বিদায়ী গভর্নরের শেষ কর্মদিবসটি সুখকর হলো না সিবিএ’র কারণে

বাংলাদেশ ব্যাংক গভর্নরের শেষ কর্মদিবসটি সুখকর হলো না সরকার সমর্থক কিছু কর্মচারীর জন্য। একশ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারীর উচ্ছৃঙ্খল আচরণের মুখে ব্যাংকের বিকল্প পথ দিয়ে তাকে বেরিয়ে যেতে হয়। গতকালই ছিল গভর্নর সালেহউদ্দিন আহমেদের শেষ কার্যদিবস। অফিসের কাজ শেষে বাসায় ফেরার আগে একদল উচ্ছৃঙ্খল কর্মকর্তা-কর্মচারী ভবনের মূল গেটে অবস্খান নেন এবং গভর্নরের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের þেöাগান দেন। এ পরিস্খিতিতে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে গভর্নর বিকল্প পথ বেছে নেন। এ সময় গভর্নর ফ্লোরে অবস্খান নেয়া এসব কর্মকর্তা-কর্মচারী কর্তব্যরত সাংবাদিকদের বিরুদ্ধেও বিষোদগার করতে থাকেন এবং এক পর্যায়ে রোববার থেকে সাংবাদিকদের গভর্নর ফ্লোরে আসা বìধ করে দেবেন বলে হুমকি দেন।
জানা গেছে, দাবি আদায়ের দোহাই দিয়ে বঙ্গবìধু পরিষদের সাবেক এক নেতার ইìধনে বাংলাদেশ ব্যাংকে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সিবিএ নেতা ও অফিসার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন নেতারা গভর্নরের চেম্বারের সামনে জড়ো হন। ওই নেতার ইìধনে কিছু বুঝে ওঠার আগেই মূল ভবনের নিচে কয়েক শ’ কর্মকর্তা-কর্মচারী একত্রিত হন।
জানা গেছে, সিবিএ নেতাদের সাথে গভর্নরের নির্ধারিত বৈঠক ছিল সাড়ে ৪টায়। বঙ্গবìধু পরিষদের সাবেক ওই নেতার ইìধনে সিবিএ’র সাথে যোগ দেয় অফিসার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ। সাড়ে ৪টায় সিবিএ সেক্রেটারি মঞ্জুরুল হক ও অফিসার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারি সাহাদত হোসেন খানের নেতৃত্বে একটি গ্রুপ গভর্নরের চেম্বারের সামনে অপেক্ষা করতে থাকে। আর মূল ভবনের নিচে অবস্খান করতে থাকেন কয়েক শ’ কর্মকর্তা-কর্মচারী। তখন ডেপুটি গভর্নর ও নির্বাহী পরিচালকদের সাথে গভর্নরের বিদায়ী বৈঠক চলছিল। কিন্তু কোনো একটি অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার আঁচ পেয়ে ডেপুটি গভর্নর জিয়াউল হাসান সিদ্দিকী গভর্নরের চেম্বার থেকে বের হয়ে সিবিএ সেক্রেটারি মঞ্জুরুল হককে তার চেম্বারে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু এ সময় জিয়াউল হককে তেমন কোনো পাত্তাই দেননি ওই সিবিএ নেতা। এ সময় জিয়াউল হক সিদ্দিকী বলেন, গভর্নরের সাথে দেখা করার আগে ডেপুটি গভর্নর মুরশিদ কুলী খানের সাথে তাদের দাবির বিষয়গুলো আলোচনা করার পরামর্শ দেন। এ সময় সিবিএ সেক্রেটারি জিয়াউল হাসান সিদ্দিকীকে বলেন তারা গভর্নরের সাথেই দেখা করবেন।
এক পর্যায়ে মুরশিদ কুলী খান গভর্নরের চেম্বার থেকে বের হয়ে সিবিএ নেতাদের তার অফিস কক্ষে নেন এবং তাদের দাবি-দাওয়া সম্পর্কে অবহিত হয়ে গভর্নরের সাথে আলাপ করেন।
সাংবাদিকদের নির্বাহী ফ্লোরে ঢুকতে না দেয়ার হুমকি নির্বাহী ফ্লোরে যখন সিবিএ নেতাদের মহড়া চলছিল, তখন সেখানে বিভিন্ন পত্রপত্রিকার সাংবাদিকরা তাদের দায়িত্ব পালনের জন্য উপস্খিত ছিলেন। উদ্দেশ্য ছিল বিদায়বেলায় গভর্নরের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করা। বিকেল ৫টার দিকে সিবিএ নেতারা সাংবাদিকদের ওপর বিষোদগার করতে থাকেন। প্রথমে বঙ্গবìধু পরিষদের সাবেক নেতা গভর্নরের প্রটোকল অফিসার আসাদুজ্জামানকে নির্বাহী ফ্লোর থেকে সাংবাদিকদের সরিয়ে দেয়ার নির্দেশ দেন। কিন্তু আসাদুজ্জামান তার কথায় তেমন আমলে নেননি। পরে ওই নেতার ইìধনে অফিসার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারি সাহাদত হোসেন খান সাংবাদিকদের উদ্দেশে বলেন, ‘সাংবাদিক-টাংবাদিকরা তোমরা এখানে কি করছো। অযথা তাদের কাজে ব্যাঘাত করছো কেন।’ একজন সাংবাদিক বিনয়ের সাথে বলেন, তারা তাদের দায়িত্ব পালনের জন্য এখানে এসেছেন। তিনি এ কথায় উত্তেজিত হয়ে বলেন, ‘ আগামী রোববার থেকে আর কোনো সাংবাদিককে থার্ড ফ্লোরে (নির্বাহী ফ্লোর) ঢুকতে দেয়া হবে না।’ আওয়ামী লীগ সমর্থিত ওই কর্মকর্তার হুমকিতে উপস্খিত সাংবাদিকরা হতভম্ব হয়ে যান। কয়েকজন সাংবাদিক সাথে সাথে এর প্রতিবাদ করেন।
