মাওয়া ও কাওরাকান্দি ফেরিঘাটে যানবাহনের দীর্ঘ জট, দুর্ভোগ

মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় পদ্মা নদীর মাওয়া ফেরিঘাটে গতকাল শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কয়েক কিলোমিটার দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। নদীর অপর পাড়ে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার কাওরাকান্দি ঘাটেও সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট। সংশ্লিষ্ট লোকজন জানায়, নদীতে নাব্যতা কমে যাওয়া এবং ফেরি সংকটের কারণে এ সমস্যা তৈরি হয়েছে।
যানজটের কারণে গত শুক্রবার রাতে ঘাটে আসা যানবাহনকে নদী পার হতে গতকাল সকাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। ফলে ঘরমুখো লোকজনকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়।
প্রত্যক্ষদর্শী লোকজন জানায়, শুক্রবার সকাল থেকে মাওয়া ঘাটে গাড়ির চাপ বাড়তে থাকে। সন্ধ্যার দিকে দেখা দেয় দীর্ঘ যানজট। গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে মাওয়া ঘাট থেকে প্রায় আট কিলোমিটার দুরে শ্রীনগর উপজেলার দোগাছি পর্যন্ত এলাকাজুড়ে যানবাহনের সারি দেখা যায়।
কাওরাকান্দি ঘাট সুত্র জানায়, গতকাল ভোরে শরীয়তপুরের পালেরচরে ফেরি শাহ জালাল ও রানীক্ষেত ডুবোচরে আটকে যায়। প্রায় চার ঘণ্টা চেষ্টা করে ফেরি দুটি উদ্ধার করা হয়। এ সময় ফেরি চলাচল বন্ধ ছিল।
কাওরাকান্দি ঘাটে যাত্রীবাহী বাসের পাশাপাশি গরুবোঝাই শতাধিক ট্রাক আটকা পড়ে। অনেক যাত্রী দীর্ঘ অপেক্ষার পর কোনোভাবে পার হতে পারলেও বাস পেতে হিমশিম খায়।
মাওয়া ঘাটে আটকা পড়েন জহির উদ্দিন ও তাঁর পরিবার। গতকাল সকালে তিনি বলেন, ‘পরিবার নিয়ে ঈদ করতে খুলনা যাচ্ছি। শুক্রবার রাত ১১টার দিকে যানজটে আটকা পড়েছি আর এখন সকাল ১০টা বাজে। কিন্তু ফেরিতে উঠতে পারলাম না।’
মাওয়া ঘাট সুত্র জানায়, মাওয়া-কাওরাকান্দি পথে বর্তমানে ১৩টি ফেরি চলাচল করছে। কয়েক মাস আগে ফেরি পারাপারে এক থেকে দেড় ঘণ্টা লাগত। নাব্যতার সংকটের কারণে এখন আড়াই থেকে তিন ঘণ্টা সময় লাগে। নাব্যতা ও ফেরি সংকটের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে কুয়াশা। সকালের দিকে ঘন কুয়াশা ফেরি চলাচলে বাধার সৃষ্টি করে।
বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা−বিআইডব্লিউটিসির মাওয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক সিরাজুল ইসলাম বলেন, ঈদের গাড়ির চাপ বেশি, তাই যানজটও বেশি। নাব্যতার সংকটও একটি বড় কারণ। ফেরিও বাড়ানো দরকার।

Leave a Reply