পদ্মার ভাঙনে আধা কিলোমিটার ফসলি জমি বিলীন

padmaগোলাম মঞ্জুরে মাওলা অপু শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ)
আবার ভাঙন শুরু হয়েছে প্রমত্তা পদ্মার। প্রতিদিনই বিলীন হচ্ছে বসতভিটা, ফসলি জমি, দরিদ্রের সহায়সম্বল। মুন্সীগঞ্জের ভাগ্যকূলের মানুষের কাছে ভাঙন যেন এক বিভীষিকা। প্রতি বছরই পদ্মার ভাঙন তাদের নি:স্ব থেকে নি:স্বতর করলেও ভাঙন রোধে নেই কোনো কার্যকর উদ্যোগ। ভাঙনে সর্বস্বান্ত হওয়াই যেন তাদের নিয়তি। পদ্মাপাড়ের মানুষের জীবনে প্রতিটি সকাল আসে নতুন আতঙ্ক নিয়ে। ভাঙনের শব্দ শুনেই ঘুম ভাঙে তাদের : শফিউদ্দিন বিটু
ভাঙছে নদী, বাড়ছে মানুষের আহাজারি। পানি বাড়ার সাথে সাথে দুর্বার হয়ে উঠেছে পদ্মা। আতঙ্কে রাত কাটাচ্ছেন নদীতীরের বাসিন্দারা। গবাদিপশু আর বাড়ির গাছ-গাছালি রক্ষার প্রাণান্ত প্রচেষ্টায় ব্যস্ত সবাই। তাদের মুখে এখন একটাই কথা­ ভিটেমাটি হারিয়ে কোথায় যাবো!
গতকাল মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার দক্ষিণ কামারগাঁও গ্রামে গিয়ে এ চিত্র দেখা গেছে। জমিজমা হারিয়ে শেষ সম্বল রক্ষায় গাছ কাটার কাজে নিয়োজিত একই গ্রামের ষাটোর্ধ হাসান মাতবর পদ্মায় কেড়ে নেয়া বিশালাকৃতির এক চরুণ (ধসে পড়া মাটির খণ্ড) দেখিয়ে বলেন, মাত্র ১০-১৫ মিনিটের মধ্যেই এটি বিলীন হয়েছে। তিনি বলেন, ‘আল্লাহর জমি আল্লায় নিতাছে, তয় আমরা যামু কই!’
ব্রিটিশ আমলের দেশের অন্যতম প্রখ্যাত নৌবন্দর ঐতিহ্যবাহী ভাগ্যকূলের মানুষের মাঝে আর ভাগ্যের সুবাতাস বইছে না। পদ্মার ভয়াবহ ভাঙন এখন তাদের দুর্ভাগ্যে পরিণত হয়েছে। এক সপ্তাহ ধরে ভাগ্যকূল ও বাঘড়া ইউনিয়নে পদ্মার ভাঙন নতুন করে শুরু হয়েছে। ভাঙন দেখা দিয়েছে পার্শ্ববর্তী লৌহজং উপজেলার যশলদিয়া ও কান্দিপাড়া গ্রামেও। প্রতি মুহূর্তে নদী তীরবর্তী বিভিন্ন স্খানে বিশালাকৃতির ফাটলের সৃষ্টি হয়ে তা নদীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। পদ্মার নতুন আগ্রাসনে আতঙ্কিত এলাকাবাসী তাদের ঘরবাড়ি সরানোর প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ভাগ্যকূল গ্রামের ফজল শেখ জানান, আজ অথবা কালকের মধ্যেই আমার বাড়িসহ অন্তত ২০-২৫টি ঘর সরানো প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।
এলাকাবাসী জানান, গত কয়েক সপ্তাহে পদ্মায় পানি বাড়ার সাথে সাথে পদ্মার উত্তাল ঢেউয়ের আঘাতে বেথুয়া থেকে যশলদিয়া পর্যন্ত চার কিলোমিটার এলাকায় আধাকিলোমিটার ফসলি জমি পদ্মায় বিলীন হয়ে গেছে। হুমকির মুখে রয়েছে ভাগ্যকূল বাজারের তিন শতাধিক দোকানপাট, কবুতর খোলা, চারিপাড়া, দক্ষিণ কামারগাঁও, ভাগ্যকূল ও পার্শ্ববর্তী উপজেলার যশলদিয়া ও কান্দিপাড়া গ্রামের দুই সহস্রাধিক বাড়িঘর।
চারিপাড়া গ্রামের ব্যবসায়ী লাল মিয়া হাওলাদার জানান, গত এক মাসে আবদুল পাঠানের বাড়ি সংলগ্ন ২০০ ফুট এলাকার কড়ই বাগান, মিজান গাজী পরিবারের ৫ কানি জমি বিলীন হয়ে গেছে।
বিক্রমপুরের ঐতিহ্যবাহী ভাগ্যকূল বাজারের গোবিন্দ মিষ্টান্ন ভাণ্ডারের মালিক বিশ্বনাথ জানান, গত ৫০ বছরে এ এলাকায় পদ্মার ভাঙন দেখা না দিলেও গত দুই বছরে ক্রমাগত বিলীন হচ্ছে প্রাচীণ এই জনপদটি। গত কয়েক দিনের ভাঙনে পদ্মাতীরের হাজার হাজার পরিবারে আতঙ্ক বিরাজ করছে।
জানা গেছে, ভাঙন প্রতিরোধের জন্য গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে ৫০ লাখ টাকার জিও ব্যাগ ফেলার প্রস্তাব ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়। তবে এখন পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি বলে জানান, ভাগ্যকূল বাজার কমিটির সভাপতি আয়নাল হোসেন। ওই সময় মাত্র দুই মাসের মধ্যে ১৬ শ’ একর ফসলি জমি, গাছপালা ও বাড়িঘর বিলীন হয়ে যায়। আর চলতি বছর ঝুঁকির মুখে পড়েছে বহু গুরুত্বপূর্ণ স্খাপনাসহ ঢাকা-দোহার সড়ক।

Leave a Reply