রবীন্দ্রনাথের রাজনীতি-ভাবনা

56259_inside02সরকার মাসুদরবীন্দ্রনাথ প্রথমত ও প্রধানত কবি, শিল্পী। জীবন ও জগতের অশেষ রহস্য আর সৌন্দর্যই তাকে বেশি করে টানবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু লৌকিকের চেয়ে অলৌকিকের প্রতি, সীমার চেয়ে অসীমের প্রতি তার আগ্রহের পাল্লাটি ঝুঁকে আছে সারাক্ষণ এ রকম যারা ভাবেন, তাদের কাছে রবীন্দ্রনাথের যে ইমেজ তা ভয়াবহভাবে খ-িত। অথচ তার বাস্তবতাবোধ যে কতো সূক্ষ্ম এবং কতোখানি সতর্ক মন নিয়ে তিনি রাজনীতি করেছেন তা তার গদ্য রচনাসমূহের নিবিষ্ট পাঠকরা জানেন।

রবীন্দ্রনাথকে যারা কেবল কবি ও গীতিকার এবং ছোট গল্পকার হিসেবেই জানেন তাদের কাছে তিনি হয়তো গজদন্তমিনারবাসী এক রোমান্টিক লেখক। কিন্তু যারা তার প্রবন্ধ সাহিত্যের বিরাট ভা-ারের সঙ্গে সুপরিচিত এবং বিশেষভাবে পাঠ করেছেন ‘শিক্ষা-সমাজ-রাজনীতি বিষয়ক একাধিক গদ্যরচনা, তারা জানেন, দেশি রাজনীতিকদের চৈতন্যোদয় সৃষ্টির ও দেশ গঠনের কাজে তিনি কতোটা ইতিবাচক ভূমিকা গ্রহণ করেছিলেন। বড়মাপের কোনো লেখা বা শিল্পীকে সচরাচর স্বদেশের দুর্দিনে নির্বিকার থাকতে দেখা যায় না। নির্বিকার থাকতে পারেননি রবীন্দ্রনাথও। সারাজীবনই তিনি দেশের রাজনীতির গতি-প্রকৃতি নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিলেন। সেসব উদ্বেগী ভাবনা প্রকাশও করেছেন সাধ্যমতো।
সন্দেহ নেই, রবীন্দ্রনাথের পরিণত বয়সের সমাজ-রাজনীতি চিন্তা খুবই পরিপক্ব। তবে বালক রবীন্দ্রনাথের মনে সেই দেশবাস্তবতা বোধের বীজটি উপ্ত হয়েছিল এবং কিশোর বয়সেই তিনি ব্যক্তিগত ক্ষোভ ও অসন্তুষ্টির পরিচ্ছন্ন প্রকাশ ঘটান। ১৮৭৭ সালের হিন্দুমেলায় রবীন্দ্রনাথ ‘হিন্দু-মেলার উপহার’ নামে একটি কবিতা পড়েন। এটাই তার প্রথম রাজনীতিসচেতন লেখা। কবিতাটির স্টাইল দেশাত্মবোধক এবং তখনকার কাব্য রুচিসম্মতভাবে রচিত। তার কয়েক মাস পর হিন্দু মেলারই আরেকটি আসরে রবীন্দ্রনাথ একই ধরনের অন্য একটি কবিতা পাঠ করেন। এর প্রকাশকাল বেশ আলাদা। চাটুকার দেশি রাজরাজড়া এবং বিশিষ্ট নেতাদের উপস্থিতিতে উজ্জ্বল একটি দরবারকে (দিল্লি দরবার) লক্ষ্য করে লেখা হয়েছে এটা। কবিতাটির কয়েকটি পঙ্ক্তি এ রকমÑ ‘বৃটিশ বিজয় করিয়া ঘোষণা যে গায় গাক/আমরা গাব না,/আমরা গাব না হরষ গান,/ এসো গো আমরা যে কজন আছি, আমরা ধরিব/আর এক প্রাণ।’ দক্ষিণ ভারতে সে সময় চলছিল ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ। কমবেশি ষাট লক্ষ মানুষ অনাহারে-অপুষ্টিতে মারা যায়। এই পরিস্থিতিতে ক্ষুধার্ত মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে অঢেল অর্থ ব্যয় করে দিল্লিতে মহাদরবার এবং প্রদেশে প্রদেশে ছোট দরবারের আয়োজন করার ঘটনাকে কবি কিশোর রবীন্দ্রনাথ কিছুতেই মেনে নিতে পারেননি। বিষয়টি অবিবেকিতার চূড়ান্ত মনে হয়েছে তার কাছে। আর তারই ফলে এই কবিতাটি লেখা হয়। সাহিত্য হিসেবে এর বিশেষ মূল্য নেই। কিন্তু এটা সামাজিক-রাষ্ট্রিক অনাচারের পরিপ্রেক্ষিতে একজন তরুণ লেখকের (উত্তরকালে যিনি শুধু অসামান্য লেখক-শিল্পীই হননি, সাহিত্যকর্মের শ্রেষ্ঠতম স্বীকৃতি নোবেল প্রাইজও জিতে এনেছেন বাংলাভাষার জন্য) নৈতিক অবস্থানকে সুচিহ্নিত করেছে।
দিল্লি দরবার নিয়ে রবীন্দ্রনাথ কিছুকাল পরে একটি গদ্য লিখেছিলেন। তা যথারীতি হিন্দুমেলায় পঠিতও হয়। এই লেখাটি প্রবন্ধ। ‘অত্যুক্তি’ শিরোনামের এই গদ্য রচনায় রবীন্দ্রনাথ অধিকতর স্পষ্টবাদী। এখানে লেখক পরিষ্কার বলেছেন, জাঁকজমকপূর্ণ দিল্লি দরবারে জৌলুসে আকৃষ্ট হয়ে আসরে যোগ দেয়া দেশি মানুষদের মোটেই উচিত হবে না।
রবীন্দ্রনাথের জীবদ্দশায় ভারতবর্ষ পরাধীন। বহির্বিশ্বের আর্থ-রাজনীতিক অবস্থাটা তখন কেমন? ইতিহাসের দিকে একটু চোখ ফেরানো যাক। বুর্জোয়া শ্রেণীর অভ্যুত্থানের ফলে ইউরোপের সমাজ ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন ঘটেছে ততোদিনে। ইউরোপের সুবিধাভোগী ওই শ্রেণী উৎপাদনের ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছে। উৎপাদনের প্রাচুর্য ও উৎপাদিত সামগ্রীর বৈচিত্র্য বুর্জোয়া ধনিক শ্রেণীর হাতে এনে দেয় অর্থনৈতিক মাতব্বরি। উৎপাদিত পণ্য বিক্রির জন্য তাই তাদের দরকার হয়ে পড়লো বিশ্বব্যাপী বাজার। ইউরোপের দেশগুলো অতএব সাম্রাজ্য বিস্তারের লক্ষ্যে নেমে পড়ে। তাদের এ অর্থনৈতিক প্রতিযোগের জাঁতাকলে ছিন্নভিন্ন হয় এশিয়া ও আফ্রিকার বহু দেশ। ভারতবর্ষে বৃটিশ আসার আগে এবং পরে বহুকাল পর্যন্ত সামন্ত প্রথা চালু ছিল। বুর্জোয়া অর্থনীতি তার নিজের স্বার্থেই শ্রম বিক্রির স্বাধীনতা আইনের দৃষ্টিতে ক্ষমতাবোধ, ব্যক্তি স্বাতন্ত্র্যচেতনা এবং ইংরেজসুলভ উদারনীতিকে সমর্থন জুগিয়েছে। সেদিক থেকে চিন্তা করলে দেখা যায় সামন্ত ব্যবস্থা ও বুর্জোয়া রীতির মধ্যে বুর্জোয়া ব্যবস্থাই তুলনামূলকভাবে প্রগতিশীল যদিও এই বুর্জোয়া ব্যবস্থা