পিলখানায় নিহতদের স্মরণে জাপানে শোকসভা

রাহমান মনি
২৫ ফেব্রুয়ারি পিলখানার ঘটনা শুধু বাংলাদেশেই নয়, বিশ্বে এ পর্যন্ত ঘটে যাওয়া যে কোনো বর্বরতা, নারকীয়তা, নৃশংসতা ও কলঙ্কের ইতিহাসকেও হার মানিয়েছে। এ পর্যন্ত ঘটে যাওয়া কোনো যুদ্ধেও একদিনে এত বিপুল পরিমাণ অফিসার শহীদ হননি। অথচ কোনো রকম যুদ্ধ ছাড়া ও বিনা উস্কানিতে এত চৌকস অফিসার এবং সেই সঙ্গে নিরপরাধ পথচারীর প্রাণ ঝরে গেল। এ অভাব পূরণ হওয়ার নয়। কিন্তু কেন? ধিক্কার জানানোর ভাষাও আমরা হারিয়ে ফেলেছি। ষড়যন্ত্রকারী, হুকুমদাতা, উস্কানিদাতা, সহায়তাকারী এবং হত্যাকারীদের আমরা নিন্দা জানাই। ঘৃণা জানাই নরপিশাচদের। সেই সঙ্গে শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা এবং তাদের শোকসন্তপ্ত পরিবারের সকল সদস্য/সদস্যার প্রতি আমাদের গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। এই ছিল জাপান প্রবাসী বাংলাদেশিদের ক্ষোভের প্রাথমিক বহিঃপ্রকাশ। তারা আরও বলেন, আমরা হয়ত একত্রিত হয়ে নিন্দা জানাতে পারব, জানাতে পারব সমবেদনা। শোকসভা করে ধিক্কার জানাতে পারব। কিন্তু যে পিতামাতা তার সন্তান হারিয়েছে। সদ্য বিবাহিত যে বোন তার স্বামী হারিয়েছে, যে ভাইবোন তার ভাইকে হারিয়েছে তাদের সেই দুঃসহ বেদনা কি শুধুই ধিক্কার কিংবা নিন্দা জানিয়ে শেষ করা যাবে? আমরা কি পারব অবুঝ শিশুটির স্নেহময় পিতাকে ফিরিয়ে দিতে? না, কখনোই না। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে যত নৃশংস হত্যাকা- সংঘটিত হয়েছে তার কোনোটিরই সুরাহা হয়নি বলে বারবার পুনরাবৃত্তি ঘটছে। এর চির অবসান চাই আমরা। আমাদের যেন ফের এ রকম পরিস্থিতির শিকার হয়ে কোনো শোকসভা না করতে হয়। অন্তত এই একটি ব্যাপারে সকলের একযোগে কাজ করা উচিত।

৮ মার্চ রোববার টোকিওর আকাবানে বুনকা সেন্টারে সাপ্তাহিক পাঠক ফোরাম জাপান ‘বিডিআর সদর দপ্তরে নারকীয় হত্যাযজ্ঞের প্রতিবাদে জাপান প্রবাসীদের উন্মুক্ত আলোচনা ও নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনা’ শীর্ষক একটি শোকসভার আয়োজন করে। সহযোগিতায় ছিল জাপান থেকে প্রকাশিত বাংলা কাগজ ‘পরবাস’। কনকনে শীত এবং বৈরী আবহাওয়া সত্ত্বেও দূর-দূরান্ত থেকে প্রবাসীরা সমবেত হন দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ও অন্তর নিংড়ানো ভালোবাসা জানাতে।

সাপ্তাহিক টোকিও প্রতিনিধি এবং পরবাস নির্বাহী সম্পাদক রাহমান মনি সাপ্তাহিক আয়োজিত অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার জন্য সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা এবং ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আজ আমরা যে কারণে একত্রিত হয়েছি তা আপনারা সকলেই অবগত। এ রকম পরিস্থিতির শিকার হতে চাই না। আমাদের সকলের হৃদয়ে আজ ক্ষরণ হচ্ছে, যা কারোরই কাম্য নয়। সকলেই গভীরভাবে শোকাহত। জাতির এই অপূরণীয় ক্ষতিতে আমরা মহান সৃষ্টিকর্তার সহায়তা কামনা করি। তিনি যেন এই ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার শক্তি দেন। তিনি প্রবাসীদের অনুরোধ জানিয়ে বলেন, আমরা মত প্রকাশ করব। নিজে বলব, অন্যের কথা শুনব। অন্যের বিশ্বাসে আঘাত হানে এমন কোনো মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকব। যেহেতু ঘটনাটি তদন্তাধীন। প্রকৃত সত্য এখনো বের হয়ে আসেনি, তাই কাউকে সরাসরি আক্রমণ করে বা অঙ্গুলি নির্দেশ করে কোনো ধরনের বিরূপ মন্তব্য থেকে বিরত থাকব। সভা পরিচালনা সাপ্তাহিক জাপান প্রতিনিধি এবং পরবাস সম্পাদক কাজী ইনসান।

