মোহাম্মদ নাসির আলী (১৯১০-১৯৭৫)

Muhammad-Nasirজনপ্রিয় শিশুসাহিত্যিক। ১৯১০ সালের ১০ জানুয়ারি ঢাকা জেলার বিক্রমপুর পরগনার ধাইদা গ্রামে তার জন্ম। তার পিতা মোহাম্মদ হায়দার আলী শিকদার ও মা কসিমুন নিসা। ছাত্র হিসেবে তিনি অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন।
১৯২৬ সালে অঙ্কে স্বর্ণপদকসহ স্থানীয় তেলীরবাগ কালীমোহন দুর্গামোহন ইন্সটিটিউশন থেকে তিনি প্রথম বিভাগে ম্যাট্রিক পাস করেন। এরপর ঢাকার জগন্নাথ কলেজ থেকে আইএ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯১৩ সালে বিকম পাস করেন। ছেলেবেলা থেকেই তিনি পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি নিয়মিত বিভিন্ন পত্রপত্রিকা পাঠ করতেন এবং এভাবেই সাহিত্যের প্রতি তার আগ্রহ জন্মে।
শিক্ষাজীবন শেষ করে মোহাম্মদ নাসির আলী ভাগ্যান্বেষণে কলকাতা যান এবং কলকাতায় হাইকোর্টের অনুবাদক বিভাগে চাকরি গ্রহণ করেন। এ সময় তিনি লেখালেখি সূত্রে দৈনিক ইত্তেহাদ, আজাদ, মাসিক মোহাম্মদী এবং সওগাত পত্রিকার সঙ্গে যুক্ত হন। আজাদ পত্রিকার শিশু-কিশোর বিভাগ ‘মুকুলের মহফিল’ও তিনি পরিচালনা করেন।
নাসির আলীর লেখা প্রথম বই প্রকাশিত হয় আমিনা মেহের ছদ্মনামে। ‘লেখাপড়া’ শিরোনামের এ বইটি ছিল একটি পাঠ্যবই। এটি অবিভক্ত বাংলায় প্রথম শ্রেণীর পাঠ্যপুস্তক হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিল। নিজের নামে তার প্রথম বই প্রকাশিত হয় ১৩৫৬ বঙ্গাব্দে। তার প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ৪০টিরও বেশি। তার ভাষা যেমন সহজ-সাবলীল ও বিষয়োপযোগী, তেমনি রচনাভঙ্গিও গতিময়। মৌলিক রচনার মতো অনুবাদকর্মেও তিনি ছিলেন সমান সিদ্ধহস্ত। তার উল্লেখযোগ্য বই হলো লেবুমামার সপ্তকা- (১৯৬৮), ভিনদেশী এক বীরবল (১৯৭৯), আকাশ যারা করল জয় (১৯৫৭), আলীফ লাইলার গল্প, একটি কুকুরের কাহিনী, ভিনদেশী গল্প, মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা, তিমির পেটে কয়েক ঘণ্টা, বোকা বকাই (১৯৫৬), ইবনে বতুতার সফরনামা (১৩৭৫), ইতালির জনক গ্যারিবল্ডি (১৯৬৩), ছোটদের ওমর ফারুক, আলবার্ট আইনস্টাইন, ছোটদের আলমগীর (১৩৭৭), আমাদের কায়েদে আযম মুহম্মদ আলী জিন্নাহ (১৩৫৫), মোহাম্মদ বিন কাসিম (১৩৭০), বীরবলের খোশগল্প (১৯৬৪), সাতপাঁচ গল্প (১৯৬৫), টলস্টয়ের সেরা গল্প (১৯৬২), যোগাযোগ (১৯৬৮), শাহী দিনের কাহিনী (১৩৫৯) ইত্যাদি।
পুস্তক রচনার পাশাপাশি রুচিশীল পুস্তক প্রকাশের প্রতিও নাসির আলীর প্রবল আগ্রহ ছিল। ১৯৪৯ সালে তার বন্ধু আইনুল হক খানের সঙ্গে যৌথভাবে ‘নওরোজ কিতাবিস্তান’ নামে প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলেন। তিনি ১৯৬৯ সালে গ্রন্থ প্রকাশনা সম্পর্কে করাচি থেকে ইউনেস্কো ট্রেনিং গ্রহণ করেন। তিনি ভালো ছবি আঁকতে পারতেন। ফটোগ্রাফির কাজেও তার প্রশংসনীয় দক্ষতা ছিল।
শিশুসাহিত্যের ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য নাসির আলী বেশ কয়েকটি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পুরস্কারে সম্মানিত হয়েছিলেন। তিনি ১৯৬৭ সালে শিশুসাহিত্যে বাংলা একাডেমী পুরস্কার, ১৯৬৮ সালে ইউনেস্কো এবং একই বছর ইউনাইটেড ব্যাংক অফ পাকিস্তান পুরস্কার লাভ করেন। পুস্তক প্রকাশনার ক্ষেত্রে অবদানের জন্য ১৯৭৮ সালে জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র তাকে স্বর্ণপদক (মরণোত্তর) ভূষিত করে। ১৯৭৫ সালের ৩০ জানুয়ারি তার মৃত্যু হয়।

http://www.munshigonj.com/Famous/zLiterature/NasirAliBangla.htm

[ad#co-1]

Leave a Reply