ধনতান্ত্রিক অর্থনীতির পিঠে সওয়ার হয়ে সাম্রাজ্যবাদের দিকে এগিয়েছে বারবার। বুর্জোয়া অর্থনীতি বাইরের দিকে এক ধরনের চাকচিক্য ছড়ায়। কেননা এর সঙ্গে সম্পৃক্ত প্রযুক্তি এবং সুসংগঠিত শাসন ব্যবস্থা। প্রগতির এই জৌলুসময় দিকটি ইংরেজি শিক্ষায় শিক্ষিত সাধারণ ভদ্রলোকদের মোহাবিষ্ট করেছিল। তারা ইংরেজি ভাষার সদর দরজা দিয়ে একদিকে যেমন ইউরোপের জ্ঞান-বিজ্ঞানের জগতে প্রবেশাধিকার পেয়েছিল, অন্যদিকে তেমনি ওই ভাষাটি জানার দৌলতে বৃটিশরাজের গুরুত্বপূর্ণ নানা সরকারি পদে তাদের নিযুক্তি পাওয়ার সুবর্ণ সুযোগ তৈরি হয়েছিল। এই মধ্যবিত্ত কিংবা নিম্ন মধ্যবিত্ত সুযোগসন্ধানী শ্রেণীটি বৃটিশ শাসন ব্যবস্থার আপাত ঔজ্জ্বল্যে এতোটাই মোহিত ছিল যে, অর্থনৈতিক শোষণের দিকটি তাদের দৃষ্টি এড়িয়ে গেছে। অথবা কারো কারো চোখে তা ধরা পড়লেও সেটা নিয়ে তারা মাথা ঘামাননি। কেননা বিরাজমান শাসন ব্যবস্থার মধ্যে থেকেই নিজেদের কিছু কিছু সুযোগ-সুবিধা আদায় করে নেয়াই ছিল সে যুগের রাজনীতির উদ্দেশ্য।
কিন্তু বাস্তবতা হলো, বৃটিশ পুঁজিবাদ ভারতবর্ষের গ্রামনির্ভর স্বয়ংসম্পূর্ণ অর্থনীতির মাজা ভেঙে দেয়। চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত (১৭৯৩)-এ ন্যস্ত কৃষক সমাজ পড়ে যায় গভীর সঙ্কটে। এই নতুন ব্যবস্থা বলাই বাহুল্য, কৃষকদের খুব একটা মঙ্গলের জন্য নেয়া হয়নি। এর উদ্দেশ্য সম্পূর্ণ রাজনৈতিক। দেশের নাগরিকদের মধ্য থেকে নতুন একটি সুবিধাভোগী শ্রেণী তৈরি করা হয় যারা ভারতে বৃটিশ শাসনকে স্থায়ী করার কাজে সহযোগিতা দেবে। উত্তরকালে দেখা গেছে এই নতুন শ্রেণীটি (নতুন ভূস্বামী) বৃটিশের অন্ধ ভক্তে পরিণত হয়েছিল।
ভারতের গ্রামীণ অর্থনীতি দাঁড়িয়ে ছিল প্রধানত কৃষি, কুটির ও ক্ষুদ্র শিল্পের ওপর। বৃটিশ শাসনের ফলে ধীরে ধীরে দেশি যন্ত্রশিল্পের উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। ধাতুনির্মিত বাসনপত্র, তাঁতের কাপড়, লৌহজাত সামগ্রী এসবের বাজারে সৃষ্টি হয় চরম সঙ্কট। চাপ পড়ে কৃষির ওপর। এ চাপ সামাল দেয়ার জন্য পর্যাপ্ত সেচব্যবস্থা ও কৃষি যন্ত্রপাতির উন্নতি করা হয়নি। উল্টো ভারতবর্ষকে ইংল্যান্ডের বাজার ও কাঁচামালের জোগানদাতা হিসেবে গণ্য করা হয়েছে। আর এভাবেই শোষণের ষোলকলা পূর্ণ হয়। একটা পর্যায়ে স্বাভাবিকভাবেই অসহায়, রুদ্ধকণ্ঠ জনগণের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হতে