মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সমিতি প্রসঙ্গে

৬০ বছরে পুরনো মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সমিতির মূল ভবন রয়েছে ফার্মগেট, ইন্দিরা রোডে। সেখানে গত দুই বছর কার্যক্রম চলছে না, বর্তমান কমিটির মেয়াদ দুই বছর আগে শেষ হলেও তারা এখনো বহাল তবিয়তে। সমিতির নেতারা কিভাবে বিভিন্ন ক্লাব ও রেস্টরেন্টে অপতৎপরতা চালাচ্ছেন তা বোধগম্য নয়। এ সমিতির মূল লক্ষ্য হচ্ছে ভবনে অবস্খানরত ছাত্রদের কল্যাণ করা। কিন্তু সেখানে বিদ্যুতের তার যত্রতত্র ছেঁড়া। বাথরুমের অবস্খা করুণ। ছাদের প্লাস্টার খসে পড়ছে, পানির পাইপ বেয়ে পানি পড়ছে। রান্নাঘরের অবস্খা এতই নাজুক যে সেখানে দুর্গìেধ ঢোকা যায় না।

বেশির ভাগ বেডের তোশক ছেঁড়া, খাটগুলো নড়বড়ে, অনেক ছাত্র ফ্লোরে কোনোরকম রাত পাড় করছে। জানা যায়, সেখানে নেতারা তাদের অবস্খা দেখার জন্য যান না। লজ্জার বিষয়, সিটি করপোরেশন থেকে সমিতি ভবনের নামে ক্রোক পরোয়ানা এসেছিল। কারণ, নেতারা কর আদায় করেননি। কিছু ব্যক্তি নিজস্ব টাকা দিয়ে কর আদায় করে ভবনটি রক্ষা করেন। ভবনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকেও কাজ করতে দেয়া হচ্ছে না। যখন সমিতির নির্বাচন এগিয়ে আসে তখন নেতাদের আনাগোনায় ভবনটি সরগরম হয়।

ছাত্ররা জানালেন, গত নির্বাচনে যারা জয়ী হয়ে সমিতির পরিচালনার দায়িত্ব পেয়েছিলেন, তাদের বেশির ভাগ নেতাই গত তিন বছরেও সেখানে যাননি। নির্বাচন এলে ছাত্রদের কদর বেড়ে যায়। নির্বাচন কমিশনের স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতা নিয়ে লাইফ মেম্বারদের মনে সন্দেহ দেখা দিয়েছে। কেন বারবার নির্বাচন পেছাল তার সঠিক ব্যাখ্যা নির্বাচন কমিশনাররা দিতে পারেননি। কেউ কেউ মেয়াদবিহীন কমিটির স্বঘোষিত সভাপতিকে দায়ী করছেন, আবার কেউ বলেছেন এই কমিটি কমিশনকে প্রভাবিত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত। নির্বাচন কমিশন গঠিত হওয়ার পরও কিভাবে মেয়াদবিহীন কমিটি বিভিন্ন ক্লাবে, রেস্টুরেন্টে সভা আহ্বান করে? লাইফ মেম্বারদের কাছ থেকে প্রাপ্ত ১০ লাখ টাকার হিসাবও পাওয়া যাচ্ছে না। তবে এই টাকা কোথায় গেল? নির্বাচন নিরপেক্ষ হবে কিভাবে? আদৌ নির্বাচন হবে কি না, তা কেউ বলতে পারছেন না।

একটি মহল মুন্সীগঞ্জের সংসদ সদস্যদের কাছ থেকে ফায়দা লোটার লক্ষ্যে তাদের জন্য সংবর্ধনার আয়োজন করে। কিন্তু তারা সমিতির অবৈধ নেতাদের সংবর্ধনায় যোগ দেননি। নেতারা অবৈধ কার্যক্রমকে বৈধ করার অপতৎপরতায় লিপ্ত। মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সমিতিতে অচলাবস্খা বিরাজ করায় তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে ভবনের ছাত্র ও সমিতির লাইফ মেম্বারদের মধ্যে। অভিভাবকহীন হয়ে পড়েছে সমিতিটি। নির্বাচন নিরপেক্ষ করার স্বার্থে মেয়াদবিহীন কমিটিকে পদত্যাগ করতে হবে। এডহক কমিটি গঠন করে নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হবে। এমন দাবিই করছেন সমিতির লাইফ মেম্বাররা। মুন্সীগঞ্জের সংসদ সদস্যদের কাছে আকুল আবেদন, ঐতিহ্যবাহী মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সমিতি রক্ষা এবং এডহক কমিটি গঠন করুন।
জাহাঙ্গীর হোসেন
আজীবন সদস্য, মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সমিতি, টঙ্গীবাড়ী, মুন্সীগঞ্জ

[ad#co-1]

Leave a Reply