কাজী ইনসান : প্রথমেই কৃতজ্ঞতা জানাই সবার প্রতি। এ রকম আয়োজন আমাদের কাম্য নয়। তারপরও করতে হচ্ছে। সাপ্তাহিক-এর প্রাণশক্তি পাঠক, আর পাঠকদের একটি বড় অংশ প্রবাসে। বাংলাদেশের ক্লান্তিকালে প্রবাসীরা চুপ করে হাত গুটিয়ে বসে থাকলে চলে না। তাই আমরা আপনাদের একত্রিত করার আয়োজন করেছি। আপনারা জানেন বিডিআরের কিছুসংখ্যক জওয়ান ইতিহাসের এই কলঙ্কজনক অধ্যায়ের জন্ম দিয়েছে। সাপ্তাহিক এবং পরবাস মনে করে এবং বিশ্বাস করে স্বল্পসংখ্যক বিপথগামী উচ্চাভিলাষী সৈনিক কুচক্রীদের ইশারায় এই জঘন্যতম কাজটি করেছে। বৃহত্তর গোষ্ঠী এর বাইরে ছিল। আমরা আমাদের অত্যন্ত সৎ ও মেধাবী ভাইদের হারিয়েছি, সেই সঙ্গে হারিয়েছি পথচারী ভাইদের এবং ছাত্র ভাইকে। আমরা তাই নিহত সকলের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর জন্য সভার শুরুতেই এক মিনিট নীরবতা পালন করব। ধন্যবাদ সবাইকে।

এরপর সকল শহীদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন বিশিষ্ট সমাজসেবক, সফল ব্যবসায়ী আলহাজ নুরে আলম (নুর আলী)। এরপর শুরু হয় মুক্ত আলোচনা। উপস্থিত অনেকেই এতে অংশ নেন। সময় বাঁধা থাকার কারণে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও সবাইকে বক্তব্য দেয়ায় সুযোগ দেয়া সম্ভব হয়নি বলে সাপ্তাহিক-এর পক্ষ থেকে ক্ষমা প্রার্থনা করা হয়। আলোচকদের আলোচনার কিছু অংশ উল্লেখ করা হলোÑ

শাহীন : আমার এক ঘনিষ্ঠজন এই জঘন্যতম ঘটনায় শহীদ হন। তার সর্বশেষ কথোপকথন থেকে জানা যায়, দরবার হলে বিডিআর ডিজি বক্তব্য দেয়া শুরুর পর পরই প্রথম মাত্র একজন সৈনিকের সঙ্গে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হওয়ার পরই শুরু হয় নারকীয় হত্যাকা-। কিন্তু আমার প্রশ্ন, ডিজির কাছে যাওয়ার সাহস পেল কোথায় তরুণ বয়সী সেই জওয়ান বিডিআর? তাদেরকেও নিয়ম-শৃঙ্খলার মধ্য দিয়ে কর্মজীবন অতিবাহিত করতে হয়। কীভাবে এমন কা- ঘটে গেল খুঁজে বের করতে হবে। শাস্তি দিতে হবে যাতে করে আর কেউ সাহস না পায়।

মনজুরুল হক : মিডিয়া প্রথমে বিডিআর জওয়ানদের দাবির বিভ্রান্তিকর সংবাদ প্রচার করে জনগণকেও বিভ্রান্ত করে। এটার দায়ভার মিডিয়াকে নিতে হবে। আসলে এটা একটা চক্রান্ত। একটি নির্বাচিত সরকারকে বিব্রত করার এক ঘৃণ্য প্রয়াস। বিশ্বের কাছে আমাদের হেয় করার এই প্রয়াসকে আমি নিন্দা জানাই। এত অফিসার, সিভিল এবং বিডিআর জওয়ান নিহত হলো যে ক্ষতি অপূরণীয়; এ ক্ষতি পূরণ হওয়ার নয়। শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানাই।