থাকে। ক্রমে সেই অসন্তোষ স্বতঃস্ফূর্ত বিদ্রোহের আকার ধারণ করে। কিন্তু জনসাধারণের অসন্তোষকে কাজে লাগিয়ে শৃঙ্খল আন্দোলন গড়ে তোলার কথা সে যুগের শিক্ষিতজনরা চিন্তা করেননি। এ ভাবনাটা এসেছে অনেক পরে এবং যারা সেটা করেছেন, নেতৃত্ব দিয়েছেন, বৃটিশবিরোধী আন্দোলনে তাদের সেই ভূমিকা সম্বন্ধে আমরা জ্ঞাত। নানা কারণে সাধারণ লোকের মনে ক্ষোভ পুঞ্জীভূত ছিল। সেই ঘিয়ে আগুন ঢালে লর্ড লিটনের আমলের স্বেচ্ছাচার। বৃটিশদের প্রতিনিধি এই ইংরেজ অফিসারের দমন নীতি ও পুলিশি অত্যাচার, অতীতের সমস্ত রেকর্ড ভেঙে দিয়েছিল। জাতিগত বিদ্বেষের চেহারাও হয়ে উঠেছিল অত্যন্ত কদর্য। এসব সত্ত্বেও ইংরেজ শাসনের আসল উদ্দেশ্য সেই সময়ের নেতারা উপলব্ধি করতে ব্যর্থ হয়েছিলেন বা বলা চলে, নেতাবর্গের মধ্যে কেউ কেউ তা উপলব্ধি করে থাকলেও ভয়ে কিংবা পশ্চাৎপদ মানসিকতাহেতু এ বিষয়ে সোচ্চার হতে পারেননি।
প্রায় ১৯২০ সাল পর্যন্ত ভারতে যে রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিরাজ করছিল, সেই কথা মনে রাখলে দেশবাস্তবতা বিষয়ে তরুণ রবীন্দ্রনাথের স্বচ্ছ চেতনাকে উজ্জ্বল ব্যতিক্রম বলেই মনে হয়। লক্ষ্য করুন, তিনি যে বয়সে ‘সন্ধ্যাসঙ্গীত’, ‘প্রভাতসঙ্গীত’, ‘বউঠাকুরানীর হাট’, ‘ভানু সিংহ ঠাকুরের পদাবলী’ প্রভৃতি রোমান্টিক কবিত্বভরা গদ্য-পদ্য সৃষ্টি করেছেন; সেই একই সময়ে লিখেছেন ‘চীনে মরণের ব্যবসায়’, ‘টৌন হলের তামাশা’, ‘হাতে-কলমে’র মতো তীক্ষè বাস্তবজ্ঞানসম্পন্ন প্রবন্ধগুলো। এসব লেখায় রবীন্দ্রনাথ একধারে বৃটিশ শাসনের জবরদস্তি এবং দেশি রাজনীতিকদের চিন্তা ও কাজের সীমাবদ্ধতা দেখিয়ে দিয়েছেন। বৃটিশ শাসনের আপাত প্রগতিশীল চেহারা আসলে সাম্রাজ্যবাদী শোষণেরই আরেক রূপ সেটা বুঝতে ভুল হয়নি তার। ‘মন্ত্রি অভিষেক’ প্রবন্ধে এই কথাটিই তিনি অন্যভাবে বলেছেন, ‘এদিকে ইংরাজি সাহিত্যে আমরা ইংরাজি চরিত্রের উচ্চ আদর্শ দেখিতে পাই, অথচ সাক্ষাৎ সম্পর্কে ইংরাজের মধ্যে তাহার পরিচয় পাই নাÑ এইরূপে ইউরোপীয় সভ্যতার উপর আমাদের অবিশ্বাস ক্রমশ বদ্ধমূল হইয়া আসিতেছিল।’ শাসক ইংরেজের চরিত্রে ইংরেজি সাহিত্যের মহৎ আদর্শের প্রতিফলন নেই এইজন্যই যে, তা করতে গেলে ইংল্যান্ডের বাণিজ্যিক স্বার্থে আঘাত লাগবে। এ কথা রবীন্দ্রনাথ অল্প বয়সেই বুঝতে পেরেছিলেন। সেজন্য জমিদারতনয় হয়েও আপন শ্রেণীস্বার্থের ঊর্ধ্বে উঠে বাস্তবতার একটি যৌক্তিক প্লাটফর্মে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছিলেন। তার বিবেকি কবি-মন তাকে ওই পর্যায়ে উন্নীত করতে প্রভূত সাহায্য করেছে। আর দেশ-বাস্তবতাকে তার বুঝতে চাওয়ার এই প্রবণতা প্রথম যৌবন থেকেই স্পষ্ট। কুড়ি বছর বয়সের রচনা ‘দয়ালু মাংসাশী’ নামের প্রবন্ধে রবীন্দ্রনাথ বৃটিশের সাম্রাজ্যলিপ্সাকে কঠোরভাবে আক্রমণ করেন। একই বছর (১৯২০) ‘চীনে মরণের ব্যবসায়’ নামে একটি অসাধারণ প্রবন্ধ লেখেন ‘ভারতী’ পত্রিকায়। এই রচনাটির রাজনৈতিক গুরুত্ব অনেকখানি। তার কারণ বাণিজ্যের স্বার্থে সাম্রাজ্যবাদী শক্তি কীভাবে মানবিকতাকে উপেক্ষা করে, কীভাবে সামরিক শক্তিকে কাজে লাগায় তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত ফুটে উঠেছে এই প্রবন্ধে।
লেখকের ২২/২৩ বছর বয়সের লেখা ‘টৌনহলের তামাশা।’ কলকাতার টাউন হলে সেকালের কতিপয় রাজনীতিবিদ কয়েকজন ইংরেজ রাজকর্মচারীকে নিয়ে মিটিং করেছিলেন। কিছু আর্থিক সুযোগ-সুবিধা পাবার আকাক্সক্ষায় তারা ওই সভা ডাকে। তারা হচ্ছেন সেইসব ব্যক্তি যারা পরাধীন জাতির মঙ্গল সাধনের কথা বলে বক্তৃতা-বিবৃতি দিয়ে বেড়াতেন। এই ভ-ামি রবীন্দ্রনাথের সহ্য হয়নি। ‘টৌন হলের তামাশা’ প্রবন্ধে তিনি আন্দোলনকারী রাজনীতিকদের স্ববিরোধী সুবিধাবাদী চরিত্রের স্বরূপ তুলে ধরেছেন। ক্ষুরধার ভাষায় সমালোচনা করেছেন নেতৃস্থানীয় লোকদের ব্যক্তিগত স্বার্থসিদ্ধির মনোভাবকে। এই ধরনের নেতাদের ঘৃণ্য কর্মকা-ে রবীন্দ্রনাথ হতাশ ও ব্যথিত হয়ে লিখেছিলেনÑ ‘রক্ষা করো উৎসাহে/যোগ্য আমি কই।/সভা ফাঁপানো করতালিতে/ কাতর হয়ে রই।’ (দেশের উন্নতি, মানসী) ‘হাতে-কলমে’ শিরোনামের প্রবন্ধটিও সমকালিক রাজনৈতিক আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে রচিত। খুবই গঠনমূলক এর বক্তব্য। রাজনৈতিক ধ্যান-ধারণা বিস্তারের জন্য গ্রামে-গঞ্জে ভাষণ দিয়ে বেড়ানো খুব একটা কাজের কিছু না, তার চাইতে অনেক বেশি প্রয়োজনীয় লাইব্রেরির মতো প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা এবং তার সুষ্ঠু রক্ষণাবেক্ষণ করাÑ এই হচ্ছে প্রবন্ধটির মূল বিষয়বস্তু। রবীন্দ্রনাথ পরিণত বয়সে যে ধরনের সমাজ-রাজনীতি-স্বদেশভাবনা উপহার দিয়েছেন তার স্বাস্থ্যকর বীজ পাওয়া যায় এই লেখায়। লেখকের স্বদেশচিন্তার আদি রূপটি যেভাবে ধরা পড়েছে এখানে, অন্য কোথাও সেভাবে আসেনি। আগাগোড়াই তিনি মানুষের আত্মশক্তিতে বিশ্বাসী। আত্মনির্ভরতার এই মূলমন্ত্রটির কথা তিনি এই লেখাতেও বারবার বলেছেন।
