মাহীর বিরুদ্ধে নির্বাচনী তহবিলের কোটি টাকা তছরুপের অভিযোগ

mahiদলীয় পদ থেকে অপসারণ দাবি
জাহাঙ্গীর আলম

জাতীয় যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের
ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাহী বি চৌধুরীর বিরুদ্ধে নির্বাচনী তহবিলের কোটি টাকা তছরুপের অভিযোগে তাকে দল থেকে অপসারণের দাবি করেছেন বিকল্পধারা রাঙামাটি পার্বত্য জেলা কমিটির নেতারা।
গতকাল সকাল ১০টায় রাঙামাটি পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক ক্রীড়া সংস্থার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বিকল্পধারা জেলা কমিটির বৈঠকে মাহী বি চৌধুরীর বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎ ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ আনা হয়।
নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রাক্কালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট ও বিএনপির চারদলীয় জোটের পাশাপাশি তৃতীয়ধারা সৃষ্টির লক্ষ্যে সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী ও ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বিকল্পধারা, গণফোরাম, পিডিপি, কল্যাণ পার্টি ও এনপিপিকে নিয়ে জাতীয় যুক্তফ্রন্ট গঠন করা হয়। নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের ব্যানারে বি চৌধুরী ও মেজর (অব.) মান্নানসহ ১৭০ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে সবাই পরাজিত হন এবং বিকল্পধারার দুই শীর্ষনেতাসহ ১৬৯ জনের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়। বি চৌধুরীর ছেলে মাহী বি চৌধুরীকে নির্বাচনে প্রার্থী না করে জাতীয় যুক্তফ্রন্টের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক করা হয়।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিকল্পধারার এক কেন্দ্রীয় নেতা ফল বিপর্যয়ের জন্য মাহী বি চৌধুরীকে দায়ী করে বলেন, যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনী তহবিলের জন্য মেজর (অব.) মান্নানের দেয়া প্রায় অর্ধকোটি টাকা প্রার্থীদের মধ্যে সুষ্ঠুভাবে বণ্টন না করে সিংহভাগ টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়েছে। ২৯৯ রাঙামাটি আসনে বিকল্পধারার প্রার্থী ড. আলোরানী আইচকেসহ কোনো প্রার্থীকে টাকা দেয়া হয়নি।
তিনি আরো বলেন, মুন্সীগঞ্জ-২ আসনে বিএনপি প্রার্থী মিজানুর রহমান সিনহার সঙ্গে সমঝোতা করে ওই আসনে বি চৌধুরীর প্রার্থিতা প্রত্যাহারও দলের নেতাকর্মীদের মনে নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। নির্বাচনী তহবিলের টাকা আত্মসাৎ ও দলকে কুক্ষিগত করা নিয়ে মাহীর বিরুদ্ধে দলের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই বিস্তর অভিযোগ রয়েছে। নির্বাচনে ভরাডুবির পর দলে এসব বিষয় চাউর হয়ে যায়। অর্থ কেলেঙ্কারি নিয়ে নানা কানাঘুষা চলতে থাকে। এ নেতার মতে, দলের কিছু সিনিয়র নেতা এসব বিষয়ে কখনো কখনো মৃদু প্রতিবাদ করলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি।
গতকাল বিকল্পধারা রাঙামাটি শাখার নেতারা প্রকাশ্যে বৈঠক করে ঘটনার নিন্দা প্রকাশ ও প্রতিকার চাওয়ায় মাহীর বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎ ও অন্যান্য অভিযোগ জনসমক্ষে প্রকাশ হয়ে পড়ে।
বিকল্পধারা রাঙামাটি পার্বত্য জেলা শাখার সদস্য সচিব নির্মল বড়–য়া মিলন যায়যায়দিনকে বলেন, বিকল্পধারার সাবেক মহাসচিব মেজর (অব.) মান্নান পাঁচ বছর দলের তহবিল জুগিয়ে এসেছেন। তিনি ও অন্য কয়েকজন দাতা নবম সংসদ নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের প্রার্থীদের নির্বাচনী কার্যক্রম চালানোর জন্য প্রায় এক কোটি টাকা অনুদান দেন। নির্মল বড়–য়া জানান, এ টাকা থেকে যুক্তফ্রন্টের প্রত্যেক প্রার্থীকে নির্বাচনী খরচের জন্য দুই থেকে পাঁচ লাখ টাকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিল। কিন্তু মাহী বি চৌধুরী কোনো প্রার্থীকে টাকা দেননি।
নির্মল বড়–য়া বলেন, বিকল্পধারা বাংলাদেশের নেতাকর্মীদের মতো রাঙামাটি জেলার নেতাকর্মীরাও জানতে চান, দাতাদের কাছ থেকে নেয়া নির্বাচনী তহবিলের কোটি টাকা গেল কোথায়?
রাঙামাটি জেলা কমিটির বৈঠকে অভিযোগ করা হয়, মাহী বি চৌধুরীর চক্রান্তে দেশবরেণ্য ব্যক্তিত্ব সাবেক রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশের রাজনীতির পরিচ্ছন্ন পুরুষ অধ্যাপক ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর মতো লোককে মুন্সীগঞ্জ-২ আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাহার করানো হয়। বৈঠকে নেতারা বলেন, মাহী চৌধুরী কিসের লোভে বা কি কারণে এ হীন কাজ করেছেন তা দেশের জনগণ জানতে চায়।
নির্মল বড়–য়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত রাঙামটি জেলা বিকল্পধারার সভায় আরো অভিযোগ আনা হয়, নির্বাচনের আগে বা পরে টেলিফোন না ধরায় বিকল্পধারা ও যুক্তফ্রন্টের কোনো নেতা মাহীর সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেননি। সভায় নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের প্রার্থীদের ভরাডুবির জন্য মাহীকে দায়ী করা হয়।
রাঙামাটি জেলা কমিটির নেতারা মাহীকে ‘ভ-’ নেতা উল্লেখ করে তাকে দলীয় পদ থেকে অপসারণ এবং নির্বাচনী তহবিলের কোটি টাকা কোথায় খরচ হয়েছে তা তদন্তের জন্য বিকল্পধারার শীর্ষ নেতাদের প্রতি দাবি জানিয়েছেন।
সভায় উপস্থিত ছিলেন আবদুল মোনাফ সওদাগর, কাউখালী উপজেলার আহ্বায়ক ডা. বাদল বরণ বড়–য়া, কাপ্তাই উপজেলার আহ্বায়ক ডা. বি কে দত্ত, জেলা কমিটির নেতা মোহাম্মদ মফিজুর রহমান, সমীরণ বড়য়া, কুর্নাল ত্রিপুরা, অজিত তনচঙ্গ্যা, মনু মুরমু, সজিব চাকমা, মনি সেন, মিঠুন ম-ল, আরেশ চাকমা, আবদুর রহমান প্রমুখ।

Leave a Reply