ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের নেতা সত্যেন সেন

satyen-senরাজীব পাল রনী
ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে মুখ্য ভূমিকা পালনকারী অন্যতম ব্যক্তিত্ব সত্যেন সেন। প্রাচীন বাংলার ঐতিহ্যবাহী জনপদ বিক্রমপুরের বর্তমান মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ী থানার সোনারং গ্রামের বিখ্যাত সেন পরিবারে ১৯০৭ সালের ২৮ মার্চ তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তার ডাক নাম লস্কর। বাবা ধরনীমোহন সেন, মা মৃণালীনি সেন। ধরনীমোহন সেনের চার সন্তানের মধ্যে তিনি ছিলেন সর্বকনিষ্ঠ। এ মহান পুরুষটি শুধু প্রগতিশীল বিপ্লবী নেতাই ছিলেন না তিনি একাধারে ছিলেন কৃষক আন্দোলনের নেতা, বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক, সাংবাদিক, গীতিকার, সুরকার এবং দেশের প্রগতিশীল শিল্পীদের গণসংগঠন ‘উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী’র প্রতিষ্ঠাতা। সোনারং গ্রামের প্রখ্যাত সেন পরিবারে ছিল শিক্ষা ও সংস্কৃতি চর্চার অবাধ পরিবেশ। তার মধ্যে তার কাকা ক্ষিতিমোহন সেন বিশ্বভারতীয় উপাচার্য ছিলেন, আর এক কাকা মনোমোহন সেন ছিলেন শিশুসাহিত্যিক। বাল্যকালেই সত্যেন সেন নিজ হাতে লেখা পত্রিকা বের করেছিলেন। ১৯১৯ সালে সোনারং হাইস্কুলে তার শিক্ষা জীবন শুরু হয়। ১৯২১ সালে তিনি যখন সোনারং হাইস্কুলের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র তখন থেকেই তার মধ্যে রাজনৈতিক চেতনার বিকাশ লাভ করে। মাধ্যমিক পাস করে কলকাতায় কলেজে ভর্তি হন। কলেজে অধ্যয়নকালে তিনি যুক্ত হন বিপ্লবী দল যুগান্তরের সঙ্গে। ছাত্র অবস্থায় ১৯৩০ সালে তিনি এক ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে প্রথম কারাবরণ করেন। বহরমপুর বন্দি ক্যাম্পে থেকেই শুরু হয় তার জেলজীবন ও প্রথম বই লেখা। ব্রিটিশবিরোধীদের আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে তিনি ১৯৩৩ সালে দ্বিতীয় দফায় গ্রেফতার হন এবং জেল হয় ৬ বছর। বন্দি অবস্থায় থাকাকালে নিবিড় অধ্যয়নে তিনি বাংলায় এমএ পরীক্ষায় কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হন। কারাবাসে থাকাকালে মার্কসবাদী-লেনিনবাদী মতাদর্শের প্রতি আকৃষ্ট হন এবং জীবনাদর্শন হিসেবে গ্রহণ করেন। ১৯৩৮ সালে শান্তি নিকেতন থেকে তাঁকে দেয়া হয় ‘গবেষণা বৃত্তি’। সুদীর্ঘ কারাভোগ শেষে ১৯৫৩ সালে মুক্তি পেয়ে নিজ গ্রাম সোনারাংয়ে ফিরে আসেন এবং তাদের পরিবারের সবাই নিরাপত্তার কারণে কলকাতায় পাড়ি জমান। সত্যেন সেনের কারাভোগের ইতিহাস দীর্ঘ। ১৯৪৩ সালের মহাদুর্ভিক্ষ মোকাবিলায় ‘কৃষক সমিতি’র মাধ্যমে তার ভূমিকা অনস্বীকার্য। ১৯৪৭ সালে স্বাধীন ভারত ও পাকিস্তান সৃষ্টির সময় তিনি অসাম্প্রদায়িক রাজনীতির ভূমিকা রাখেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৪৮ সালে তার বিরুদ্ধে হুলিয়া জারি করা হয় এবং তিনি গ্রেফতার হন। দীর্ঘ কারাভোগ, অত্যাচার ও নির্যাতনে তার শারীরিক অসুস্থতা ও চোখের পীড়া দেখা দেয়। ১৯৭১ সালে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ সংগঠনের লক্ষ্যে ও ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে এক পর্যায়ে তার চোখের পীড়া আরো গুরুতর রূপ নেয়। তিনি প্রায় অন্ধ হতে বসেন। এ অবস্থায় চোখের উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে মস্কো পাঠানো হয়। মস্কো হাসপাতালে তিনি ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার সংবাদ পান। এবং সেখানকার বাঙালিদের মুক্তির উল্লাস প্রত্যক্ষ করেন। তার এই ৭৩ বছর বয়সে ২৪ বছর কাটিয়েছেন কারাগারে, আত্মগোপনে থাকতে হয়েছে ৪ বছর আর ২৩ বছরে রচনা করে গেছেন উপন্যাস, গল্প, ইতিহাস, বিজ্ঞান, মানবসভ্যতা ইত্যাদি বিচিত্র বিষয়ে তার গ্রন্থ সংখ্যা ৪০টির উপরে। উল্লেখযোগ্য উপন্যাস হচ্ছেÑ ভোরের বিহঙ্গী (১৯৫৯), রুদ্ধদ্বার মুক্ত প্রাণ (১৯৬৩), অভিশপ্ত নগরী (১৯৬৯), পাশের সন্তান (১৯৬৯), সেয়ান (১৯৬৯), পদচিহ্ন (১৯৬৯), পরুষমেধ (১৯৬৯), আলবেরুনী (১৯৭০), সাত নম্বর ওয়ার্ড (১৯৭০), বিদ্রোহী কৈর্বত (১৯৭০), কুমরজীব (১৯৭০), অপারেজয় (১৯৭০), মা (১৯৭০), উত্তরণ (১৯৭০), কুল ভাঙ্গে একুল গড়ে (১৯৭১) ইত্যাদি। ইতিহাস আশ্রিত ও অন্যান্য গ্রন্থের মধ্যে গ্রামবাংলার পথে পথে (১৯৬৬), আমাদের পৃথিবী (১৯৬৮), মসলার যুদ্ধ (১৯৬৯), এটোমের কথা (১৯৭০), অভিযাত্রী (১৯৭০)