পরাধীন জাতির মুক্তির চিন্তা রবীন্দ্রনাথ প্রথম থেকেই করেছেন। স্বদেশের রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক বাস্তবতাকে তিনি কেবল অনুধাবনই করেননি, ভবিষ্যতের মঙ্গলামঙ্গল ও উত্তরণের সম্ভাবনার আলোকে তাকে বিচারও করে দেখেছেন। দৃষ্টি হয়তো অনেকেরই ছিল। কিন্তু রবীন্দ্রনাথের মতো অন্তর্দৃষ্টি ছিল না তাদের। সে কারণে সমসাময়িক রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ বাহ্যিক প্রলেপ লাগানো কৃষি সমাজের ভেতরের ক্ষতটি দেখতে পাননি। রবীন্দ্রনাথই প্রথম দেশের মানুষদের দিকে যথার্থ সহমর্মী চোখে তাকান, পীড়িত হন এবং সেই পীড়ন থেকে নিষ্কৃতি পাওয়ার উপায় অনুসন্ধান করে ফেরেন।
প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সে যুগের রাজনৈতিক আন্দোলন ছিল জনতা বিচ্ছিন্ন। বড় ধরনের রাজনৈতিক কর্মকা-ে জনগণের সম্পৃক্ততার খুবই প্রয়োজন ছিল। কিন্তু নানা সুবিধাবাদী ক্রিয়াকলাপের জন্য জনতার বৃহৎ অংশ নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের সন্দেহের চোখে দেখতো। আবার কখনো কখনো তাদের মনে হতো, বৃটিশশাসন খারাপ কী। অন্যদিকে সন্ত্রাসের পথ অবলম্বন করায় শিক্ষিত-সম্ভ্রান্ত লোকদের দ্বারা পরিচালিত বিপ্লবী আন্দোলনও গণসমর্থন আদায় করতে পারেনি। এই পরিস্থিতিতে রবীন্দ্রনাথ কিন্তু আসল জায়গাটা ধরতে পেরেছিলেন। নীতিগতভাবে তিনি বিপ্লবের পথকে সমর্থন করেননি বটে কিন্তু সাধারণ মানুষকে রাজনীতির বাইরে রেখে স্বাধিকার আন্দোলনকে সফল করা যাবে না এও তিনি বুঝেছিলেন হাড়ে হাড়ে। ভারতের ভেঙে পড়া কৃষিব্যবস্থাকে পুনর্জীবিত করা না গেলে কৃষকদের মধ্যে রাজনৈতিক অধিকারের বোধটিকেও চাঙ্গা করে তোলা সম্ভব হবে না। তখন আর সভা-সমিতি করেও কোনো লাভ হবে না। শ্রমজীবী নিরক্ষর মানুষদের বিচ্ছিন্ন রেখে স্বাধীনতা অর্জনের চিন্তা অবান্তরÑ এ সত্য রবীন্দ্রনাথই সবার আগে উপলব্ধি করেছেন।
কৃষক শ্রেণীর আর্থিক উন্নয়নের কথা চিন্তা করার পাশাপাশি তাদের শিক্ষিত করে তোলার বিষয়টি রবীন্দ্রনাথ ভেবেছেন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে। আজকের ভারত আর বৃটিশ যুগের ভারতবর্ষের মধ্যে দুস্তর ব্যবধান। শিক্ষার বিষয়টিকে, তাই রাজনৈতিক সমস্যা থেকে পৃথক করে দেখার অবকাশ ছিল না রবীন্দ্রনাথের। তিনি তো আসলে গণশিক্ষার কথাই বলেছেন দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে যার কোনো বিকল্প নেই। আর একাডেমিবহির্ভূত এই শিক্ষা দেশাত্মবোধ, আত্মসচেতনতা, গণতান্ত্রিক চেতনা, মানবিকতা প্রভৃতি স্তম্ভের ওপর দাঁড়িয়ে থাকবেÑ এমনটাই তিনি চেয়েছিলেন। তিনি বিশ্বাস করতেন, একমাত্র সঠিক শিক্ষাদানের ভেতর দিয়েই জনগণকে জাতীয় সম্পদে পরিণত করা সম্ভব। এ ব্যাপারে লক্ষ্য করুন, ‘ন্যাশনাল ফান্ড’ প্রবন্ধে রবীন্দ্রনাথ কী বলছেনÑ
‘চবড়ঢ়ষব-কে জড় পদার্থ করে না রেখে তাদের জাতীয় শক্তির ধারক ও বাহক করে তুলতে হবে। এর জন্য তাদের আগে চাই শিক্ষা। আর এই শিক্ষা বাংলাভাষায় হওয়া প্রয়োজন। এর জন্য চারিদিকে ‘বঙ্গবিদ্যালয়’ তৈরি করতে হবে। কেননা ইংরেজিতে শিক্ষা কখনোই দেশের সর্বত্র ছড়াইতে পারিবে না।’
রবীন্দ্রনাথের শিক্ষাবিষয়ক এই সুচিন্তিত মতামত গ্রহণ করা হয়নি। যদি হতো এবং তার পরামর্শ গুরুত্বের সঙ্গে কর্মক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হতো তাহলে আজ উপমহাদেশের শিক্ষাব্যবস্থা অন্তঃসারশূন্যতায় ভুগতো না। অযোগ্য কর্মচারীতে ভরে উঠতো না অফিস-আদালত। ভারতবর্ষ যে অশিক্ষার অন্ধকারে পড়ে আছে, শুধু এই জিনিসটাই নয়, অশিক্ষিত জনগণের প্রতি শিক্ষিত সমাজের মজ্জাগত অবজ্ঞার বিষয়টিও রবীন্দ্রনাথের দৃষ্টি এড়ায়নি। ধনী-দরিদ্র শিক্ষিত-অশিক্ষিতের মধ্যকার বৈষম্য যতোটা সম্ভব কমিয়ে আনার ব্যাপারে তিনি গোড়া থেকেই উদ্যোগী ছিলেন। তার রাজনীতিচেতনার দুটি প্রধান দিক হলোÑ এক, সঠিক সমালোচনার মাধ্যমে রাজনৈতিক ব্যক্তিদের প্রতি দিকনির্দেশনা দুই, গ্রাম সমাজ গঠন। নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিরা যেখানে তাদের রাজনীতিকে গণবিচ্ছিন্ন করে রেখেছিলেন, রবীন্দ্রনাথ সেখানে গুরুত্ব দিয়েছেন তাদের অংশগ্রহণ, জনশিক্ষা এবং অর্থনৈতিক স্বাচ্ছন্দ্যের ওপর। কেননা এগুলো অর্জিত না হলে স্বাধীনতা ফলপ্রসূ হয়ে উঠতে পারবে না। এখানেই তার রাজনৈতিক চিন্তাচেতনার মৌলিকত্ব। তার স্বদেশ ভাবনার আরেকটি উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, গোড়া থেকেই তিনি ভারতবর্ষের সমস্যাগুলো সমকালীন আন্তর্জাতিক পরিস্থিতির আলোকে অনুধাবন করার চেষ্টা করেছেন। ভারতকে তিনি আধুনিক বিশ্বের পিছিয়ে পড়া অংশ হিসেবেই ভাবতেন। তার এগিয়ে যাওয়ার উপায় নিয়ে চিন্তা করতেন নিরন্তর। সে কারণে দেশের দুর্দশার কথা যখনই তার কলমে উঠে এসেছে তা পেয়েছে ভিন্নমাত্রা।
