মুন্সীগঞ্জ সদরে ৮ চেয়ারম্যান প্রার্থী মাঠে

এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৫ জনই আওয়ামী লীগ ও বিএনপি থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও গণফোরাম নেতা মোহাম্মদ হোসেন বাবুল, মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আনিসুজ্জামান আনিস, কেন্দ ীয় যুবলীগ নেতা ফয়সাল বিপ ব এবং বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট সালাউদ্দিন খান স্বপনের সঙ্গে। এছাড়া অন্য প্রতিদ্বন্দ্বিরা হচ্ছেন শহর বিএনপির সভাপতি শাহজাহান শিকদার, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা শাহ আলম মলি ক, মুজিবুর রহমান ও মোফাজ্জল হোসেন। আনিসুজ্জামান আনিস ও মোহাম্মদ হোসেন বাবুল হচ্ছেন সদর উপজেলার হেভিওয়েট চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেন বাবুল চেয়ার প্রতীক নিয়ে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান পদে তৃতীয়বারের মতো প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তিনি জাতীয় নির্বাচনের আগে থেকেই উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনের লক্ষ্যে গণসংসংযোগ শুরু করেন। তিনি মুক্তিযোদ্ধা। ১৯৮৯ সালে তিনি সদর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ১৫ হাজার ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হওয়ার পর এক বছরের মাথায় উপজেলা পরিষদ ভেঙে দেয়া হয়। তিনি ১৯৬৮-৬৯ সালে হরগঙ্গা কলেজের ভিপি ছিলেন। বর্তমানে তিনি ১৪ দলীয় নেতা। মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামান আনিস জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পাওয়ার পর উপজেলা চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হয়েছেন। তিনি দোয়াত-কলম প্রতীক নিয়ে উপজেলা নির্বাচনী লড়াইয়ে অবতীর্ণ হয়েছেন। মুন্সীগঞ্জ-৩ (সদর ও গজারিয়া) আসনে সাংসদ পদে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য তিনি তৃণমূল পর্যায়ের নেতাদের ভোটে প্রথম হয়েছিলেন। দলীয় মনোনয়ন না পেলেও তিনি নবনির্বাচিত সাংসদ এম ইদ্রিস আলীর পক্ষে ব্যাপক নির্বাচনী কর্মকাণ্ড পরিচালনা করেন। তার রয়েছে ব্যাপক সাংগঠনিক দক্ষতা। ২৪ মার্চ ১৯৯৯ এ তিনি মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে তার একটি আলাদা ইমেজ গড়ে ওঠে। মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার একজন শক্ত এবং দক্ষ প্রশাসক হিসেবে খ্যাতি পান। তার সময় মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা সার্বিক মানের দিক থেকে তৃতীয় স্থান অধিকার করে। তিনি ২০০৩ সালে শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান হিসেবে রাষ্ট্রীয় সম্মান লাভ করেন এবং ওই বছর স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে আন্তর্জাতিক বিশেষ প্রশিক্ষণের জন্য ফিলিপিনে যান। ওই সময় বাংলাদেশ থেকে ১০ জন চেয়ারম্যান ফিলিপিনে প্রশিক্ষণের জন্য গিয়েছিলেন। তিনি উপজেলা নির্বাচনে ব্যাপক গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। তরুণ প্রজšে§র কাছে বেশ জনপ্রিয় বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট সালাউদ্দিন খান স্বপন রিকশা প্রতীক নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসেবে নির্বাচনের মাঠে রয়েছেন। তিনি জেলা আইনজীবী সমিতির দু’বার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তিনি জেলা মানবাধিকার কমিশনের সভাপতি ও জেলা দুদকের পিপি। তিনি জেলা বিএনপির লিগাল এইড কমিটির সদস্য। অল্প বয়সে দক্ষ আইনজীবী হিসেবে জেলায় পরিচিতি লাভ করেন। সদরের বাবা আদম (রা.) মাজার জিয়ারতের মধ্য দিয়ে তিনি গণসংযোগ শুরু করেন। দলীয় সমর্থনসহ তরুণ প্রজšে§র সমর্থন পেলে এবং জাতীয় নির্বাচনের মতো সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হলে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে জয়ী হওয়ার ক্ষেত্রে তিনি আশাবাদী। ফয়সাল বিপ ব কেন্দ ীয় যুবলীগের সদস্য। তার বাবা মোঃ মহিউদ্দিন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। তিনি দেয়ালঘড়ি প্রতীক নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান পদের জন্য নির্বাচনের মাঠে নেমেছেন। দলীয় প্রভাব তার নির্বাচনের পক্ষে যাবে বলে ] ]>

Leave a Reply