বাংলার প্রমিথিউস হুমায়ুন আজাদ

humayun_azadমাহমুদুল বাসার
মৌলবাদ বিরোধিতার চিত্র বাংলা উপন্যাসে একেবারে দুর্লভ নয়। রবীন্দ্রনাথের ‘চতুরঙ্গ’ উপন্যাসে মৌলবাদ বিরোধিতার প্রখর দৃষ্টান্ত আছে। জগমোহনের মতো এমন সাহসী চরিত্র বাংলা উপন্যাসে খুব কম আছে। কাজী ইমদাদুল হকের ‘আবদুল্লাহ’ উপন্যাসে মৌলবাদ বিরোধিতার করুণ চিত্র আছে। সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর ‘লালসালু’ উপন্যাস মূলত মৌলবাদবিরোধী উপন্যাস। এ উপন্যাসে মৌলবাদীদের নিষ্ঠুরতার শিল্পরূপ দেয়া হয়েছে। শহীদ কথাশিল্পী আনোয়ার পাশার ‘রাইফেল রোটি আওরাত’ উপন্যাসে মৌলবাদীদের অপকর্মের গাঢ় চিত্রায়ণ ঘটেছে। আবুল ফজলের ‘রাঙ্গা প্রভাত’ও মৌলবাদবিরোধী। অবশ্য ড. আজাদের উপন্যাসে সমকালের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে মৌলবাদ বিরোধিতার তীক্ষèতা পেয়েছে অধিকতর। তিনি শওকত ওসমানের ‘ক্রীতদাসের হাসি’ উপন্যাসের সূক্ষ্ম প্রেরণা নিয়ে থাকতে পারেন।

২৮ এপ্রিল সাহসী, প্রথাবিরোধী লেখক ড. হুমায়ুন আজাদের জন্মদিন। ১৯৪৭ সালের এই দিনে বিক্রমপুরের রাড়িখাল গ্রামে এই ক্ষণজন্মা লেখক জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম আবদুর রাশেদ, মায়ের নাম জোবেদা খাতুন। তিনি ছিলেন বাবা-মায়ের বড় ছেলে। আলবদরের ঘাতক বাহিনীর হাতে গুরুতর জখম হওয়ার পর জার্মান বিপ্লবী কবি হাইনরিশ হাইনের কবিতার ওপর গবেষণা করতে গেলে সেখানে তিনি মৃত্যুর হিমশীতল নীরবতায় ঢলে পড়েন। মৃত্যুর ১০ দিন পর তার অপাপবিদ্ধ লাশ স্বগৃহে ফিরে এলে তার সহোদরা চিৎকার দিয়ে ক্রন্দসী কণ্ঠে স্বাগত জানিয়ে বলেছিল, ‘আমার বড়দা আইছে গো’।
তার জীবন অতিষ্ঠ করে তুলেছিল স্বাধীনতাবিরোধী ঘাতক বাহিনী। তার পাশে কেউ দাঁড়ায়নি, তাকে কেউ রক্ষা করেনি, মূলত বাংলার এই অবাধ্য প্রমিথিউসকে রক্ষা করার যোগ্যতা কারো ছিল না। এ দেশে মর্সিয়া ক্রন্দনের লোকের অভাব নেই, এটা এমনি একটি দেশ, যে দেশের জাতির পিতার লাশ সিঁড়িতে ৪৮ ঘণ্টারও বেশি সময় অবহেলায় পড়েছিল, তার নামকীর্তন করতে করতে যারা মন্ত্রী হয়েছে, টাকার বালিশ বানিয়েছে, তারাও জাতির পিতার লাশ সিঁড়িতে রেখে মোশতাকের পা চাটতে গিয়েছিল। তারপর সুসময়ে মর্সিয়া ক্রন্দন করেছে। এই দেশে ড. হুমায়ুন আজাদের মতো সত্যভাষীকে সার্বভৌমত্বের শত্রুরা যেভাবে তাড়া করলো, জখম করলো, মোবাইলে হুমকি দিয়ে তার মনের নিবিড় প্রশান্তি খুন করলো, তার প্রতিটি মুহূর্তকে বিষধর সাপের মতো ছোবলে ছোবলে জর্জরিত করলো, তার আয়ুর রশি ধরে হায়েনার মতো টানাটানি করলোÑ করতে পারলো এই দেশে, তাতে এই দেশের সভ্যতার মাপকাঠি আটকা পড়ে যায়। এরপর গোঁফে তা দিয়ে তার মতো প্রবাদপ্রতিম সাহসী লেখককে করুণা করা প্রতারণার শামিল।
অকাল মৃত্যুর শিকার হলেন ড. আজাদ। এ স্বল্প সময়ে দুই হাতে লেখা তার লেখার ঋদ্ধি শোভন পরিমাণ অতুলনীয়। মনে হয়, প্রতিদিন তার মেধার দরজা খুলে একেকটা বই বের হয়ে আসতো। তার মনন নিংড়ানো হাজার পৃষ্ঠা মন্থন করে কোথাও পাওয়া যাবে না, তিনি কোনো রাজনৈতিক দলের প্রতি, কোনো নেতার প্রতি, কোনো নেত্রীর প্রতি গদগদ প্রশংসা করেছেন; আনুগত্যে নুয়ে পড়েছেন। কোনো চাটুকারের চাঁতালে তার পা পড়েনি। তা হলে কেন আলবদরের ঘাতকরা তাকে এভাবে দাবড়াতে দাবড়াতে মেরে ফেললো?
