নতুন রাজনৈতিক জোট যুক্তফ্রন্টের আত্মপ্রকাশ

juktofront

সংবাদ সম্মেলনে গতকাল মেজর জেনারেল (অব:) ইব্রাহিমের সাথে তর্কে লিপ্ত হন বিকল্প ধারার সভাপতি বি. চৌধুরী

kamal-bc

নেতৃত্বে বি চৌধুরী ও ড. কামাল
সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী ও আইনজ্ঞ ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্ব্বে জাতীয় যুক্তফ্রন্ট নামের নতুন একটি রাজনৈতিক জোটের আনুষ্ঠানিক আত্মপ্রকাশ ঘটেছে গতকাল মঙ্গলবার।
জোট গঠনের পর কল্যাণ পার্টির সভাপতি মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম, ফরওয়ার্ড পার্টির আ ব ম মোস্তফা আমিন এবং কানসাট আন্দোলনের নেতা গোলাম রব্বানী যুক্তফ্রন্ট্রের প্রতি তাঁদের সমর্থন জানিয়েছেন।
জোট গঠনের ঘোষণার আগে কামাল হোসেন ও বি চৌধুরী অভিন্ন সুরে বলেন, সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে পরিবর্তনের জন্য দেশের প্রধান দুটি জোটের বাইরে এ জোট গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ব্যর্থ ও দুর্নীতিময় রাজনীতির বিরুদ্ধে সৎ ও যোগ্য লোকদের রাজনীতিতে নিয়ে আসতে হবে। জাতীয় সংসদে চোর ও অসৎ ব্যক্তিদের স্থানে সৎ ও মেধাবীদের নিয়ে আসতে হবে। তাহলেই জনগণের সংসদ প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হবে।
রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে নতুন এ জোট গঠনের ঘোষণা দেওয়া হয়।
গণফোরামের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সুব্রত চৌধুরীর সঞ্চালনায় যুক্তফ্রন্টের ঘোষণা পাঠ করেন বিকল্প ধারার মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নান।
ঘোষণাপত্রে বলা হয়, বাংলাদেশের এখন প্রধান সমস্যা হলো সর্বগ্রাসী দুর্নীতি, সীমাহীন সন্ত্রাস, অসহনীয় দারিদ্র্য, বেকার সমস্যা, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি এবং সংসদে ও সরকারে সৎ, মেধাবী, দেশপ্রেমিক ও দুরদৃষ্টিসম্পন্ন প্রতিনিধির অভাব।
দেশের জনগণ এখন যেকোনো মূল্যে চায় কালো টাকা, সন্ত্রাস ও দলীয়করণমুক্ত সুস্থ রাজনীতি। জনগণ সৎ ও যোগ্য প্রতিনিধির মাধ্যমে সংসদে তাদের মালিকানা প্রতিষ্ঠা করতে চায়। দুর্নীতি আর সন্ত্রাসীদের রাজনীতি রুখতে হলে জনগণকে এখনই ঘুরে দাঁড়াতে হবে।
ঘোষণায় বলা হয়, দেশে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন এবং রাজনীতির অর্থপূর্ণ পরিবর্তন ঘটাতে জাতি আজ ঐক্যবদ্ধ। আর সে জন্যই ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্টের আদলে গণজাগরণের পথে জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করতে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সব শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে ড. কামাল হোসেন বলেন, লুটেরাদের সংসদ থেকে বিদায় দিয়ে সৎ মানুষদের সেখানে বসাতে হবে। দেশকে দারিদ্র্যমুক্ত করতে সংসদে বিল পাস করাতে হবে। আর সে জন্যই ১৫ কোটি মানুষের ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। তিনি বলেন, “আর মেলামিনযুক্ত গণতন্ত্র আমরা চাই না। আমরা চাই মেলামিনমুক্ত বিশুদ্ধ গণতন্ত্র।”
অধ্যাপক বি চৌধুরী বলেন, গণতন্ত্রের নামে যারা এ দেশে স্বেচ্ছাচার, লুন্ঠন আর দলতন্ত্রের নজির স্থাপন করেছিল, তাদের সঙ্গে আপস হতে পারে না। দুর্বৃত্তদের সঙ্গে আপস করে সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন হতে পারে না।
বি চৌধুরী বলেন, দুর্নীতি-সন্ত্রাসের কাছে বাংলাদেশ মাথা নত করবে না। ঘুরে দাঁড়াবেই বাংলাদেশ। তবে এ জন্য সচেতন নাগরিক-সমাজকে আরও উদ্যোগী হতে হবে। দেশের সম্পদ লুন্ঠন করে যারা বিদেশে নিয়ে যায়, সেই লুটেরাদের চিহ্নিত করতে হবে, যাতে তারা কোনোমতেই আর নির্বাচিত হতে না পারে।


