মহিউদ্দিনের আগমনে মুন্সীগঞ্জ ফের সঙ্ঘাতমুখর হয়ে ওঠার আশঙ্কা

আড়াই বছর পর মুন্সীগঞ্জের রাজনীতিতে ফিরে এলেন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো: মহিউদ্দিন। গত বৃহস্পতিবার দুপুরে তিনি মুন্সীগঞ্জ শহরে নিজ এলাকায় আসেন। তার আগমন উপলক্ষে দলীয় নেতাকর্মীরা শহরে ব্যাপক শোডাউন করেন। শহরের সুপার মার্কেট ও পুরনো কাচারি চত্বরে তিনি দু’টি সভায় বক্তব্য রাখেন। এর আগে জেলার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মিছিল নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীরা সভায় সমবেত হন। তবে এসব মিছিলে বিএনপি’র অনেক সমর্থক দেখা যায়। দুই ভাইয়ের বিরোধের সুযোগে বিএনপি’র নেতাকর্মীরা এলাকায় থাকার লক্ষ্যে দুই দিকে অবস্খান নেন। আড়াই বছর পর মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের অভিভাবক মো: মহিউদ্দিন মুন্সীগঞ্জে পদার্পণ করলেও মুন্সীগঞ্জের তিন এমপিসহ শীর্ষ নেতাদের অনেককেই তার সাথে দেখা যায়নি।

সভায় মো: মহিউদ্দিন বলেন, গত পাঁচ বছর বিএনপি অনেক অত্যাচার, জুলুম-নির্যাতন করেছে। তাই নির্বাচনে লজ্জাজনকভাবে বিপর্যয় ঘটেছে বিএনপি’র। আমার অনুপস্খিতিতে এ আসনে (মুন্সীগঞ্জ-৩) জননেত্রী শেখ হাসিনার চিন্তায় এম ইদ্রিস আলীর মতো একজন কলাগাছকে প্রার্থী করা হয়েছিল। সে কলাগাছও এ আসন থেকে পাস করেছে।

মহিউদ্দিন মুন্সীগঞ্জের রাজনীতিতে ফিরে আসায় আবার মুখোমুখি হচ্ছেন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মহিউদ্দিন ও তার ছোট ভাই সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মো: আনিসুজ্জামান। প্রায় আড়াই বছর আত্মগোপন থাকার পর মো: মহিউদ্দিন জামিনে মুক্ত হয়ে বৃহস্পতিবার মুন্সীগঞ্জে ফিরে আসেন। মহিউদ্দিনের ছোট ভাই সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামানের অনুসারীরা এখন আতঙ্কে রয়েছেন। আনিসুজ্জামানপন্থীদের অনেকে ভোল পাল্টে মহিউদ্দিনের পক্ষে থাকার চেষ্টা চালাচ্ছেন। শহরবাসীর আশঙ্কা, দুই ভাইয়ের মুখোমুখি অবস্খানের কারণে আবার শহর উত্তপ্ত ও সঙ্ঘাতময় হয়ে উঠবে। বৃহস্পতিবার আনিসুজ্জামান বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে তার সমর্থকদের সাহস জোগান।
জানা গেছে, পারিবারিক দ্বন্দ্ব ও ক্ষমতার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো: মহিউদ্দিন ও তার ছোট ভাই আওয়ামী লীগ নেতা উপজেলা চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামানের সাথে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এ বিরোধ মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে ২০০৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর ভাইপো তাপস হত্যাকে ঘিরে। এ হত্যা মামলায় বঙ্গবìধুর চিফ সিকিউরিটি গার্ড মো: মহিউদ্দিন প্রধান আসামি হয়ে মুন্সীগঞ্জ কারাগারে ২৭-২৮ দিন কারাবরণ করেন। এরপর দুই ভাই পারিবারিক ও রাজনৈতিকভাবে বিভক্ত হয়ে পড়ে। এ বিরোধকে কেন্দ্র করে জেলা আওয়ামী লীগও দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। অবৈধ সম্পদ অর্জন ও কর ফাঁকির মামলায় আসামি হয়ে মো: মহিউদ্দিন এক-এগারোর পর আত্মগোপন করেন। পলাতক থাকাবস্খায় ওই দু’টি মামলায় তার ২১ বছরের সাজা হয়। পারিবারিক এ বিরোধ উপজেলা নির্বাচনেও দেখা দেয়। গেল ২২ জানুয়ারির উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি আনিসুজ্জামানের বিপক্ষে মহিউদ্দিনপুত্র ফয়সাল বিপ্লব প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিপুল ভোটের ব্যবধানে হেরে যান। মহাজোট ক্ষমতায় আসার পর গত ১৯ মে মো: মহিউদ্দিন ঢাকার বিশেষ জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। ওই দু’টি মামলায় গত ৪ জুন জামিন পাওয়ার পর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ১৪ জুন তিনি ছাড়া পান।

সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামান বলেন, জামিন নিয়ে মো: মহিউদ্দিন তার বাড়িতে এসেছেন। এতে তিনি বা তার সমর্থকদের কেউ বিচলিত নন। তবে তিনি সার্বিক পরিস্খিতি পর্যবেক্ষণ করছেন।

[ad#co-1]

Leave a Reply