নূর-এ-আলম : টিভিতে প্রথম দেখার পর এর ভয়াবহতা বুঝতে পারিনি। কিন্তু পরে যখন সঠিক তথ্যগুলো বের হয়ে আসতে থাকল তখন স্তম্ভিত না হয়ে পারলাম না। যারাই কাজটি করেছে তারা দেশের শত্রু। শুধু বিচার করলেই হবে না। প্রয়োগও করতে হবে। পরিবারগুলোর প্রতি সহায়তার হাত বাড়াতে হবে।

মোফাজ্জল হোসেন : সাপ্তাহিক এবং পরবাসকে ধন্যবাদ। নিন্দা জানানোর ভাষা জানা নেই। এ রকম ঘটনা যেন আর না ঘটে সেদিকে দৃষ্টিপাত দিতে হবে। নির্মূল করতে হবে সকল চক্রান্ত।

মানিক মিয়া : স্বাধীনতার পর থেকে যত ঘটনা ঘটেছে এ পর্যন্ত কোনোটির সঠিক বিচার হয়নি বলেই দুষ্কৃতকারীরা বারবার সুযোগ নেয়। তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তারা চাঞ্চল্যকর তথ্য পায়। তদন্তের স্বার্থে প্রচার করে না। আসলেই কি তদন্তের স্বার্থে, নাকি রাঘববোয়ালদের বাঁচানোর জন্য? চাঞ্চল্যকর তথ্য পেলে জনসম্মুখে প্রকাশ করা উচিত।

অনজু : আমাদের দেশের সংসদ সদস্যরা নিজেদের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির ক্ষেত্রে সংসদে এক হয়ে যান। অথচ দেশে এই চরম ক্রান্তিকালে এক হতে পারলেন না। একে অপরকে দোষারোপ করেই যাচ্ছেন। এটা কাম্য নয়। এ ব্যর্থতার দায় গোয়েন্দা বিভাগকে নিতে হবে। সঠিক তদন্ত হলে শুধু রুই-কাতলাই নয়, অনেক ডলফিন, তিমি পর্যন্ত বের হয়ে আসবে। দেশের স্বার্থে সবাই এক হয়ে কাজ করুন, রুটিরুজি হালাল করুন। নইলে আজ ক্ষমা পেলেও সেদিন ক্ষমা পাবেন না।

মোল্লা আলমগীর : যে অমূল্য রতœগুলো হারিয়েছি তার ক্ষতি পুষিয়ে তোলা কষ্টকর। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে অপরাধীদের। যেন আর কেউ এ ধরনের ঘটনা ঘটাতে সাহস না পায়। শ্রমিক, হকার এবং ছাত্রের পরিবারকেও সাহায্য করতে হবে। সেদিকে সজাগ দৃষ্টি কামনা করছি।

মেনন : পক্ষ-প্রতিপক্ষ নয়, সেনাবাহিনী হচ্ছে দেশ রক্ষাকবচ। তাদের নির্বিচারে হত্যা করা চক্রান্ত ছাড়া আর কিছুই নয়। নিরপরাধ বিডিআর সদস্যদের পরিবারের প্রতি অবিচারও কাম্য নয়। সব বিডিআর সদস্যই খারাপ নয়। বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতেই হবে।

বদরুল বোরহান : সভ্যতার অসভ্যতা বলতে যা বুঝায় এটা ঠিক তাই-ই। ১৯৭১ সালে হানাদাররা মধ্যযুগকেও হার মানিয়েছিল। হিরোশিমা, নাগাসাকিতে যে বর্বরতা হয়েছিল, আমরা যেন তাকেও অতিক্রম করলাম।

তসলিম : এ ঘটনায় মাত্র কিছুসংখ্যক বিডিআর সদস্য জড়িত। সবাই নয়। দোষীদের বের করতে হবে। অপরাধী সে সব সময়ের জন্য অপরাধী। পুরো বিডিআর অন্যায় করেনি। নিরীহ যারা মারা গেছেন তাদের সবাইকে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। এমনকি বিডিআর সদস্যদেরও। মুজিব, জিয়া হত্যার বিচার হয়নি। সে বিচার না হওয়ায় একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হচ্ছে। এটা চলতে দেয়া যায় না। এটা একটা ষড়যন্ত্র। বিডিআর জওয়ানদের কাজে লাগানো হয়েছে মাত্র।

