মুন্সীগঞ্জসহ সারাদেশের আলু ক্ষেতে পচন রোগ

কৃষক-ডিলার দিশেহারা হলেও বিএডিসি কর্তৃপক্ষের টনক নড়ছে না
শফিকুল ইসলাম জুয়েল ও কাজী দীপু: বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের (বিএডিসি) সরবরাহকৃত ফ্যান্সীলা ও প্রভেন্টু জাতের বীজ আলু চাষ করে মুন্সীগঞ্জসহ সারাদেশের কৃষকরা আর্থিক লোকসানের ভয়ে বিপাকে পড়েছে। ছত্রাকনাশক প্রয়োগ করেও সুফল পাচ্ছে না কৃষক। ক্ষতিপূরণের জন্য কৃষকরা অব্যাহত চাপ দেওয়ায় বিএডিসির একাধিক ডিলার আত্মগোপন করেছে। অন্যদিকে, কয়েকদিনের ঘন কুয়াশাকে পূঁজি করে ‘আলু চাষের জন্য অনুকুল আবহাওয়া’ নয় বলে আলুর পচনকে প্রাকৃতিক কারণ বলে দাবি করেছে বিএডিসি। বিএডিসির সিনিয়র সহকারী পরিচালক গোলক নাথ বনিক বলেছেন, বীজের কারণে নয়; আবহাওয়ার কারনেই আলুতে পচন ধরেছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মনিটরিং বিভাগ জানিয়েছে, ঘন কুয়াশার কারণে দেশের উত্তরাঞ্চলের ১৬ জেলাসহ সারাদেশের আলু ক্ষেতে মড়ক দেখা দিয়েছে। কৃষি কর্মকর্তারা এ রোগকে লেট ব্রাইট বা নাবি-ধ্বসা রোগ হিসেবে চিহ্নিত করছেন। তাদের হিসেবে, আক্রান্ত জমির পরিমাণ প্রায় সাড়ে ৬ হাজার হেক্টর। তবে সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, আক্রান্ত আলু ক্ষেতের পরিমাণ ৫০ হাজার হেক্টরের কম নয়। তারা জানান, এ বছর ৫ লাখ হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে উৎপাদন ধরা হয়েছে ৮০ লাখ মে.টন। কিন্তু চাষ হয়েছে ৪ লাখ ৬৪ হাজার হেক্টর জমি। এছাড়া বীজসহ কৃষি উপকরণের চড়ামূল্যের কারণে এবার আলু জমিতে চাহিদা অনুযায়ি সার-কীটনাশক প্রয়োগ করতে পারেনি কৃষক।

মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন জেলা-উপজেলার ক্ষেত ঘুরে ও কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এলাকার অধিকাংশ জমির আলু গাছ পচে গেছে। গাছে ধরা আলুর গায়ে ছিটা দাগ ধরেছে। যা হিমাগারে সংরক্ষনেরও উপযোগি নয়। মুন্সিগঞ্জ সদরের চরকেওয়ার ইউনিয়নের টরকি গ্রামের মঞ্জিল মিজি, জাকির মৃধাসহ একাধিক কৃষক জানালেন, বিএডিসির ডায়মন্ড জাতের গাছে পচন না ধরলেও নতুন জাতের ফ্যান্সীলা ও প্রভেন্টু জাতের বীজের আলু গাছ মরে যাচ্ছে। ওষধ দিয়েও তা বাঁচানো সম্ভব হচ্ছে না। বৃদ্ধ কৃষক মোতালেব চৌকিদার জানান, তাঁর চাষ করা ১৪ কড়া জমির আলু গাছেই পচন ধরেছে। কৃষক ওয়াজল সিকদার বললেন, ফ্যান্সীলা আলু বীজ ক্রয়ের পর রোপন করার জন্য বস্তা খুলতেই পঁচা গন্ধ পাওয়া যায়। ওই সময় বাছাই করে কিছু বীজ আলু রোপন করি কিন্তু এখন দেখি পচন ধরেছে।

এ প্রসঙ্গে সদর উপজেলার বিএডিসির ডিলার সমিতির সভাপতি আহসানউল্লাহ সরকার বলেন, বিএডিসি ফ্যান্সীলা ও প্রভেন্টু বীজ আলুর গাছ পচে যাচ্ছে। এ কারনে কৃষকরা টাকা ফেরত নিতে ডিরারদের চাপ দিচ্ছে। ফলে অনেক ডিলারই বাড়ি ছেড়েছে। তিনি জানান, নতুন এ জাত দুটির বীজ শেরপুর হিমাগার থেকে মুন্সীগঞ্জের অর্ধশত ডিলারদের সরবরাহ করা হয়। একেকজন ডিলার বরাদ্দ পায় ৫ থেকে ২০ টন পর্যন্ত আলু বীজ। বীজ আলু আনার পরই পচনের নমুনা পাওয়া যায়। বিষয়টি কতৃপক্ষকে জানানো হলে এবং তদন্তে সত্যতা মিললেও সে সময় কোনো প্রতিকার করা হয়নি। এছাড়া মুন্সীগঞ্জ কৃষক কল্যাণ সমিতি গত ৪ ডিসেম্বর বিএডিসির চেয়ারম্যান বরাবর লিখিত অভিযোগ করে। সংশ্লিষ্ট বিভাগকে তড়িৎ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য ৫ডিসেম্বর বিএডিসির ২ কর্মকর্তাকে (বাবু যতিন চন্দ্র সরকার ও একেএম মালেক) সরজমিন তদন্তে পাঠায়। এদিকে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসন সূত্র অভিযোগ করেছে, একমাত্র ডায়মন্ড জাতের আলু বীজ ছাড়া অন্য কোনো জাতের বীজ যেনো মুন্সিগঞ্জে না আসে সে জন্য গত আড়াই মাস আগে চিঠি দিয়ে ও টেলিফোন করে বিএডিসি কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছিল। বিষয়টির গুরুত্ব দেয়া হবে বলে সেসময় আশ্বাসও দিলেছিলেন বিএডিসির উর্ধ্বতন ওই কর্মকর্তা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা মানা হয়নি। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মহাপরিচালক দেওয়ান মোঃ ইন্তাজুল ইসলাম বলেন, আক্রান্ত আলু ক্ষেতের রোগ দমনের চেষ্টা চলছে। ছত্রাকনাশক প্রয়োগ করা হলেও ঘন কুয়াশায় ধুয়ে যাবার কারণে তেমন কাজ হচ্ছে না। তিনি জানান, সার্বক্ষনিক আলুর ক্ষেতের তদারকিতে কারিগরি প্রচার, কৃষকদের পরামর্শ ও উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তারা।

Leave a Reply