ভয়ঙ্কর বিজয়, ভয়ঙ্কর সব কা-

শহীদ সেনা কর্মকর্তার স্ত্রী-পুত্র-কন্যাদের জন্য খালেদা জিয়ার জন্য বরাদ্দকৃত বাড়িটি সরকার তাদের অনুকূলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ভয়ঙ্কর বিতর্কে পড়েছে। শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের স্ত্রী হিসেবে দীর্ঘদিন ভোগদখলের পর তাকে উচ্ছেদ করে অন্য সেনা শহীদদের স্ত্রী-পুত্র-কন্যাদের এ বিতর্কে ফেলা জাতি কি খুব ভালোভাবে নেবে? এ ভয়ঙ্কর রাজনৈতিক খেলা উল্টো ফল বয়ে আনবে বলে বিশ্বাস। গোলাম কাদের

সাম্প্রতিক সময়ে ভয়ঙ্কর সব ঘটনা ঘটে যাচ্ছে। নির্বাচনের পর মানুষ কিছুটা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছিল বটে। ভয়ঙ্কর সব ঘটনা ঘটবেই না কেন আওয়ামী লীগের বিজয়ে খোদ নির্বাচন কমিশনার যদি বলতে পারেনÑ ‘ভয়ঙ্কর বিজয়’। ’৭০-এর নির্বাচন হবে বলে বকা খাওয়ার পর তিনি ’৭০-এর বিজয় বলতে আর সাহস পাননি। বলেছেন ‘ভয়ঙ্কর বিজয়’। মহাজোটের নিরঙ্কুশ বিজয়ে নেতানেত্রীদের অহমিকার ভেতর ঠেলে দিয়েছে। যদিও প্রধানমন্ত্রী বিজ্ঞতার পরিচয় দিয়ে মিছিল, উৎসব, বিজয় উৎসব পালন করতে নিষেধ করেছিলেন। তারপরও উল্লাস অবদমিত রয়ে যায়নি। নানাভাবে সমাজে তা ফেটে পড়ছে, যা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে জামিনে চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার সময় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সব কর্মের বৈধতা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু মন্ত্রিসভা গঠন করে প্রধানমন্ত্রী এক ভয়ঙ্কর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এবং নজিরবিহীন এক গোপনীয়তার ভেতর মন্ত্রিসভার লিস্ট নিমজ্জিত ছিল। মিডিয়ার বাঘাবাঘা নেতারাও তা জানতে পারেননি। মন্ত্রিসভা গঠনের পর সবাই বাহবা দিলেন, চমৎকৃত হলেন। কিন্তু সৃষ্টি হলো একটি প্রাচীন রাজনৈতিক ঘরানায় ভাইয়ের শত্রু বিভীষণ। যার ইতিহাসে ৫২/৫৩ বার ভাঙার ঘটনা বিদ্যমান। কিন্তু তারপরও একটি বৃহৎ দল এবং এখানে সমমনা লোকের জমায়েত বেশি। বিএনপিতে বার পদের লোকসংখ্যা বেশি কারণ, দলটির গঠন প্রক্রিয়ায় বিভিন্ন দলের লোকসমাগম বেশি ছিল।
যাক, মন্ত্রিসভা গঠন করে দলের ঝানু সদস্যরা ঝাঁকুনিতে পড়লেন। তারা চুপ করে থাকলেন বটে তাদের অনুসারীদের মধ্যে বইতে শুরু করলো সুনামির ঝড়, এ ঝড় বিএনপির পরাজয়ের চেয়েও ভয়ঙ্কর। এ রকমটা কার ইচ্ছায় হলো, কাদের জন্য হলো। ২৭ মাসের সব কর্মের বৈধতার জন্য কি অলিখিত চুক্তি ছিল?