আল আমিন সরকার : এত বড় একটা হত্যাকা- ঘটে গেল অথচ গোয়েন্দা সংস্থাগুলো কিছুই জানত না। কোনো সতর্কতামূলক ব্যবস্থা ছিল না। যেটা অবিশ্বাস্য। গোয়েন্দা বিভাগের এই ব্যর্থতা ন্যক্কারজনক। তাদেরও বিচার করতে হবে। আমি সবার আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

সেলিম আহমেদ : খুনিদের বের করতেই হবে। হেরে গেলে চলবে না। একজন মেজর জেনারেল তৈরি করতে ৩০/৩৫ বছর সময় লেগে যায়। কতগুলো অফিসার মেরে ফেলল। দরিদ্র বাংলাদেশের জন্য এটা বিরাট ক্ষতি। সরকারকে আশু পদক্ষেপ নিতে হবে।

মীর রেজাউল করীম রেজা : ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে। যাতে কেউ পার না পায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

সিকদার সাগর : দেশ ও জাতির জন্য এটা একটা কলঙ্কজনক অধ্যায়। সতর্ক থাকলে এটা এড়ানো যেত। হত্যার পরিবর্তে হত্যা নয়। বিদ্রোহের কারণ নির্দেশনা করে আশু ব্যবস্থা নিতে হবে। ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা নিয়ে সরকার ভালো কাজ করেছে।

আবুল বাসার : আমরা বর্বর। আদিম যুগে এখনো বসবাস করছি। আমি মনে করি গোয়েন্দারা এর সঙ্গে জড়িত। নতুবা ব্যর্থতার দায়ভার স্বীকার করে পদত্যাগ করুক তারা। জড়িত না থাকলে এমন ঘটনা ঘটতে পারে না। তাদের বিচার হওয়া উচিত।

মোঃ জসীম উদ্দিন : বর্বরতার ঘটনা ঘটিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আপিল করার মতো নির্লজ্জতা দেখাতে পারে এমন লোকদের প্রকাশ্যে জনসম্মুখে বিচার হওয়া দরকার। আসলে আমরা এখনো মানুষ হতে পারিনি।

তুহিন : সেক্টর কমান্ডার মুজিবুল হক-এর সঙ্গে পরিচয়ের সূত্রে সেনা অফিসারদের সঙ্গে পরিচয় ছিল। তারা প্রত্যেকে খুব সৎ ও মেধাবী ছিলেন। পরিকল্পিত এ হত্যার বিচার করতেই হবে। চিরতরে বন্ধ করতে হবে ষড়যন্ত্র।

রাহমান : আর্মি অফিসারদের পাশাপাশি অন্যদেরও ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। একই সঙ্গে মদদদাতাদেরও বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে হবে। জানান দিতে হবে আর কোনো কুচক্রী মহলের বাংলার মাটিতে স্থান নেই। প্রবাসেও কুচক্রীদের নেটওয়ার্ক রয়েছে।

রুবেল : নারকীয় হত্যার নিন্দা জানাই। বিচার চাই। তবে বিচারের নামে যেন কোনো প্রহসন না করা হয় সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। কোনো চক্রান্তকারী যেন ছাড় না পায়।

মোঃ আব্বাস : আমি শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি। দেশের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল। কোনো অঘটনেরই সুরাহা হয়নি বলে বারবার এমনটি হয়। চিরতরে বন্ধ করতে হবে।

আব্দুল ওয়াদুদ : এ ঘটনা একদিনে ঘটেনি। এর পেছনে চক্রান্ত আছে। ’৭৫-এ শেখ মুজিবের হত্যার পেছনে যে চক্রান্ত কাজ করেছে এখানেও তারই নমুনা দেখা যায়। ঐ সময়ও সেনা অফিসারদের নির্বিচারে হত্যা করা হয়েছিল। বারবার আমাদের উন্নতির পথে বিভিন্ন বাধা কাজ করছে।

বেলাল : জাতি ২০ বছর পিছিয়ে গেল। নিন্দা জানানোর ভাষা জানা নেই। তদন্ত কমিটি যে রিপোর্ট দিবে তা জনসম্মুখে প্রকাশ চাই। সকল শহীদের আত্মা শান্তি পাবে যদি সত্যিকার অর্থে বিচার হয়। শাস্তি নিশ্চিত করা হয়। আর যেন এমনটি না হয়।