অন্ধবিশ্বাস, অলৌকিকতা, অসুন্দরের বিরুদ্ধে তার মতো আর কেউ এতো সাহসের সঙ্গে লড়াই করেনি। বাঙালি অনেক মহাপুরুষের মধ্যে আছে ভারসাম্যমূলকতা, আছে অ্যাডজাস্টমেন্ট, আছে মনোরঞ্জন, আপসের গন্ধ, পিছু হটা; কিন্তু ড. আজাদের মধ্যে তা ছিল না। অগ্নিশলাকার মতো তার কথাগুলো আলবদরের ঘাতকদের বুকে বিদ্ধ হয়েছে। তার কালজয়ী উপন্যাস ‘পাকসার জমিন সাদবাদ’-এ তিনি আলবদরের নিখুঁত চেহারা অঙ্কন করেছেন। ওই কালোত্তীর্ণ উপন্যাসের প্রতিটি অক্ষর গ্রেনেড হয়ে আলবদরের আস্তানায় নিক্ষিপ্ত হয়েছে। তাই ওরা ড. আজাদের ওপর ক্ষিপ্ত হয়েছিল। ঘাতকের সর্দার, গলাবাজ, উস্কানির কুতুব মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী সংসদে ‘পাকসার জমিন সাদবাদ’ উপন্যাসের বিরুদ্ধে বিষোদ্গার করেছিল। সাঈদীর উস্কানিকে জঙ্গিরা গ্রিন সিগন্যাল ধরে নিয়ে ২০০৪ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি বইমেলার উপকণ্ঠে অতর্কিতে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে জখম করে ড. আজাদকে। তখন সাঈদীরা ক্ষমতায়।
ড. আজাদকে রক্তাক্ত করা কিন্তু বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়, ধারাবাহিক ঘটনারই পরিণতি। বঙ্গবন্ধুর নির্মম হত্যা, শাহ আজিজের প্রধানমন্ত্রী হওয়া, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের ম্যান্ডেট ছিন্নভিন্ন করা, ধর্মনিরপেক্ষতা ভূলুণ্ঠিত করা, রাষ্ট্রধর্মের প্রবর্তন করা, বাংলাভাইয়ের রাজত্ব কায়েম হওয়া, বেগম সুফিয়া কামালকে ‘ডাইনি’, শহীদ জননী জাহানারা ইমামকে ‘জাহান্নামের ইমাম’ আখ্যা দেয়া, কবি শামসুর রাহমানকে বাসগৃহে ঢুকে হত্যার চেষ্টা, প্রগতিশীল বুদ্ধিজীবীদের ‘মুরতাদ’ বলা ইত্যাদি কার্যক্রমের সঙ্গে সম্পৃক্ত।
১৯৭১ সালে শিল্পী কামরুল হাসান ইয়াহিয়া খানের পশু আকৃতির চেহারাটি অঙ্কন করে মুক্তিযুদ্ধকে বেগবান করে তুলেছিলেন। ড. আজাদও ‘পাকসার জমিন সাদবাদ’ উপন্যাসে জঙ্গি ঘাতকদের ভেতরের ভয়ঙ্কর চেহারা সাহসের রঙ-তুলিতে অঙ্কন করে সাঈদীর হাতের কৃপাণে আত্মোৎসর্গ করলেন।
লেখক আকিদুল ইসলামের কাছে এক প্রশ্নের উত্তরে ড. আজাদ বলেছেন:
‘মাত্র ১১২ পৃষ্ঠার একটি বইয়ের কী অসাধারণ শক্তি যে, এর লেখককে হত্যা করার মতো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। যাদের সম্পর্কে এ বইটি লেখা, যাদের নোংরা চরিত্র এ বইয়ে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে তারা ১১২ পৃষ্ঠা বই লিখে জবাব দিতে না পারলেও ১০১২ পৃষ্ঠার বই লিখে এর জবাব দিতো। কিন্তু সে সামর্থ্য তাদের নেই।’ (শেকলে বাঁধা কফিন, আগামী ২০০৮, পৃ. ৪৯)।
