ভূমিকম্পের তীব্রতা এত প্রবল হয় কেন?

ভূ-ত্বকের আকস্মিক পরিবর্তনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হল ভূমিকম্প (Earthquake)। ভূমিকম্পের ঝাঁকুনির ওপর এর তীব্রতা নির্ভর করে। ভূ-অভ্যন্তরের যেখানে ভূমিকম্প উৎপত্তি লাভ করে সে স্থানকে বলে কেন্দ্র (Center)। কেন্দ্র থেকে সোজা ভূ-পৃষ্ঠের ওপরের স্থানকে বলে উপকেন্দ্র (Epicentne)। ভূমিকম্পের তীব্রতা কেমন হবে তা নির্ভর করে ঝাঁকুনির সময়ের ওপর। এর ওপর ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ও বেশি কম হয়ে থাকে। কেন্দ্র থেকে উৎপত্তি হতে ভূ-কম্পনগুলো চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। ভূ-পৃষ্ঠের ওপরে সবচেয়ে বেশি তীব্রতা হয় উপকেন্দ্রে, এর থেকে যত দূরে যাক তীব্রতাও তত কমতে থাকেব। এটি অনেকটা কোন পুকুরে ঢিল ছোঁড়ার মত। ঢিল যেখানে পড়বে সেস্থান উঁচু ঢেউ হবে এবং ক্রামন্বয়ে দু’দিকে কমতে থাকবে এবং এক সময় ঢেউবিলীন হয়ে যাবে।

ভূ-অভ্যন্তরের গভীরে ১৬-২০ কিলোমিটারের মধ্যে ভূমিকম্পের কেন্দ্র অবস্থান করে। যদি কোন কেন্দ্র বেশি গভীরে হয় তবে সেটির দ্বারা ক্ষয়ক্ষতি কম হবে, আর যদি উৎপত্তিস্থল কম গভীরে হয় তবে তা খুব অল্প সময়ে ভূ-পৃষ্ঠে এসে সজোরে ধাক্কা দেয় এতে করে ভূমিকম্পের তীব্রতা ও ঝাঁকুনি বেশি হয় এবং ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি সংঘটিত হয়ে থাকে। যদি ভূ-অভ্যন্তরের খুব কাছাকাছি উৎপত্তি হয় তবে সেটি ভয়ঙ্কর (Devasting) প্রকৃতির ভূমিকম্প হতে পারে এতে করে রিকটার স্কেলে ভূমিকম্পের মাত্রা ৮ ও ছাড়িয়ে যেতে পারে। আর বেশি গভীরে হলে সেখানে ভূমিকম্পের স্কেল ২-৩ ও হতে পারে এর দ্বারা ভূমিকম্প যে হয়েছে তাও অনুভব হয়তো নাও হতে পারে। তাই ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল যত গভীরে ভূমিকম্পের ঝাঁকুনি ও তীব্রতা তত কম আর ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থলের গভীরতা যত কম ভূকিম্পের ঝাঁকুনি ও তীব্রতা তত বেশি হবে।

এস এম আলমগীর হোসেন
সহকারী অধ্যাপক
ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগ,
বিক্রমপুর আদর্শ ডিগ্রি কলেজ,
সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ।

Leave a Reply