সফিউদ্দিন : বিডিআরের একার পক্ষে এটি সম্ভব হয়নি। বিডিআর দেশের সম্পদ। সেনাবাহিনী এবং বিডিআর দুটিই সুশৃঙ্খল দল। বিভেদ তৈরির জন্য চক্রান্ত কাজ করেছে। তাদের বের করতে হবে।

আবু হোসেন রনি : পিলখানার ঘটনার নিন্দা জানানোর ভাষা নেই। ব্যাপারটাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। জাতিকে বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে মূল ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার অপচেষ্টা চলছে। তাকে প্রতিহত করতে হবে। প্রবাসেও তাদের প্রেতাত্মা কাজ করছে। জাপান প্রবাসীরা যখন সাপ্তাহিক-এর ডাকে সবাই জড়ো হয়েছে তখন একই দিনে, একই সময়ে একজন চিহ্নিত ঘৃণিত ব্যক্তি তার ঘরানার স্বল্পসংখ্যক ব্যক্তিকে নিয়ে তামাশা করছে। তাকেও ধিক্কার জানাতে হবে।

মোতাহার হোসেন : জাতির বেইমানরা সব সময় সক্রিয় থাকে। তাদের রুখতে হবে। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই।

এসকে রকি : নিহত সকলের প্রতি আমার সর্বোচ্চ শ্রদ্ধা এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সকলকে সমবেদনা জানাই। ৩৭ বছরের ইতিহাসে এমন ঘটনা নতুন নয়। কখনো প্রকাশিত, কখনোবা অপ্রকাশিত। আমাদের শ্রেণীভেদ এজন্য দায়ী। তবে ঘটনার পরবর্তী পদক্ষেপের কারণে অনেক প্রাণ রক্ষা পেয়েছে। সেজন্য সরকার ধন্যবাদ প্রাপ্য। সর্বদলীয় তদন্ত কমিটি করলে আরও ভালো হয়।

রফিক উদ্দিন ফরাজী : এমন স্পর্শকাতর ঘটনাকে কেন্দ্র করে সরকার এবং বিরোধী দলের কাদা ছোড়াছুড়ি কোনোমতেই কাম্য নয়। এভাবে জাতিকে পিছিয়ে নেয়া হচ্ছে। আমি চাই দলমত নির্বিশেষে দেশের স্বার্থে এক হয়ে কাজ করবে সবাই। দেশের উন্নয়নের জন্য কাজ করতে হবে। পেছানোর জন্য নয়।

নাজীম উদ্দীন : আমাদের স্বাধীনতা আজ হুমকির সম্মুখীন। শকুনের চোখ পড়েছে। একের পর এক কুচক্রীরা অঘটন ঘটিয়েই যাচ্ছে। সরকারকে অবিলম্বে সব বের করে বিচার করতে হবে। কালক্ষেপণ চলবে না।

এম ইসলাম : আমি মনে করি সরকার সঠিক সময়ে সঠিক পদক্ষেপ নেয়াতে পরবর্তী রক্তপাত এড়ানো গেছে। এখন প্রয়োজন দোষীদের বের করে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো। সরকারকেই এ কাজটি করতে হবে।

নাহিদ : আমি ’৭১-এর শহীদ পরিবারের সদস্য। আমি জানি স্বজন হারানোর বেদনা। সরকারের পাঁচটি গোয়েন্দা সংস্থা। আছে বিডিআরের গোয়েন্দা সংস্থা। সবগুলোকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা উচিত। ব্যর্থতার দায়ভার তাদের অবশ্যই নিতে হবে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা না গেলে দেশে এমন ঘটনা ঘটতেই থাকবে।

নুরী : দেশে একটার পর একটা অঘটন ঘটেই যাচ্ছে। কোনো অঘটনেরই সুষ্ঠু বিচার হয় না বলে দুষ্কৃতকারীরা সুযোগ নিচ্ছে। তার খেসারত দিতে হচ্ছে পুরো জাতিকে।

