শ্রীনগরে আলুক্ষেতে ছত্রাক রোগ

শ্রীনগরে ছত্রাকের আক্রমণে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে আলুর জমি। আলু চাষিরা বারবার ওষুধ প্রয়োগ করেও ছত্রাকের আক্রমণ থেকে আলু জমি রক্ষা করতে পারছে না। স্থানীয় কৃষি অফিস ও ওষুধ কোম্পানিগুলোর পরামর্শ কোনো কাজে না আসায় আলু চাষিরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। সরকারি হিসাবে ১২৫ হেক্টর জমির ফসল ইতিমধ্যে নষ্ট হয়ে গেছে। আক্রান্ত অবস্থায় রয়েছে আরো প্রায় ১৫০ হেক্টর জমি। কৃষকদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, প্রকৃতপক্ষে এর পরিমাণ আরো অনেক বেশি। বৈরী আবহাওয়া ও বাতাসের আর্দ্রতার পরিমাণ বেশি হওয়ার কারণে আলু গাছ সহজেই ছত্রাকে আক্রান্ত হয়ে দুই-একদিনে মারা যাচ্ছে। উপজেলায় এ বছর ২৮২৫ হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয়েছে, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৭৯ হেক্টর বেশি। গত বছরের তুলনায় এ বছর আবাদ বেশি হওয়া সত্ত্বেও ছত্রাক আক্রমণের কারণে ফলন অর্ধেকে নেমে আসার আশঙ্কা করছেন চাষিরা। আলু চাষি বাবুল খন্দকার জানান, ১২ বিঘা জমিতে আলু চাষ করেছেন। ছত্রাকের আক্রমণরোধে এ পর্যন্ত ৭ বার ওষুধ প্রয়োগ করা হয়েছে। কিন্তু কাজ হচ্ছে না। ৫ বিঘা জমির ফসল ইতিমধ্যে নষ্ট হয়ে গেছে, বাকিগুলোও নষ্ট হওয়ার পথে। একবার ওষুধ ¯েপ্র করতে বিঘা প্রতি খরচ হয়েছে ৯০০ টাকা। মূলধনও ঘরে তুলতে পারবো না। আমার জমির পাশে সরকারি প্রদর্শনী প্লট রয়েছে সেগুলোও নষ্ট হয়ে গেছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তালুকদার ফিরোজ আহম্মেদ জানান, ঘন কুয়াশা ও কম রোদের কারণে নাবিধ্বসা রোগ খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। আক্রান্ত গাছের পাতার নিচে ছত্রাক বাসা বাঁধে। তাই যখন কুয়াশা থাকবে না তখন ১০ লিটার পানিতে ২৫ গ্রাম জি, মেটালিক্স, সিকিউর, করোমিল এমজেড, মেলোডি ডিও, কম্পিয়ন জাতীয় ওষুধ ৭ দিন পরপর পাতার ওপরে-নিচে ¯েপ্র করতে হবে, তাছাড়া বাতাসের আর্দ্রতার পরিমাণ কমে গেলে ছত্রাক আক্রমণও কমে যাবে।

Leave a Reply