‘দেলোয়ার স্বেচ্ছাচারী আব্বাস সহযোগী’

34727_1শামছুদ্দীন আহমেদ:
এবার রাজনীতিতে বিস্ফোরণ ঘটালেন ঢাকার মেয়র ও ঢাকা মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি সাদেক হোসেন খোকা। বললেন, মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের স্বেচ্ছাচারিতায় বিএনপির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে, দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হচ্ছে। সম্প্রতি মুক্তাঙ্গনে বিএনপির প্রতিবাদ সভায় সৃষ্ট ঘটনা সম্পর্কে তার মন্তব্য মির্জা আব্বাসসহ কতিপয় লোকজন আছেন যারা মহাসচিবের সহযোগী। মহাসচিব নিজের স্বেচ্ছাচারিতা ধরে রাখার জন্য তাদের কাঁধে ভর করেছেন। নিজ স্বার্থে ব্যবহার করে তাদেরকে ভুল পথে নিয়ে যাচ্ছেন দেলোয়ার।
গতকাল নগর ভবনে মেয়র কার্যালয়ে এই প্রতিবেদককে দেয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে সাদেক হোসেন খোকা এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, বিএনপির মতো এত বড় একটি রাজনৈতিক দলের মহাসচিবের যে আচরণ এবং সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে কাজ করার জন্য যেই উদার মানসিকতা থাকা দরকার, তা খোন্দকার দেলোয়ারের মধ্যে নেই। উনি এগুলোর ধারও ধারেন না। গুটি কয়েক লোককে নিয়ে তিনি নিজেকে সীমাবদ্ধ রাখতে চান।
এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির এই নেতা বলেন, মহাসচিবসহ যারা দলের ভাবমূর্তি বিনষ্ট করছে দল থেকে তাদের বহিষ্কারের দাবি ধীরে ধীরে স্পষ্ট হয়ে ফুটে উঠছে। দলের নেতা-কর্মীদের মাঝেও বিষয়টি ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে। চেয়ারপারসনও বিষয়টি নিশ্চয়ই প্রত্যক্ষ ও পর্যবেক্ষণ করছেন। দলের ঐক্য ধরে রাখার স্বার্থে চেয়ারপারসন কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে কখনো পিছ পা হননি, আমার দৃঢ়বিশ্বাসÑ এবারো হবেন না।
আওয়ামী লীগের আব্দুল জলিলের মতো আপনিও কি বিএনপির কারো বিষয়ে গোয়েন্দা সম্পৃক্ততার কথা ইঙ্গিত করছেন? এরকম প্রশ্নের জবাবে সাদেক হোসেন খোকা বলেন, না, আমি জলিল সাহেবের মতো কাউকে ডিজিএফআই’র পেইড এজেন্ট বা দালাল বলতে চাই না। কারণ এরকম কোনো প্রমাণ আমার কাছে নেই। আরেক প্রশ্নের জবাবে তার ভাষ্যÑ আমি ডিজিএফআই’র অফিসও চিনতাম না। জরুরি অবস্থা থাকাকালে কারাগারে কাফরুলের ওয়ার্ড কমিশনার কাইয়ূমের মৃত্যু হয়। তার মরদেহ দেখার জন্য আমি কচুক্ষেত দিয়ে কাফরুল যাচ্ছিলাম। বাঁক নেয়ার সময় একটি বড় বিল্ডিং দেখে গাড়ির চালককে জিজ্ঞেস করলামÑ এটা কার বিল্ডিং। আমার ড্রাইভার বললো, স্যার আপনি এটা চেনেন না, এটাই তো ডিজিএফআই’র অফিস।