জাতীয় যুক্তফন্সন্ট ঘোষণার শুরুতেই বিব্রতকর পরিস্খিতির শিকার হয়েছেন বিকল্প ধারার সভাপতি অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। ক্ষুব্ধ হয়েছেন ফন্সন্টের দুই শরিক কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব:) সৈয়দ

মুহাম্মদ ইবরাহিম ও ফরোয়ার্ড পার্টির চেয়ারম্যান আ ব ম মোস্তফা আমিন। অনুষ্ঠানে কল্যাণ পার্টি ও ফরোয়ার্ড পার্টির এই দুই নেতা উপস্খিত থাকলেও তাদের মঞ্চে আসন না দিয়ে সামনের অন্য নেতাদের সারিতে বসিয়ে রাখা হয়। তাদের মঞ্চে ডাকা হয়নি। এ ঘটনায় ভেতরে ভেতরে ফুঁসছিলেন জেনারেল ইবরাহিম। এ অবস্খায় মঞ্চে বসা বি চৌধুরী ও ড. কামাল হোসেনের বক্তৃতা শেষে বিকল্প ধারার মহাসচিব মেজর (অব:) আবদুল মান্নান যুক্তফন্সন্টের যুক্ত ঘোষণা পাঠ করেন। তখনই ঘটে এ বিব্রতকর ঘটনা। জেনারেল ইবরাহিম নিজের ক্ষোভ চেপে রাখতে না পেরে একপর্যায়ে মঞ্চে ছুটে যান বি চৌধুরীর কাছে। কৈফিয়তের সুরে বি চৌধুরীকে জিজ্ঞেস করেন, আপনারা কি এখানে ফটো সেশন করতে এসেছেন, নাকি রাজনৈতিক ফন্সন্ট করতে এসেছেন। তিনি প্রায় ২-৩ মিনিট ক্ষুব্ধ স্বরে বি চৌধুরীর সাথে কথা বলেন। ফটোসাংবাদিকদের কারণে তেমন কিছুই শোনা না গেলেও তিনি যে রেগে গেছেন তা স্পষ্টভাবে বোঝা গেছে।
বিক্ষুব্ধ কল্যাণ পার্টির নেতাকর্মীরা þেöাগান দিতে থাকলে অনুষ্ঠানস্খলে বেশ উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এ পরিস্খিতিতে জেনারেল ইবরাহিম দলীয় নেতাকর্মীদের শান্ত থাকার নির্দেশ দিলে সবাই চুপ থাকেন। তাকে শান্ত করতে মাহী বি চৌধুরী দ্রুত ছুটে যান তার কাছে। এ ঘটনায় এক বিব্রতকর পরিস্খিতির শিকার হন মঞ্চে বসা দুই নেতা। পরে তাকে শুভেচ্ছা বক্তৃতা করার অনুরোধ জানানো হয়। জেনারেল ইবরাহিম তার বক্তৃতায় বলেন, আমি বক্তৃতা করার আগে মাহী বি চৌধুরী আমাকে বলেছেন, মামা আপনি কী বলবেন। তাকে বলেছি, মামা ফন্সন্টের কোনো ক্ষতি হোক­ এমন কোনো কথা বলব না। আমি কখনো ব্যর্থ জেনারেল ছিলাম না। মুক্তিযুদ্ধে সফল সেনাপতি ছিলাম, পার্বত্যাঞ্চলেও সফল ছিলাম। শুধু সফল সেনাপতি হলেই হবে না, এ জন্য প্রাজ্ঞ ও দক্ষ নেতার প্রয়োজন। তাই আমি অধ্যাপক বি চৌধুরী ও ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে যুক্তফন্সন্টে নি:শর্তভাবে যোগ দিয়েছি। কারণ আমি ব্যক্তিগতভাবে এ দুই নেতাকে ভীষণ শ্রদ্ধা করি। গুণগত পরিবর্তন শুধু রাজনীতিতে আনলেই চলবে না, ফন্সন্টের ভেতরেও আনতে হবে। আমরা এ দুই নেতার নেতৃত্বে যুক্তফন্সন্টে ঐক্যবদ্ধ থাকব। পরে মোস্তফা আমিন ও কানসাটের কৃষক আন্দোলনের নেতা গোলাম রাব্বানীও বক্তৃতা করেন। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেচ সুব্রত চৌধুরী। এ সময় গণফোরামের পঙ্কজ ভট্টাচার্য, কমান্ডার আবদুর রউফ, সাবেক হুইপ আবদুর রউফ, কল্যাণ পার্টির মহাসচিব মুক্তিযোদ্ধা সাদেক আহমেদ খান।
এ দিকে সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী ও ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে সীমিত আকারে জাতীয় যুক্তফন্সন্টের আনুষ্ঠানিক আত্মপ্রকাশ ঘটেছে। যুক্তফন্সন্টে অনেকেরই আসার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত মেজর জেনারেল (অব:) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমের কল্যাণ পার্টি ও আ ব ম মোস্তফা আমিনের ফরোয়ার্ড পার্টি ছাড়া কাউকেই দেখা যায়নি। এর আগে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে এক অনুষ্ঠানে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরোত্তমের কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ যুক্তফন্সন্টে আসার ঘোষণা দিলেও গতকাল তাকে দেখা যায়নি।
অধ্যাপক বি চৌধুরী ও ড. কামাল হোসেনের যুক্ত ঘোষণায় বলা হয়েছে, দেশের জনগণ মনে-প্রাণে চায় কালো টাকা, সন্ত্রাস ও দলীয়করণমুক্ত সুস্খ রাজনীতি। জনগণ সৎ ও যোগ্য প্রতিনিধির মাধ্যমে তাদের মালিকানা সংসদে প্রতিষ্ঠা করতে চায়। বিগত সরকারগুলোর মতোই বর্তমান সরকারও ব্যর্থতার কারণে জনগণের আশা-আকাáক্ষার প্রতিফলন ঘটাতে পারেনি। সরকার দুর্নীতিবাজদের সাথে সমঝোতা করায় জাতি আজ হতাশ ও ক্ষুব্ধ। সর্বগ্রাসী দুর্নীতি, সীমাহীন সন্ত্রাস, অসহনীয় দারিদ্র্য, বিগত সরকারগুলোর গণতন্ত্রবিরোধী আচরণের কারণে উদার গণতন্ত্রের স্বপ্ন ধূলিসাৎ, মুক্তিযুদ্ধবিরোধী সর্বনাশা শক্তির পুনরুথান, বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের প্রেক্ষাপটে দেশের বেকার সমস্যা ও দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিসহ অর্থনৈতিক অবনতি এবং সংসদে ও সরকারে সৎ, মেধাবী, দেশপ্রেমিক ও দূরদৃষ্টিসম্পন্ন প্রতিনিধির অভাব দেখা দিয়েছে। দেশের প্রধান এসব সমস্যা দূর করতেই এ জাতীয় যুক্তফন্সন্ট গঠনের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করছি।

Leave a Reply