ঢাকার যানজট নিরসনে বিকল্প প্রস্তাব

অ র বি ন্দ রা য়
ঢাকা শহরের অসহনীয় যানজট ও তা নিরসনে সরকারের বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণের কথা শোনা যাচ্ছে। পত্রিকা সূত্রে জানা যায়, সরকার বিশ বছর মেয়াদি এসটিপি (স্ট্র্যাটেজিক ট্রান্সপোর্ট প্ল্যান) বাস্তবায়নের নীতিগত সীদ্ধান্ত নিয়েছে। এই কার্যক্রম কুড়ি বছর ধরে বিরামহীনভাবে চলবে। নগরবাসীকে ভয়াবহ যানজটের অভিশাপ থেকে মুক্তির জন্য সরকার যেসব পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে সেগুলো হলÑ এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে (দোতলা সড়ক), পাতাল রেল (মেট্রো রেল) ও লাইট রেল (স্কাই/মনোরেল)। প্রশ্ন জাগা স্বাভাবিক, যানজটের বিরুদ্ধে হাজার হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে দুই দশক ধরে যে যুদ্ধ পরিচালিত হবে, তার ফলাফল কি নগরবাসীর পক্ষে আসবে, নাকি যানজটের পক্ষেই থাকবে?
জাতীয় যে কোন সমস্যা সমাধানে প্রথমেই আমাদের আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতিকে বিবেচনায় আনতে হবে। যানজট নিরসন প্রসঙ্গে কথায় কথায় আমরা সিঙ্গাপুর, মালেশিয়া, ইউরোপের উদাহরণ টানিÑ ‘সেখানে এভাবে চলছে’। কিন্তু একটি বিষয় সবাইকে ভাবতে হবে, তারা উন্নত দেশে। তারা কনকর্ড বিমান তৈরি করে দীর্ঘদিন ব্যবহারের পর খরচ বেশি হওয়ার কারণে চালানো বন্ধ রেখেছে। পক্ষান্তরে আমরা নসিমন-ভটভটি পর্যায়েই আছি। যার ইঞ্জিনটিও বাইরে থেকে আনা। প্রতিবেশী দেশ ভারতের কথাই ভাবুনÑ ক্ষুদ্র, মাঝারি ও ভারি এমন কোন শিল্প নেই, যার কলকব্জা তারা তৈরি করছে না। তাদের কাছে মেট্রো বা পাতাল রেল নির্মাণ কঠিন নয়। কাজেই আমাদের সমস্যাকে আমাদের মতো করেই ভাবতে হবে। সেটিকে কুয়েতের আদলে ভাবলেও চলবে না। কেননা কুয়েতে মাটি খুঁড়লে বের হয় তেল। আমাদের বের হয় পানি।
পরিবহন ব্যবস্থায় শুরু থেকে আমরা আমাদের আদি যোগ্যতার ক্রমোন্নয়নের চেষ্টা করিনি। ঠিক তার পরের ধাপ থেকেই বিদেশী প্রযুক্তিকে গ্রহণ করেছি। সে কারণে গতিসম্পন্ন যানবাহন ব্যবহার করার পরও অনেক ক্ষেত্রেই আমরা সেসবের পূর্ণ সুবিধা আদায় করতে পারছি নাÑ না গতি, না স্বস্তি, না সামাজিক নিরাপত্তা। অনেক সময় এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয় যে, কোন এক জায়গায় হেঁটে গেলে যে সময় ব্যয় হয়, বাসে গেলেও ঠিক একই সময় লাগে। বিষয়টি আমাদের আদি পদব্রাজক অবস্থানকেই মনে করিয়ে দেয়। তাই একেকবার মনে হয়, আমরা গোটা দেশকে আধুনিকতার চাদরে যতই ঢেকে দিই না কেন, আদি অবস্থানের বলয় কখনোই আমাদের পিছু ছাড়বে না। কাজেই ঢাকার আতংকিত যানজট নিরসনে আমরা বিদেশ-নির্ভর যত প্রযুক্তিই স্থাপন করি না কেন, তার কোনটিই আমাদের অস্বস্তির হাত থেকে মুক্তি দিতে পারবে না। যানজট নিরসনে আমরা যদি আমাদের নিজস্ব কৌশলের প্রয়োগ ঘটাতে না পারি, তাহলে কুড়ি বছর পর আমাদের চলাচল কখনোই স্বস্তিদায়ক হবে না।