ড. আজাদ আরো বলেছেন: ‘আমি এ বইতে অকপটে মৌলবাদীদের নির্মমতা, তাদের অত্যন্ত কুৎসিত জীবনের কাহিনী উপস্থাপন করেছি। এভাবে আর কোথাও হয়নি। এভাবে বাংলাসাহিত্যে কেন, বিশ্বসাহিত্যেও মৌলবাদকে তুলে ধরা হয়নি। মৌলবাদকে তত্ত্ব হিসেবে নয়Ñ বাস্তব, অশ্লীল একটি শক্তি হিসেবে যেভাবে দেখা দরকার, আমি আমার বইতে সেভাবেই দেখেছি। এটি তাদেরকে অত্যন্ত পীড়িত করেছে। কারণ তাদের বাহিনীর সমস্ত জোব্বা, আলখেল্লা, বড় বড় দাড়ি, মেহেদিমাখা দাড়ি, যাই থাক না কেন ভেতরে তারা খুনী। ভেতরে তারা অশিক্ষিত, মূর্খ, ভ-, বর্বর এবং তারা প্রত্যেকেই খুনী।’ (ঐÑ পৃ. ৩৯)।
এ উপন্যাসের প্রধান চরিত্র মৌলবাদের গাউস সংখ্যালঘু নারীদের লক্ষ্য করে বলে: ‘ওটি লিঙ্গ নয়; ওটি খোদার দেয়া পিস্তল। ওইটা চালাতে হবে। মালাউন মেয়েগুলোর পেটে মমিন মুছলমান ঢুকিয়ে দিতে হবে।’ (ঐÑ পৃ. ৩৯)
আলবদর, জঙ্গি, বাংলাভাই নামক ঘাতকদের মূল মনোভঙ্গি উপরের কথাগুলোতে ফুটে উঠেছে। ২০০১ সালের নির্বাচনের পর ঘাতক আলবদর বাহিনী যে ধর্ষণের, হত্যার, সংখ্যালঘু নির্যাতনের লোমহর্ষক ইতিহাস সৃষ্টি করেছিল, ‘পাকসার জমিন সাদবাদ’ উপন্যাসে তার চিরন্তন, মননশীল কারুকাজ ফুটে উঠেছে।
মৌলবাদ বিরোধিতার চিত্র বাংলা উপন্যাসে একেবারে দুর্লভ নয়। রবীন্দ্রনাথের ‘চতুরঙ্গ’ উপন্যাসে মৌলবাদ বিরোধিতার প্রখর দৃষ্টান্ত আছে। জগমোহনের মতো এমন সাহসী চরিত্র বাংলা উপন্যাসে খুব কম আছে। কাজী ইমদাদুল হকের ‘আবদুল্লাহ’ উপন্যাসে মৌলবাদ বিরোধিতার করুণ চিত্র আছে। সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর ‘লালসালু’ উপন্যাস মূলত মৌলবাদবিরোধী উপন্যাস। এ উপন্যাসে মৌলবাদীদের নিষ্ঠুরতার শিল্পরূপ দেয়া হয়েছে।
শহীদ কথাশিল্পী আনোয়ার পাশার ‘রাইফেল রোটি আওরাত’ উপন্যাসে মৌলবাদীদের অপকর্মের গাঢ় চিত্রায়ণ ঘটেছে। আবুল ফজলের ‘রাঙ্গা প্রভাত’ও মৌলবাদবিরোধী।
অবশ্য ড. আজাদের উপন্যাসে সমকালের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে মৌলবাদ বিরোধিতার তীক্ষèতা পেয়েছে অধিকতর। তিনি শওকত ওসমানের ‘ক্রীতদাসের হাসি’ উপন্যাসের সূক্ষ্ম প্রেরণা নিয়ে থাকতে পারেন।
ড. হুমায়ুন আজাদকে বলেছি বাংলার প্রমিথিউস। প্রমিথিউস ছিলেন দেবতাদের অবাধ্য। আর হুমায়ুন আজাদ ছিলেন মৌলবাদী দানবীয় প্রথার বিরুদ্ধে সার্বিকভাবে অবাধ্য।

http://www.munshigonj.com/MGarticles/HA/HumayunAzad.htm

Leave a Reply