুদ্ধিজীবী এবং নিরপরাধ লোকদেরকে হাত-পা বেঁধে অত্যাচার করে খুন করা হলো সেই ঘটনারই তো কোনো তদন্ত করা হলো না। শহীদুল্লাহ কায়সার থেকে শুরু করে ফজলে রাব্বীসহ বিভিন্ন শিক্ষক, বিভিন্ন বুদ্ধিজীবীকে হত্যা করা হলো। ঐ সরকার তো তাদেরকে কোনো কিছু করেনি। তখন আমার ঢাকায় থাকার সুযোগ হয়েছিল। রায়েরবাজার বধ্যভূমি থেকে তিনটা লাশ আমি নিজে জিপে করে নিয়ে আসি। ওরা ছিল গোপীবাগের। সম্পর্কে ওরা তিন ভাই ছিল। ওখানে ইট-পাথরের ফাঁকে ফাঁকে লাশগুলো পড়েছিল। তাদেরকে ওরা হত্যা করে ১৪ ডিসেম্বর। ১২-১৩ তারিখের দিকে এ লোকগুলোকে ওরা বিভিন্ন জায়গা থেকে ধরে নিয়ে আসে। তখনকার সময়ে এখনকার মতো কালোগ্লাস দেয়া গাড়ি ছিল না। বিআরটিসি মিনিবাসের গ্লাসগুলোতে কাদা দিয়ে লেপটে দিত, যাতে বাইরে থেকে ভেতরটায় কেউ দেখতে না পায়। ঐ গাড়িটা দিয়েই কিন্তু বিভিন্ন জায়গায় আল বদর, আল শামস বাহিনীর লোকেরা হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে। ওই সময় ঢাকায় একটি প্রশাসন ছিল। গভর্নর ছিল। এসপি ছিল, ডিসি ছিল, বিআরটিসির চেয়ারম্যান ছিল- কে এ গাড়িগুলো নিয়েছিল। এ বিষয়টা এক জায়গা থেকে তদন্ত করলেই তো বেরিয়ে আসত । যুদ্ধাপরাধীরা তখন থেকেই সুবিধা পাচ্ছে।

সাপ্তাহিক : সংস্কারপন্থী হিসেবে আপনাকে অনেকে অভিহিত করে থাকেন। সংস্কারের উদ্যোক্তা আবদুল মান্নান ভূঁইয়ার সঙ্গে আপনি প্রথম বৈঠক করেছিলেন। এছাড়া দলের চেয়ারপারসনের ক্ষমতার ব্যাপারেও বক্তব্য রেখেছিলেন। এ কারণে অনেকে আপনার ভূমিকা নিয়ে বিতর্কের ঝড় তোলেন। এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত আপনার কাছ থেকে কোনো স্পষ্ট বক্তব্য পাওয়া যায়নি। এখন কী এ ব্যাপারে কিছু বলবেন?

খোকা : আমি পরিষ্কার করেই বলেছিলাম যে, আমি ব্যক্তি বেগম জিয়ার ক্ষমতা খর্ব করার পক্ষে নই। আমি বলেছিলাম বিএনপির ডিসিশন মেকিং প্রসেসটা শক্তিশালী হওয়া দরকার। কোনো চাটুকার বা তোষামোদকারী যাতে সিদ্ধান্ত গ্রহণে কোনো প্রভাব না ফেলতে পারে সে কথাটাই বলেছিলাম। কেননা আমাদের গঠনতন্ত্রেরও একটা প্রক্রিয়া আছে। সেই প্রক্রিয়াগুলোকে আধুনিকীকরণ করা যায়। এরপর একটি ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় প্রচার হলো যে আমি বেগম খালেদা জিয়ার ক্ষমতা খর্ব করার কথা বলেছি। এটা প্রচার হওয়ার পরদিন আমি স্পষ্ট করে ব্যাখ্যা দিয়েছি। বলেছি, আমি বেগম জিয়ার ক্ষমতা খর্ব করার কথা বলিনি। আমি কিন্তু নীরব নই। ছিলামও না। দলের দেয়া কাজ সাধ্যমতো করেছি। ভবিষ্যতেও করব।

সাপ্তাহিক : ঢাকা মহানগর বিএনপির পদ থেকে আপনাকে বাদ দেয়া হয় হঠাৎ করে। এ ঘটনার পেছনে কি কোনো কারণ ছিল?

খোকা : কারণটা যারা বাদ দিয়েছেন তারা জানেন। তারা জানেন কী কী কারণে বাদ দিয়েছেন। আমার ত্রুটির কথা নিজে কী বলব? জরুরি অবস্থার মধ্যে তো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড বন্ধ ছিল। ওই সময় কর্মকাণ্ড চালানো কঠিন ছিল। এরপর কমিটি বাতিল করা হলো। বলা হলো কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে। এটা ঠিক যে, কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে। এটা বহুদিনের পুরনো কমিটি। তবে কমিটি ভাঙার প্রক্রিয়া ঠিক ছিল না। এটা দলের গঠনতন্ত্র মেনে করা হয়নি।

সাপ্তাহিক : বেগম খালেদা জিয়া মুক্তির পর বেশ কয়েকবারই নাকি তার সঙ্গে আপনার বৈঠক হয়েছে। তো সর্বশেষ বৈঠকে তিনি আপনাকে বিশেষ কোনো নির্দেশনা বা পরামর্শ দিয়েছেন কি ?