, মানবসভ্যতার উষালগ্ন (১৯৭১), মনোরমা মাসিমা (১৯৭১), প্রতিরোধ সংগ্রামে বাংলাদেশ (১৯৭১), বিপ্লবী রহমান মাষ্টার (১৯৭৩), সীমান্ত সূর্য আবদুল গাফফার (১৯৭২), জীববিজ্ঞানের নানা কথা (১৯৭৭) ইত্যাদি। ছোটদের জন্যও গল্প লিখে গেছেন তার মধ্যেÑ পাতাবাহার (১৯৬৮) অন্যতম। তিনি ১৯৬৯ সালে আদমজী সাহিত্য পুরস্কার ও ১৯৭০ সালে বাংলা একাডেমী সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৮৬ সালে সাহিত্য মরণোত্তর একুশে পদক পান। গান দিয়ে মানুষের মন জয় করা সহজ হয় বলেই তিনি নিজের আদর্শ, রাজনৈতিক চেতনা ও আন্দোলন-সংগ্রামের উপকরণ হিসেবে গান নিয়ে কাজ করেছেন। গান রচনার মাধ্যমেই মূলত তার লেখার জগতে আশা। পাশাপাশি গানের সুর করা ও শেখানোর কাজও তিনি নিজে করেছেন। শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করার সময় তিনি শ্রমিক-কর্মীদের নিয়ে গান এবং দল রচনা করেন। শ্রমিকদের এ কবিগানের দল নিয়ে তিনি রাজনৈতিক সভা-সমাবেশ করতেন। তার লেখা ১১টি গানের মধ্যে ‘চাষি দে তোর লাল সেলাম/তোর লাল নিশানারে’ গানটি তখন চাষিদের জাতীয় সংগীত হয়ে দাঁড়িয়েছিল। ১৯৫৬ সালে বিক্রমপুরের ষোলঘরে কৃষক সমিতির সম্মেলনে প্রথম তারই নেতৃত্বে গানটি গাওয়া হয়। এছাড়া সত্যেন সেন গানের মাধ্যমে বরিশালে মনোরমা বসু মাসিমার ‘মাতৃমন্দির’র জন্য তহবিল সংগ্রহ করেছিলেন। প্রথমে দৈনিক ‘মিল্লাত’ পরবর্তী সময়ে দৈনিক ‘সংবাদ’র মাধ্যমে সত্যেন সেন সাংবাদিকতা করেছেন। সত্যেন সেনের মহৎ কীর্তি গণসাংস্কৃতিক সংগঠন ‘উদীচী’র প্রতিষ্ঠাতা। উদীচী ’৬৮, ’৬৯, ’৭০, ’৭১, সালে বাঙালির মুক্তির চেতনাকে ধারণ করে গড়ে তোলে সাংস্কৃতিক সংগ্রাম। মুক্তিযুদ্ধের সময় উদীচীর কর্মীরা প্রত্যক্ষভাবে অংশ নেন এবং পালন করেন ঐতিহাসিক ভূমিকা। অসম্প্রদায়িক প্রগতিশীল জাতীয় গণসাংস্কৃতির এ প্রতিষ্ঠান এখন বাঙালির জাতীয় সংস্কৃতির মূল সংগঠনগুলোর অন্যতম। মস্কোতে চোখের চিকিৎসা খুব একটা উন্নতি না ঘটায় ১৯৭২ সালের প্রথম দিকে তিনি চলে আসেন স্বপ্নের স্বাধীন মুক্ত স্বদেশ বাংলাদেশে। দৃষ্টিহীন অবস্থায় তিনি কলম ধরেছিলেন। কিন্তু ১৯৭৩ সালে শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটায় দেশ ছাড়তে বাধ্য হন। ভারতে আশ্রয় নেন শান্তি নিকেতনের মেজদিদি প্রতিভা সেনের কাছে। এমনি করে চলে যায় আরো ৮টি বছর। শান্তি নিকেতনের গুরুপল্লীতে ১৯৮১ সালে ৫ জানুয়ারি কালজয়ী এই মহাপুরুষের মহাজীবনের অবসান ঘটে। তিনি আমাদের যা দিয়ে গেছেন এজন্য আমরা তার কাছে চিরঋণী। কালজয়ী মহাপুরুষ সত্যেন সেনের স্মৃতি রক্ষার্থে তার বসতভিটা সংরক্ষণ করা হবে বলে এলাকাবাসীর দাবি।

Leave a Reply