নির্বাচনের বেশ আগে সেনাপ্রধান ভারত সফরে গিয়ে পেলেন বিশাল আকৃতির ঘোড়া উপহার। আমরা জানি ঘোড়া যুদ্ধের প্রতীক। নির্বাচনের পর এলেন ভারতের ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী প্রণব মুখার্জি। খুব অল্প সময়ে, খুব অল্প মুহূর্তের এ সফর খুব তাৎপর্যপূর্ণ।
পার্লামেন্টে বসলেন অনেক নবীন সংসদ সদস্য, আলোচনার ঝড় উঠলো। যদিও আসন বণ্টন নিয়ে কিছু টানাহেচড়া ভাব সৃষ্টি হয়েছিল কিন্তু আসলে গরম হয়ে ওঠে ২৭ মাসের সরকারের কর্মকা- নিয়ে। সরকারি দল এবং বিরোধী দল আলোচনায় তুলাধোনা করতে থাকেন সেনা কর্মকর্তা ও ২৭ মাসের উপদেষ্টাদের অপকর্মও কাকে কী হারে নির্যাতন করেছে তার ফিরিস্তি উল্লেখ হতে থাকে সংসদ ভবনে। রাজনৈতিক ও ব্যবসায়িক ব্যক্তিত্বদের কীভাবে দিনের পর দিন নির্যাতন করা হয়েছে, কীভাবে হাতিয়ে নেয়া হয়েছে সম্পদ। মানুষ আগ্রহভরে শুনছিল অজানা কাহিনী। বিভীষিকাময় নির্যাতনের কাহিনী, ক্ষমতা দখলের এবং অপব্যবহারের কাহিনী। জাতি তখন স্তম্ভিত। এরই মাঝে ঘটে গেল এক ভয়ঙ্কর ঘটনা পিলখানা ট্র্যাজেডি। নির্মম হত্যাযজ্ঞ। প্রধানমন্ত্রী এখানেও তার স্বভাবজাত রাজনৈতিক দক্ষতা দিয়ে কথিত গৃহযুদ্ধের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করলেন। বিশ্বজোড়া সুনামের অধিকারী আমাদের সেনাবাহিনী তার ভাইদের শেষ রক্ষা করতে পারলো না। আমরা প্রত্যক্ষ করলাম এক অঘোষিত যুদ্ধের ময়দান। জনগণ বারবার নিজেদের অসহায়ত্বের চিত্র সামনে দেখে শঙ্কিত হয়ে উঠলো। অশ্রুসিক্ত নয়নে শহীদ সেনাদের রাষ্ট্রমর্যাদায় দাফন শেষ না হতেই পার্লামেন্টে শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনার সময় আরেকটি ভয়ঙ্কর অবস্থার অবতারণা ঘটে। যেখানে শোক প্রস্তাবের আলোচনা প্রধানমন্ত্রী জিহ্বাকে সংযত না রেখে স্বভাবসুলভভাবে বিরোধী দলের নেত্রীকে যেভাবে তুলাধোনা করেছেন তা ইতিহাসে বিরল ঘটনা হয়ে থাকবে। শোক প্রস্তাবে আলোচনার আবহাওয়া তিনি একটি জটিল পর্যায়ে নিয়ে ফেলেন। সংসদের বাইরে ওই ধোলাইয়ের জবাবে খালেদা জিয়া শুধু অল্প কথায় মোক্ষম উত্তর দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ওই ভাষণের উত্তর দিতে যে কারো রুচিতে বাধবে। আমার কাছে একজন প্রধানমন্ত্রীর জন্য এটিও একটি ভয়ঙ্কর উত্তর বলে মনে হয়েছে। উত্তরেরও উত্তর আছে। প্রধানমন্ত্রী সংসদেই খালেদা জিয়ার বাড়ি নিয়ে টান দেন। খালেদা জিয়াকে ঘরছাড়া