রবীন্দ্রনাথ প্রথমত ও প্রধানত কবি, শিল্পী। জীবন ও জগতের অশেষ রহস্য আর সৌন্দর্যই তাকে বেশি করে টানবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু লৌকিকের চেয়ে অলৌকিকের প্রতি, সীমার চেয়ে অসীমের প্রতি তার আগ্রহের পাল্লাটি ঝুঁকে আছে সারাক্ষণÑ এ রকম যারা ভাবেন, তাদের কাছে রবীন্দ্রনাথের যে ইমেজ তা ভয়াবহভাবে খ-িত। অথচ তার বাস্তবতাবোধ যে কতো সূক্ষ্ম এবং কতোখানি সতর্ক মন নিয়ে তিনি রাজনীতি করেছেন তা তার গদ্য রচনাসমূহের নিবিষ্ট পাঠকরা জানেন।
পরাধীনতার সেই চরম নিপীড়নের যুগে ঊহমষরংযসধহ পত্রিকায় বাঙালিদের প্রতি একবার মন্তব্য করা হয়েছিল “করপশ ঃযবস ভরৎংঃ ধহফ ঃযবহ ংঢ়বধশ ঃড় ঃযবস” বলে। চরম অশালীন এই উক্তির জবাব রবীন্দ্রনাথ দিয়ে ছিলেন ধারালো, বিদ্রƒপাত্মক ভাষায়, ‘জুতাব্যবস্থা’ নামের প্রবন্ধে। এখানে তিনি লিখেছেন, ‘গভর্নমেন্ট একটি আইন জারি করিয়াছেন যে, যেহেতু বাঙালিদের শরীর অত্যন্ত বেযুৎ হইয়া গিয়াছে, গভর্নমেন্টের অধীনে যে যে বাঙালি কর্মচারী আছে তাহাদের প্রত্যহ কর্মারম্ভের পূর্বে জুতাইয়া লওয়া হইবে।’
কটাক্ষ করার প্রবণতা রবীন্দ্রপ্রবন্ধসাহিত্যের এক বিশিষ্ট দিক। গভীর ভাবুকতা আর প্রশ্নশীলতাও তার গদ্যরচনাসমূহের লক্ষ্যযোগ্য বৈশিষ্ট্য। রবীন্দ্রনাথ ‘জুতাব্যবস্থা’ লেখার সময় রীতিমতো বিলেতফেরত ব্যক্তি। ফলে স্বভাবতই ইংরেজদের সম্বন্ধে তিনি এই প্রশ্ন তুলেছিলেন যে, যে-জাতি শিল্প-সাহিত্য-বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে এতো উন্নতি করেছে, প্রতিষ্ঠা করেছে মানবমর্যাদা ও ব্যক্তিস্বাধীনতার আদর্শ, তারা শাসিত ভূ-খ-ের মানুষজন সম্বন্ধে চরম অশ্রদ্ধা পোষণ করে কীভাবে? মানুষ ও তার সমাজকে বুঝবার অক্লান্ত চেষ্টা রবীন্দ্রনাথ করে গেছেন আমৃত্যু। জিজ্ঞাসু দৃষ্টিভঙ্গিটিকে সযতেœ লালন করেছেন অšে¦ষণের গরজে। কৈশোরে ও প্রথম যৌবনে যে বিবেকিতা ও প্রশ্নশীলতা তাকে প্রবৃত্ত করেছিল সমাজসংস্কারমূলক লেখা লিখতে, পরিণত বয়সে এসে তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে অধিকতর যুক্তিবোধ এবং বৈশ্বিক দৃষ্টি। ‘ন্যাশনালিজম’ কিংবা জীবনের একেবারে শেষ দিকে লেখা ‘সভ্যতার সঙ্কট’ তো সেই জাতেরই রচনা। হ্যাঁ, এগুলোর বিষয়বস্তুও রাজনীতি। কিন্তু রাজনীতির গ-ি ছাড়িয়ে এই লেখাগুলো-কি মানবিকতার বৃহত্তর জীবনজিজ্ঞাসাকে আত্তীকৃত করে নেয়নি?

Leave a Reply