খোকা : তার সঙ্গে বৈঠকে আলোচনার বিষয় ছিল রাজনৈতিক পরিস্থিতি। আমি তার শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নিয়েছি। পারিবারিক খবর নিয়েছি। তার দুই ছেলে যেভাবে নির্যাতিত হয়েছে এ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। এসব ছাড়াও নেতাকর্মীদের হাল অবস্থাই ছিল আলোচনার মূল বিষয়। …একজন কমিশনার জেলেই মারা গেলেন। এসব বিষয় নিয়ে অল্প আলোচনা হলো। পরিস্থিতি অবহিত হওয়ার চেষ্টা করেন তিনি।

সাপ্তাহিক : খালেদা জিয়া মুক্তি পাওয়ার পরে প্রথম জনসভা করতে যাচ্ছেন চট্টগ্রামে আগামীকাল (৭ নবেম্বর। কী ঘোষণা আসতে পারে। আপনি কি ওখানে যাবেন?

খোকা : আমি যাচ্ছি। ওখানে নির্বাচন নিয়ে দলের অবস্থান তিনি তুলে ধরতে পারেন। ঘোষণার আগে বলা কঠিন কী বলবেন।

সাপ্তাহিক : আপনিসহ মোট তিনজন মেয়রকে অপসারণ করা হচ্ছে বলে একটি তথ্যে জানা গেছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় অসদাচরণের জন্যই নাকি এটি করছে। এ সম্পর্কে আপনার বক্তব্য কী?

খোকা : বাংলাদেশে ৪০০-র ওপরে পৌরসভা আছে। কয়েক হাজার ইউনিয়ন কাউন্সিল আছে। হয়ত দেখা গেল সেখানকার নির্বাচনে ৪০ ভাগ বিএনপির লোকজন নির্বাচিত হয়ে আছে। আবার যদি উল্টো করে বলি, যদি বিএনপি ক্ষমতায় থাকে সেখানে দেখা গেল আওয়ামী লীগের ৪০-৫০ ভাগ নির্বাচিত হয়ে আছে।

আগে বিভিন্ন ধরনের অজুহাত যেমন দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতির অভিযোগ তুলে থানায় প্রতিপক্ষ একটি মামলা দিত। পরে থানা প্রক্রিয়ায় আইনি সিদ্ধান্ত মিনিস্ট্রিতে যেত। তারা সেখানে বসে ঐ পৌরসভার চেয়ারম্যানকে বরখাস্ত করত, সাসপেন্ড করত। বহুদিন ধরেই এটা চলে আসছে। ফলে নির্বাচিত স্থানীয় সরকার চলতে পারছিল না। তখন হাইকোর্টে একটা রিটের ফলে কোর্ট অনেক চিন্তাভাবনা করে একটা রায় দেয় যে, একটা নির্বাচিত প্রতিনিধি তিনি আরেকজন নির্বাচিত প্রতিনিধির কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করবেন। এ কারণে আওয়ামী লীগের মেয়র মোহাম্মদ হানিফ সাহেব তার মেয়াদের পরেও সাড়ে তিন বছর দায়িত্বে ছিলেন। নির্বাচন না হওয়ার কারণে তাকেই ক্ষমতায় থাকতে হয়েছিল। এগুলো তো দুই একটা ঘটনা। শত শত পৌরসভা, হাজার হাজার ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের প্রোটেকশনের জন্য এ আইনটা দরকার। এ আইনটা থাকা উচিত।

চট্টগ্রামের মহিউদ্দিন চৌধুরী ও আমার না হয় মেয়াদ নেই। কিন্তু কামরান তো সদ্য নির্বাচিত একজন মেয়র। জেলে থেকে এত বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করেছেন। আদালতের রায়ের আগে তো জনগণের রায়কে উপেক্ষা করে তাকে বাদ দেয়া যাবে না। দেয়া ঠিক না।

এভাবে ইচ্ছেমতো যড়যন্ত্র করে অপসারণ করা হলে স্থানীয় সরকার ব্যবস্থাকে আবার মাইনাসের ঘরে নিয়ে যাবে তারা।

সাপ্তাহিক : নির্বাচন করবেন না বলে হঠাৎ করে ঘোষণা দিয়েছিলেন জরুরি অবস্থার মধ্যে। কেন?

খোকা : আমি আমার ঘোষণা অনুযায়ী এখনো ঠিক আছি। অনেকবার অনেক নির্বাচনই করলাম। তাই পার্টি নতুন নেতা খুঁজতে থাকুক। চেষ্টা করুক কোনো নতুন মুখ পাওয়া যায় কিনা। নতুনদের এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার সুযোগ তৈরি হোক।

সাপ্তাহিক : নির্বাচন করবেন না বলে যে ঘোষণা দিয়েছিলেন তার পেছনে কোনো ক্ষোভ আছে কি?

খোকা : না। এটা কোনো ক্ষোভের বিষয় না। আমি গত ২২ জানুয়ারির না হওয়া নির্বাচনের আগে কোনো মনোনয়ন কিনে আনিনি।

সাপ্তাহিক : যদি দল চায় তবে কি সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হবেন?

খোকা : এটা তো দলের ব্যাপার। আমি একজন সাধারণ কর্মী হিসেবে দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার কারণে দলের সিদ্ধান্ত একেবারে উপেক্ষা করার কোনো কারণ নেই।

Leave a Reply