পদ্মায় ডুবোচরে আটকা পড়ছে ফেরি ও লঞ্চমাওয়া-নাওডোবা চ্যানেলে ড্রেজিং কার্যক্রম উদ্বোধন

কাজী দীপু মুন্সীগঞ্জ: ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে নাব্যতা সংকটের কারণে সাড়ে ৩ মাস ধরে বন্ধ হয়ে যাওয়া মাওয়া-নাওডোবা চ্যানেলে প্রতিনিয়ত আটকা পড়ছে যাত্রীবাহী লঞ্চ।

১৪ কিলোমিটার নৌরুটের ৫ কিলোমিটার এলাকায় নাব্যতা দেখা দেয়ায় এ রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়ায় দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে ফেরি চলাচল করায় অতিরিক্ত আর্থিক খরচ ও সময় ব্যয় হচ্ছে। বিষয়টি চরম আকারে ধারণ করায় গত সোমবার থেকে মাওয়া-নাওডোবা চ্যানেলে পদ্মায় ড্রেজিং কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান মো. আব্দুল মান্নান হাওলাদার আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন।

এ সময় চেয়ারম্যান সাংবাদিকদের জানান, দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম এই মাওয়া ফেরিঘাট। নাব্যতা সংকটের কারণে ১৪ কিলোমিটারের পরিবর্তে ২৮ কিলোমিটার পথ ঘুরে ফেরি ও লঞ্চ যাতায়াত করছে। এতে অতিরিক্ত তেল খরচসহ যাত্রীদের যাতায়াতে দীর্ঘ সময় ব্যয় হচ্ছে। ড্রেজিং কার্যক্রম শেষ হলে পুরনো চ্যানেল দিয়ে ফেরি চলাচল করলে ফেরির তেল ও সময় বাঁচবে। সুযোগ সুবিধাও বৃদ্ধি পাবে। প্রায় ৪ লাখ ঘন মিটার মাটি কাটা হবে। আগামী ১৫ ফেব্র“য়ারির মধ্যে এই চ্যানেল ব্যবহারের জন্য খুলে দেয়া হবে।

এ সময় মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. মাহাবুব-উল-ইসলাম, বিআইডব্লিউটিএর সদস্য প্রকৌশল ফিরোজ আহমেদ, এডিসি গিয়াসউদ্দিন মোঘল, বিআইডব্লিউটিসির পরিচালক মোহাম্মদ আলী, বিআইডব্লিউটিএর প্রধান প্রকৌশলী ড্রেজিং আব্দুল মতিন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুর রহমানসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিআইডব্লিউটিএর সহকারী পরিচালক আশরাফ হোসেন জানান, নাব্যতা সংকটের কারণে গত বছরের অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে মাওয়া-নাওডোবা-চর যানাজাত চ্যানেল বন্ধ করে দেয়া হয়। এর ফলে ১৪ কিলোমিটারের পরিবর্তে ২৮ কিলোমিটার পথ ঘুরে বর্তমানে ফেরি চলাচল করছে। মাওয়া-নাওডোবা ১৪ কিলোমিটার চ্যানেলের মধ্যে ৫ কিলোমিটার এলাকায় ডুবোচর জেগে উঠলে নাব্যতা সংকাট দেখা দেয়। বর্তমানে মাওয়া-পালেরচর-মাঝিকান্দি হয়ে দীর্ঘ পথ অতিক্রম করে ফেরি চলাচল করছে। এ কারনে মাওয়া-নাওডোবা চ্যানেলে ৪টি ড্রেজার দিয়ে কাজ শুরু করা হয়েছে। এরমধ্যে ২টি বিআইডব্লিউটিএর ও ২ টি ভাড়া আনা হয়েছে।

সরেজমিন দেখা গেছে, মাওয়া-নাওডোবা চ্যানেল নব্যতা সংকটের কারণে বন্ধ করে দেয়ায় যানবাহন পারাপারে দীর্ঘ সময় ব্যয় হওয়ায় ফেরিঘাটের উভয়পাড়ে যানবাহনের জট লেগে আছে। চলাচলরত ফেরিগুলো সর্তক হয়ে চলাচল করছে। লঞ্চ চলাচল করলেও মাঝ নদীতে গিয়ে ডুবোচরে আটকা পড়ছে। লঞ্চের শ্রমিকদের সঙ্গে যাত্রীরাও আটকা পড়া লঞ্চ উদ্ধারে চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান হাওলাদারও তা প্রত্যক্ষ করেছেন।

Leave a Reply