মুন্সীগঞ্জের হিমাগারে কয়েক লক্ষাধিক মেট্রিক টন আলু পচনের আশঙ্কা

কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ: বিদ্যুতের আসা যাওয়ার খেলায় মুন্সীগঞ্জের হিমাগারগুলোতে সংরক্ষণ করা প্রায় ৩ লাখ মেট্রিক টন আলুতে চাড়া গজিয়েছে এবং পচন ধরার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। আলু চাষী ও ব্যবসায়ীরা হিমাগারে ধরনা দিয়েও তাদের আলুর প্রকৃত ব্যবস্থা জানতে পারছে না। এ অবস্থায় একদিকে আলু চাষী ও ব্যবসায়ীরা হয়ে পড়েছে দিশেহারা অন্যদিকে হিমাগার মালিকদের মধ্যে দেখা দিয়েছে আতঙ্ক ।

মুন্সীগঞ্জে আলু সংরক্ষণের জন্য ৭৪টি হিমাগার রয়েছে। এর মধ্যে ৬৬টি হিমাগার চালু রয়েছে। বাকিগুলো নানা কারণে বন্ধ রয়েছে। জানা গেছে, ৬৬টি হিমাগারের ধারণ ক্ষমতা রয়েছে প্রায় সাড়ে ৫ লাখ মেট্রিক টন। কিন্তু এ বছর মুন্সীগঞ্জের আলু চাষী ও ব্যবসায়ীরা আলূ সংরক্ষণ করেছেন সাড়ে ৪ লাখ মেট্রিক টন। আর এ আলু নিয়ে বর্তমানে মহাবিপাকে হিমাগার মালিক এবং আলু চাষী ও ব্যবসায়ীরা। ঘন ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে চলতি মৌসুমে হিমাগারে সংরক্ষিত আলুতে একদিকে চাড়া গজাতে শুরু করেছে, অন্যদিকে পচন দেখা দেয়ার আশঙ্কায় ভুগছেন হিমাগার মালিকরা। এ বিষয়টি আতঙ্কের কারণ হওয়ায় হিমাগার মালিকরা বেশির ভাগই আলুর সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে আলু চাষী ও ব্যবসায়ীদের কোনো কিছু জানাচ্ছেন না। এ অবস্থায় আলু চাষী ও ব্যবসায়ী যারা হিমাগারে আলু সংরক্ষণ করেছেন তারা পুরোপুরি অন্ধকারে রয়েছেন। তবে বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কথা বলে দুএকটি হিমাগারের মালিক আলু চাষী ও ব্যবসায়ীদের চিঠি দিয়ে তাদের আলু নিয়ে যেতে তাগাদা দিচ্ছেন।

হিমাগার মালিকরা জানান, চলতি মৌসুমে হিমাগারে আলু সংরক্ষণের পর থেকেই তারা চরম আতঙ্কে ভুগছেন। ঘন ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে হিমাগারগুলো আলু সংরক্ষণের জন্য যে পরিমাণ ঠাণ্ডা রাখা দরকার, সে পরিমাণ ঠাণ্ডা রাখা যাচ্ছে না। এ অবস্থায় একদিকে আলুতে যেমন চাড়া গজাচ্ছে অন্যদিকে কিছুটা পচন ধরতে শুরু করেছে। মুক্তারপুরস্থ বিক্রমপুর মালটিপারপাস কোল্ড স্টোরেজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জানায়, তাদের হিমাগারের ধারণ ক্ষমতা ৮৫ হাজার বস্তা। এ মৌসুমে তাদের হিমাগারে সংরক্ষণ করা হয়েছে ৮০ হাজার বস্তা। কিন্তু বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে হিমাগারের তাপমাত্রা ঠিক রাখা যাচ্ছে না। টঙ্গিবাড়ির একতা কোল্ড স্টোরেজের ম্যানেজার দীন ইসলাম জানান, বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে তাদের হিমাগারে রাখা ৩০/৪০ বস্তা হাজার আলুতে চাড়া গজিয়েছে।

সূত্র জানায়, ঘন ঘন বিদ্যুৎ যাওয়ার ফলে হিমাগারের জেনারেটর, মেসিন, কমপ্রেসার, কোলিং ইউনিট নষ্ট হয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়িত। এতে একদিকে যেমন আলুতে পচন ধরছে অন্যদিকে হিমাগারগুলোর মারাÍক ক্ষতি হচ্ছে। হিমাগারগুলোর জন্য বিদ্যুতের একটি আলাদা ফিডার দেয়ার জন্য পল্লী বিদ্যুতের কাছে হিমাগার মালিকরা দীর্ঘদিন ধরে দাবি করে আসলেও কিন্তু তাদের সেই দাবি আজও পূরণ হয়নি।

হোগলাকান্দি গ্রামের কৃষক আলী হোসেন মোল্লা জানান, তিনি বেশি দাম পাওয়ার আশায় হিমাগারে আলু সংরক্ষণ করেছেন। কিন্তু এখন শুনতে পাচ্ছেন আলুতে পচন ধরতে শুরু করেছে। কিন্তু হিমাগার মালিকরা আলুর বর্তমান অবস্থা কি তা জানতে দিচ্ছে না।

Leave a Reply