আমজাদ হোসেন : এত অফিসার এবং সেই সঙ্গে নিরীহ বেসামরিক লোক মারা গেল। এর বিচার করতে না পারলে জাতি আমাদের ক্ষমা করবে না। আমি শোকসন্তপ্ত পরিবারের সকলের প্রতি সমবেদনা জানাই। সেই সঙ্গে পিলখানার বাইরে যে লোকগুলো মারা গেল তাদের পরিবারের প্রতি খেয়াল রাখার জন্য আহ্বান জানাই।

ফয়সাল সালাউদ্দিন : বিডিআরের উজ্জ্বল ভাবমূর্তিকে কাদের চক্রান্তে ধূলিসাৎ করা হলো। ভেবে দেখতে হবে এতে কারা বেশি লাভবান হলো? তাদেরও বিচার হওয়া প্রয়োজন। যদি তাদের বিচার না করতে পারি তবে ইতিহাস আমাদের ক্ষমা করবে না। তদন্ত কমিটির রিপোর্ট জনসম্মুখে প্রকাশ করতে হবে। যেটা কখনোই করা হয় না।

দুলাল খান : সাপ্তাহিককে ধন্যবাদ এমন একটি আয়োজন করার জন্য। আমি চাই সুষ্ঠু বিচার হোক। অপরাধীরা সাজা পাক। ভবিষ্যতে যেন কেউ আর এ রকম ঘটনার জন্ম দিতে না পারে। এক দল আরেক দলকে দোষারোপ করার সময় এখন নয়। প্রয়োজনে সর্বদলীয় কমিটি গঠন করা যেতে পারে। তবে বিচারের নামে যেন নিরীহ লোকদের নিয়ে প্রহসন না করা হয়। কোনো নিরপরাধ লোক যেন সাজা না পায়। যে তিনজন বাইরের লোক মারা গেছে তাদের পরিবারকেও সহায়তা করা উচিত। অপরাধীদের সাজা পেতেই হবে। তবেই শহীদদের আত্মা শান্তি পাবে এবং আমরাও কলঙ্কমুক্ত হতে পারব।

খন্দকার আসলাম হীরা : আমি তীব্র নিন্দা জানাই। শহীদদের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করি। প্রকৃত অপরাধী যেন আইনের ফাঁকফোকর গলিয়ে বেরিয়ে আসতে না পারে সেই সঙ্গে নিরপরাধী যেন সাজা না পায়।

মীর রেজাউল করীম রেজা : এটা একদিনে ঘটে যাওয়া কোনো বিদ্রোহ নয়। দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার ফসল। সব চৌকস অফিসারকে একসঙ্গে করা হয়েছিল। যেটা ছিল পরিকল্পিত। সরকার রাজনৈতিক সমাধানের নামে কালক্ষেপণ করেছে। এতে করে তালিকাভুক্ত অফিসারদের মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর নাটক শেষ করেছে। পিলখানার ৫ নম্বর গেট খোলা রাখা হলো কার নির্দেশে? এবং কাদের স্বার্থে। এমন একটি ন্যক্কারজনক ঘটনা সরকার প্রথমে বেশ হালকাভাবে নিয়েছিল। নানক, আজম গং যাওয়ার পর পিলখানার বিদ্যুৎ চলে গেল কেন? হাজার হাজার জওয়ান কীভাবে পালাল? প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যে চৌদ্দজন দেখা করতে গেল তারা কারা? কে তাদের নির্বাচন করল? প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করল অথচ তাদের কোনো নাম-ঠিকানা রাখা হলো না, এমন কি ছবিও না। এটা কি অবাক হওয়ার মতো না? যারা বিদ্রোহ করে অফিসারদের মেরে ফেলতে পারে কাজের লোকসহ অথচ তারাই কিনা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, নানক, আজম গংকে হাতের মুঠোয় পেয়ে জিম্মি করল না। আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই। মরহুমদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা এবং তাদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করি।

জাকির হোসেন : এক একটি অফিসার বানাতে সরকারের অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়। এত অফিসার! এই অভাব পূরণ করতে ২০/২৫ বছর সময় লেগে যাবে। রাজনীতিবিদ এবং গোয়েন্দাদের ব্যর্থতা নতুবা যোগসাজশে ও পরিকল্পিতভাবে এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে। দেশকে ধ্বংস করার পাঁয়তারা। কঠিনভাবে মোকাবেলা করা উচিত।