লক্ষ্য ছিল গভর্নরকে নাজেহাল করা : বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, বিদায়ী গভর্নর ড. সালেহউদ্দিন আহমেদকে নাজেহাল করাই ছিল বঙ্গবìধু পরিষদের সাবেক ওই নেতার প্রধান উদ্দেশ্য। এ কারণে নামমাত্র একটি দাবি আদায়ের জন্য সবাইকে উসকে দেন। কিন্তু বাদসাধে সাংবাদিকরা। বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীরা মনে করেছিল, শেষ বেলায় সাংবাদিক থাকবে না। এ সুযোগে গভর্নরকে নাজেহাল করা যাবে। কিন্তু অন্য দিনের চেয়ে গতকাল বিকালে সাংবাদিকদের উপস্খিতি ছিল বেশি। এ কারণে তাদের পরিকল্পনা ভেস্তে যায়। এ কারণেই সাংবাদিকদের এরকম হুমকি দেয়া হয় বলে ওই সূত্রটি জানিয়েছে।
ইনক্রিমেন্ট দেয়ার উদ্যোগ : জানা গেছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য আলাদা বেতন স্কেল বাস্তবায়ন করতে গভর্নর গত চার বছরে সরকারের সাথে অনেক দেনদরবার করেছিলেন। কিন্তু সরকার তা বাস্তবায়ন করেনি। এ কারণে তিনি যাওয়ার আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের ঢালাও পদোন্নতি দিয়ে যান। তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীসহ যারা পদোন্নতি পাননি তারা যাতে বঞ্চিত না হন সেজন্য গভর্নর যারা পদোন্নতি পাননি তাদেরকে একটি করে ইনক্রিমেন্ট দিতে চেয়েছিলেন। এ কারণে গত সপ্তাহে ডেপুটি গভর্নরদের সাথে বৈঠকে গভর্নর তার শেষ ইচ্ছের কথা জানিয়েছিলেন। কিন্তু ডেপুটি গভর্নরদের বিরোধিতার কারণে তিনি তার শেষ ইচ্ছেটি পূরণ করতে পারেননি। শেষ মুহূর্তে তিনি তার একক ক্ষমতাবলে তার সচিবালয়ের ১৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে একটি করে ইনক্রিমেন্ট দেন।
জানা গেছে, এটাই তার জন্য কাল হয়ে দাঁড়ায়। কুচক্রীরা গভর্নরের সিদ্ধান্তের কথা সব কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে ছড়িয়ে দেন। এটাকেই পুঁজি করে তারা গভর্নরের বিদায় বেলায় তাকে নাজেহাল করার অপচেষ্টা চালায়।
অতীত নজির : জানা গেছে, অতীতে বিদায়বেলায় গভর্নরের তার সচিবালয়ের কর্মচারীদের কিছু সুযোগ সুবিধা দেয়ার নজির রয়েছে। ড. ফখরুদ্দিন ও ড. ফারাসউদ্দিন বাদে আর সব গভর্নরেই তাদের বিদায়ের বেলায় গভর্নর সচিবালয়ের কর্মচারীদের কিছু সুযোগ সুবিধা দিয়ে গেছেন। এর কারণ হিসেবে জানা গেছে, গভর্নর সচিবালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা একজন গভর্নরকে চার বছর সেবা দিয়ে থাকেন। এ কারণে চার বছর শেষে যাওয়ার সময় গভর্নরের একক ক্ষমতা বলে এসব কর্মকর্তা-কর্মচারীকে কিছু সুযোগ-সুবিধা দেন।।
বিকল্প পথে প্রস্খান : বাংলাদেশ ব্যাংকে প্রবেশের দু:টি গেইট রয়েছে। একটি গেইট দিয়ে গাড়ি প্রবেশ করে। অপরটি দিয়ে গাড়ী বের হয়। গতকাল গভর্নর হিসেবে ড. সালেহউদ্দিন আহমেদের ছিল শেষ দিবস। জানা গেছে, সিবিএ নেতাদের সাথে বৈঠকে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদেরকে একটি করে ইনক্রিমেন্ট দেয়ার সুপারিশ করা হয়। এরপরও তাকে বাংলাদেশ ব্যাংকের শেষ অফিস করে বিকল্প পথে বের হয়ে যেতে হয়। এর কারণ হিসেবে জানা গেছে, নিচে অবস্খানরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা যেকোনো প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার পাঁয়তারা করেছিলেন। তিনি যখন বেলা ৫টা ৩৫ মিনিটে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রবেশ গেইট দিয়ে বের হয়ে যান তখন বের হওয়ার গেইটে কয়েকশ’ কর্মকর্তা-কর্মচারী উপস্খিত ছিলেন।
কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য শেষ উপদেশ : তার অফিস থেকে বের হওয়ার সময় তার সচিবালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অনেকটা আবেগাপ্লুত ছিলেন। এ সময় গভর্নর তাদেরকে সান্তবনা দেন। তিনি তাদের উদ্দেশে বলেন, সব কাজে আল্লাহর ওপর ভরসা রাখবেন। রিজিকের মালিক একমাত্র আল্লাহ। কাজেই আপনারা তার ওপর ভরসা রাখবেন।

Leave a Reply