করার আয়োজন তিনি আগে কয়েকবার করেছেন, এবার তো তার হাতে ভয়ঙ্কর বিজয়ের হাতিয়ার আছেই। তারপর তিনি পথ ধরেছেন কাঁটা দিয়ে কাঁটা তোলার মন্ত্র। পিলখানার ঘটনায় শহীদ সেনা কর্মকর্তার স্ত্রী-পুত্র-কন্যাদের জন্য খালেদা জিয়ার বরাদ্দকৃত বাড়িটি সরকার তাদের অনুকূলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ভয়ঙ্কর বিতর্কে পড়েছে। শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের স্ত্রী হিসেবে দীর্ঘদিন ভোগদখলের পর তাকে উচ্ছেদ করে অন্য সেনা শহীদদের স্ত্রী-পুত্র-কন্যাদের এ বিতর্কে ফেলা জাতি কি খুব ভালোভাবে নেবে? এ ভয়ঙ্কর রাজনৈতিক খেলা উল্টো ফল বয়ে আনবে বলে বিশ্বাস।
এখন বিএনপি ঘুমিয়ে আছে, ভাইয়ের শত্রু বিভীষণদের হাত থেকে সরকার রক্ষা পাওয়ার জন্য বিএনপিকে কাতুকুতু দিয়ে আন্দোলনে নামালে সরকার বেসামাল হয়ে পড়বে কারণ সাময়িক নিজের ঘরের আগুন থেকে দৃষ্টি অন্যদিকে সরানো হয়তো যাবে কিন্তু তখন ঘরে-বাইরের আন্দোলন সামাল দেয়া যাবে না। বিএনপি সম্ভবত ধৈর্যের সঙ্গে ঘর গোছানোর চেষ্টা করছে। এখন শৃঙ্খলার ভেতর নেতা-কর্মীদের চেইন অফ কমান্ডের ভেতর আছে। আওয়ামী লীগের চেইন অফ কমান্ড এখন বিস্ফোরণোন্মুখ। বিস্ফোরণোন্মুখ অভিক্ত, প্রাজ্ঞ নেতা-কর্মী-এমপিদের বাদ দিয়ে চমৎকৃত মন্ত্রিসভা তখন তেমন কাজে নাও লাগতে পারে।
সংসদ অধিবেশন ৩৯ কার্য দিনে শেষ করলো সফলভাবে কিন্তু এ সময় যে বিষবৃক্ষ উপ্ত হলো তা হয়তো অচিরেই দেখা যাবে মহীরুহু হয়ে ব্যাপক তা-বে ভয়ঙ্কর সব ঘটনা ঘটাচ্ছে।
রাজনীতিতে একবার ভুল করলে বারবার তার মাসুল গুনতে হয়।
বিগত ২৭ মাসের শাসনের বৈধতা দিতে গিয়ে নানাভাবে জাতিকে যে ক্ষতির সম্মুখীন হতে হলো তার ভয়ঙ্কর, ভয়ঙ্কর খেসারত দিতে জাতিকে তৈরি থাকতে হবে।
এরই মাঝে সরকারি দলের অঙ্গ সংগঠনের তালা মারা, দখল, টেন্ডার বাণিজ্য, হল দখল, স্কুল-কলেজে ভর্তি লিস্টের দৌরাত্ম্য শুরু হয়ে গেছে। এমনকি মেধাবী ছাত্র হত্যার মতো ভয়ঙ্কর সব ঘটনা ঘটছে। দেশের নানা জটিল সমস্যার সমাধান রেখে খালেদা জিয়ার বাড়ি নিয়ে টান দেয়া এ মুহূর্তে সরকারের সঠিক সিদ্ধান্ত হয়েছে কি? বিরোধী দলকে অসময়ে কাতুকুতু দিয়ে আন্দোলনে নামালে আরো ভয়ঙ্কর সব ঘটনা ঘটতে থাকবে। অতএব সাধু সাবধান! দেশের স্বার্থে জিহ্বা ও কর্মকে আমরা কেন নিয়ন্ত্রণে রাখি।

গোলাম কাদের: সাহিত্যিক, সাংবাদিক, কলাম লেখক ও শিশু সংগঠক।

Leave a Reply