নাসিমুস সালেহীন (নাসিম) : প্রবাসীদের এক হয়ে কাজ করতে হবে। ভবিষ্যতে যেন এমন ঘটনা আর না ঘটে সেই ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রকৃত বিচার করে শাস্তির বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। যারা শহীদ হয়েছেন এবং যারা খুনি সবাই বাংলাদেশেরই সন্তান। ভাই হয়ে ভাইয়ের বুকে গুলি চালায় এমনটি কাম্য নয়।

বিএম শাহজাহান : দেশের এই চরম মুহূর্তে সকলের সম্মিলিতভাবে কাজ করা উচিত। এখন বিভেদ সৃষ্টির সময় নয়। যারা কাজটি করেছে তাদেরকে চিহ্নিত করে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে হবে।

ইকবাল হোসেন : আমি তো মনে করি কিছু কিছু আর্মি অফিসারও জড়িত। যারা জীবিতাবস্থায় ফিরে এসেছেন তাদের কথার অসংলগ্নতার প্রমাণ পাওয়া যায়। বিশেষ করে লে. কর্নেল কামরুজ্জামানের বর্ণনা সিনেমাকেও হার মানায়। মৃতের সংখ্যা এবং পরবর্তী সংখ্যা নিয়ে দ্বিমত থাকতে পারে কিন্তু মূল ঘটনা ভিন্ন ভিন্ন বর্ণনা হবে কেন? তাদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা উচিত।

ওহেদুল ইসলাম মোন্না : পরবাস এবং সাপ্তাহিককে ধন্যবাদ। আমরা প্রবাসে শোকের অনুষ্ঠান করতে চাই না। এ ধরনের ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না হয়। চিরতরে নির্মূল করতে হবে।

মোঃ ফেরদৌস মেহবুব (ইতু) : স্বাধীনতার প্রায় ৩৮ বছর হতে চলল কিন্তু দেশ দাঁড়িয়ে আছে সেই একই জায়গায়। সত্যিকার দেশপ্রেমিক রাজনীতিবিদ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। সবাই আছে যার যার ধান্দায়। ক্ষমতার পালাবদল হয় কিন্তু দেশ আর মানুষের ভাগ্যের কোনো পরিবর্তন হয় না। ২৫ ফেব্রুয়ারি যে হৃদয়বিদারক ঘটনা ঘটে গেল তার কি কোনোই বিচার হবে না? আমরা কি অন্তত এই একটিবারের জন্য এক হতে পারি না? দেশের বীর সন্তানেরা অকালে চলে গেল। অন্তত তাদের কথা ভেবে বিভেদ ভুলে নিজেদের মধ্যে কাদা ছোড়াছুড়ি বন্ধ করি। এখনই আমাদের ঘুরে দাঁড়ানোর সময়। এ দেশটাকে আমরা যদি সত্যিকারের ভালোবেসে থাকি তাহলে আসুন আর কোনো বিভেদ নয়, নয় কোনো দলাদলি। আজ আমাদের একটি মাত্র স্লোগানÑ আমরা এর কঠিন শাস্তি চাই। জাতির পতাকা আজ খামছে ধরেছে সেই পুরনো শকুন। শকুনদের খুঁজে বের করে মাটিতে পুঁতে ফেলতে হবে। আর যেন কেউ বাংলার মাটিতে এমন কাজ করার চিন্তাও না করে। ব্যাপারটি কি কঠিন? একেবারেই না। ’৭১-এ যেমন সবাই এক হয়ে পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছিলাম। মাত্র নয় মাসে বিজয় ছিনিয়ে এনেছিলাম। ১৯৫২ সালে যেমন মায়ের ভাষায় কথা বলার অধিকার আদায় করেছিলাম সবাই একাত্ম হয়ে। আসুন আবার আমরা সবাই এক হয়ে খুনি, ষড়যন্ত্রকারী, মদদদাতা, খলনায়কসহ সকলকে চিহ্নিত করে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাই। আমাদের পিছপা হলে চলবে না। জয়ী আমাদেরকে হতেই হবে।

আব্দুর রাজ্জাক : আমরা অল্প শোকে কাতর, অধিক শোকে পাথর। শোককে শক্তিতে পরিণত করে এক হয়ে কাজ করতে হবে। কঠিন শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। বাংলার মাটিতে ষড়যন্ত্রকারীদের ঠাঁই নেই।

বাছিদ : ঘটনার পরপরই বিরোধী দলের সহযোগিতার আশ্বাস অভিনন্দনযোগ্য। কিন্তু পরবর্তীতে তার ধারাবাহিকতা আর চোখে পড়েনি।