যেসব উল্লেখযোগ্য নেতা বিভিন্ন সময়ে বিএনপি ছেড়েছেন, চলমান সাংগঠনিক সংকট উত্তরণে তাদেরকে কি দলে ফিরিয়ে আনা উচিত? জানতে চাইলে মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতির সাবলিল উত্তরÑ এর জবাব দেয়ার আগে বলতে চাই, বিএনপির প্রধান রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ কে? নিশ্চয়ই আওয়ামী লীগ। কারণ আওয়ামী লীগের সঙ্গেই বিএনপির রাজনৈতিক মতাদর্শের পার্থক্যের প্রধান সংগ্রাম, ক্ষমতার লড়াইও আওয়ামী লীগের সঙ্গেই। সেই হিসেবে বিএনপির রাজনৈতিক ব্যারেলটির মুখ আওয়ামী লীগের দিকেই থাকার কথা। সমস্যা হচ্ছে, সেই ব্যারেলের মুখ বিএনপিরই কিছু নেতার দিকে। আওয়ামী লীগেও সিনিয়র ক’জন নেতা সংস্কার প্রস্তাব দিয়েছেন। তাই বলে আওয়ামী লীগ কি তাদের দল থেকে বের করে দিয়েছে? রাজনৈতিক মতপার্থক্য, বিরোধ কিংবা বিভ্রান্তি থাকতেই পারে। এটা রাজনীতির খুব স্বাভাবিক চেহারা। এই বিষয়টিকে মনে রেখে বিএনপিরও উচিত জাতীয়তাবাদী রাজনীতির সঙ্গে যারা সম্পৃক্ত ছিলেন তাদের সবাইকে এক প্ল্যাটফর্মে নিয়ে আসা। সরকার পক্ষের সঙ্গে রাজনৈতিক লড়াইয়ে উত্তীর্ণ হতে হলে সবাইকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে।
খোকা বলেন, অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী, কর্নেল (অব.) অলি আহমদ, আবদুল মান্নান ভূঁইয়াসহ এই পর্যায়ের যেসব নেতা বিভিন্ন সময়ে বিএনপি থেকে চলে গেছেন তাদের দলে ফিরিয়ে আনার দায়িত্ব দেয়া হলে আমি সানন্দ চিত্তে তা গ্রহণ করবো। তিনি বলেন, বি চৌধুরীকে যখন রাষ্ট্রপতির পদ থেকে সরানো হয়, তখন নীরবে হলেও আমি তার বিরুদ্ধে করা সভাগুলোতে যাইনি। অলি সাহেবও বের হওয়ার ক’দিন আগে আমি ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) সঙ্গে দেখা করে বিষয়টি বোঝানোর চেষ্টা করি।
ঢাকার মেয়র বলেন, যারা এখন অতি বিএনপি বলে নিজেদের দাবি করছেন তারা শহীদ জিয়ার ও জাতীয়তাবাদী আদর্শে বিশ্বাস করেন কি-না, খালেদা জিয়াকে চেয়ারপারসন মানেন কি-না সেটিই এখন বড় প্রশ্ন। তাছাড়া জিয়া যাদের দলে এনেছিলেন বিএনপি এখনো তাদের দিয়েই চলছে। স্থায়ী কমিটি নিয়ে সিনিয়র নেতা ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার মতো আমি মন্তব্য করতে চাই না। তবে এটা ঠিক যে, এখানে প্রতিস্থাপন দরকার। মোট কথা, প্রতিটি স্তরে দলকে শক্তিশালী করতে হলে বিএনপিতে বড় ধরনের ঝাঁকুনি দিতে হবে।
গত বুধবার মুক্তাঙ্গনের ঘটনা সম্পর্কে সাদেক হোসেন খোকা বলেন, ক্যান্টনমেন্টের বাড়ির বিষয়ে একটি প্রতিবাদ সমাবেশ আয়োজনের জন্য চেয়ারপারসন আমাকে ডেকে নিয়ে দায়িত্ব দেন। চেয়ারপারসনের সঙ্গে আলাপের সময় কয়েকজন এমপি এবং সাবেক ছাত্র নেতাও উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু সমাবেশ যেন বাস্তবায়িত ও ফলপ্রসূ না হয়, মহাসচিবসহ কয়েকজনের ভূমিকা সেই পর্যায়ে চলে যায়। আমি চেয়েছিলাম ম্যাডামের বাড়ির বিষয়টি যেন একটি প্রতিবাদ আকারে প্রতিষ্ঠিত হয়। কিন্তু মহাসচিব ও মির্জা আব্বাসসহ কয়েকজনের কারণে বাড়ির বদলে মিডিয়ার কাছে প্রধান খবর হয়ে যায় ‘বিরোধ’।
সবশেষে তিনি বলেন, বিশেষ পরিস্থিতিতে রাজনৈতিক কৌশল হিসেবে জরুরি অবস্থার সময় আমার হয়তো অন্যরকম একটা অবস্থান ছিল। চেয়ারপারসন নিজেও তখন সংস্কারের কথা বলেছেন। আমি বিএনপিতেই আছি, থাকবো। চেয়ারপারসন বা দল আমাকে যখন যে দায়িত্ব দেবে, আমাকে যেভাবে ব্যবহার করতে চাইবে, আমি সেভাবেই কাজ করবো।

Leave a Reply