জামালউদ্দিন : আয়োজনের জন্য ধন্যবাদ। আমরা মর্মাহত। স্তম্ভিত। নিন্দা জানানোর ভাষাও হারিয়ে ফেলেছি। যেহেতু সরকার ক্ষমতায় থাকে তাই বিচারের আয়োজন করতে হবে। অন্যের ওপর দোষ চাপিয়ে এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ নেই।

রতন : আমরা আসলে যে তিমিরে ছিলাম সেই তিমিরেই রয়ে গেছি। যতই দিন বদলের ডাক দেয়া হোক না কেন মনমানসিকতার বদল না হলে কোনো লাভ হবে না। তবে শক্ত বিচার হওয়া দরকার।

প্রবীর বিকাশ সরকার : অরক্ষিত বাংলাদেশ। জামায়াতিদের বিচার শুরুর পর্যায়ে এটাকে মোড় ফেরানোর জন্য এ ধরনের চক্রান্ত। পুলিশ বাহিনীর দাবির দিকেও দৃষ্টি দেয়া উচিত। তারাও ভিকটিম। ২৫ ফেব্রুয়ারির ঘটনা আমাদের মনে করিয়ে দেয় ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্ট, ৩-৭ নবেম্বর, ১৯৭৭ সালের বিমানবাহিনীর অফিসার নিধন, ১৯৮১-এর ৩০ মে, ১৯৯৬ সালে জেনারেল নাসিম এবং সর্বশেষ ২০০৭ সালে অপ্রকাশিত সেনাবাহিনীর নেতৃত্ব নিয়ে ঘটনাবলী। তদন্ত কমিটি গঠন করা হচ্ছে ছোট-বড় প্রতিটি ঘটনায়। কমিটি তাদের রিপোর্ট পেশ করছে। কিন্তু অদৃশ্য ইশারায় সে রিপোর্ট আলোর মুখ দেখছে না। জনসম্মুখে প্রকাশ পাচ্ছে না। বাংলাদেশ যখনই মাথা উঁচু করে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে তখনই কিছুসংখ্যক কুচক্রী বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। অথচ তাদের বিরুদ্ধে বলিষ্ঠ পদক্ষেপ কিংবা দৃষ্টান্তমূলক কোনো ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না। কোনো তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়নি এজন্য। ফলে গত চার দশক ধরে ঘটে যাওয়া দুঃখ-কষ্টের ঘটনাগুলো বাঙালির হৃদয় থেকে মুছে যায়নি।

সরকার ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ব্যস্ত কাঁদা ছোড়াছুড়িতে। তদন্ত রিপোর্ট প্রকাশ করার আগেই সমন্বয়কারীর মত প্রকাশ করে ফেলছেন। বিরোধী দলও বিরোধিতা করার জন্য বিরোধিতা করে যাচ্ছে। এতে করে প্রকৃত দোষীদের আড়াল করা হচ্ছে এবং তারা পার পেয়ে যাচ্ছেও। আমাদের দেশের সরকার ও বিরোধী দল এক হয় কেবলই নিজেদের স্বার্থে। দেশের স্বার্থে নয়। সুযোগ-সুবিধার ভাগবাটোরায় সংসদে উপস্থিতি যেমন বেশি হয় তেমনই সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশও লক্ষ্য করা যায়। তা ছাড়া একে অপরের মুখটি দেখাও যেন পাপের।

সাধারণ মানুষ এবং প্রবাসীরা তা চায় না। প্রবাসীরা প্রবাসে মাথা উঁচু করে থাকতে চায়। আমরা চাই ২৫ ফেব্রুয়ারি বিডিআর সদর দপ্তরে সংঘটিত হত্যাকা-ের সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য তদন্ত, বিচার এবং তা প্রয়োগ। তা না হলে আবারও এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতে পারে। এ কাজটি সরকারকেই করতে হবে এবং দ্রুত। তাহলে প্রবাসীরা অন্তত বলতে পারবে যে আমাদের দেশে যেমন অঘটন ঘটেছে তার সঠিক বিচারও হয়েছে। অপরাধ করে কেউ পার পাচ্ছে না। সবশেষে বলতে চাই, তদন্তের রিপোর্ট অবশ্য অবশ্যই দেশবাসীর সামনে হাজির করতে হবে।

rahmanmoni@gmail.com

Leave a Reply