সড়ক ও জলপথযোগে ঢাকার প্রবেশদ্বার মোট ছয়টি। এগুলো হলÑ নবীনগর, চিটাগাং রোড, সূত্রাপুর ব্রিজ, গাজীপুর চৌরাস্তা, সদরঘাট ও কমলাপুর। ঢাকা শহরে যত যানবাহন আছে যেমনÑ রিকশা, বাস, প্রাইভেট কার, জিপ, সিএনজি, মিশুক, লরি, ট্রাক, হিউম্যান হলার, পিকআপ ভ্যান, ঠেলাগাড়িসহ সব যানবাহনকে ঢাকার প্রবেশদ্বারের বাইরে কল্পনা করুন। অর্থাৎ ঢাকার সব রাস্তাঘাট তখন পুরোপুরি ফাঁকা। ঢাকার ভেতরে কোন গাড়িগুলো স্থায়ীভাবে চলাচল করবে সেগুলোকে এখন ঢাকায় প্রবেশ করাতে হবে। এ তালিকার প্রথম সারিতে থাকছে জরুরি সার্ভিস ও ভিআইপি, ভিভিআইপিদের গাড়ি। এই গাড়িগুলো ব্যতীত বাদবাকি সব যানবাহনই থাকবে ঢাকার প্রবেশদ্বারের বাইরে। এখন প্রশ্ন জাগতে পারে, দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত ও বিশাল ঢাকাবাসী কিভাবে চলাচল করবে। তাদের জন্য থাকবে আরামদায়ক ও শতভাগ সামাজিক নিরাপত্তাসহ বিশেষ বাহন। আপনারা কেউ শাহবাগের শিশুপার্কে গেলে সেখানে একটি ছোট রেলগাড়ি দেখতে পাবেন। সেই রেলগাড়ির আদলে নির্মিত গাড়িগুলোই হবে আমাদের চলাচলের মূল বাহন।
ঢাকায় চলাচলকারী বড় ও মাঝারি বাসগুলোকে এই রেলগাড়িতে রূপান্তর করা যেতে পারে। এই রূপান্তরে কোন কারিগরি জটিলতা নেই। যে কোন সাধারণ মানের ওয়ার্কশপকে বুঝিয়ে বললে তারা অল্প সময়ে তা রূপান্তর করে দিতে পারবে। হালকা গড়নের গাড়িগুলোর গঠন প্রকৃতি হবে অবিকল শিশুপার্কের সেই রেলগাড়িটার মতো। ঢাকার প্রবেশদ্বার থেকে প্রতি দুই-এক মিনিট পরপর এই গাড়িগুলো মূল শহরের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। তার জন্য বসাতে হবে সহজ রেলপথ। পত্রিকা সূত্রে জানা যায়, ঢাকা শহরে মোট সড়কের দৈর্ঘ্য ৩২০২ কিলোমিটার। তার মধ্যে প্রধান সড়কের পরিমাণ মাত্র ৩০০ কিলোমিটার। অর্থাৎ নবীনগর টু সদরঘাট কিংবা গাজীপুর চৌরাস্তা টু চিটাগাং রোড এসব প্রশস্ত সড়কের একধার দিয়ে প্রথমে বসাতে হবে এই রেলপথ। রোড ডিভাইডারের দুই পাশে ফুটপাতের দিক থেকে মাত্র আট ফুট করে জায়গা নেয়া হলে এই রেললাইন বসানো সম্ভব হবে। একই পথে ব্রড ও মিটারগেজ বসানোর মতো দুই ধরনের রেললাইন বসানো থাকবে। ব্রডগেজ টাইপের লাইন দিয়ে একশ’ সিটের গাড়ি ও মিটার গেজ টাইপের লাইন দিয়ে ষাট সিটের গাড়ি চলাচল করবে। বর্তমানে চলাচলরত বাসগুলোকে রেলগাড়িতে রূপান্তর করা যাবে। গাড়িগুলো একই নিয়ন্ত্রণে চলবে। মোট মুনাফাকে সিট সংখ্যার মালিকানা ভিত্তিতে বণ্টন করার ব্যবস্থা থাকবে। এর ফলে পথে গাড়ি দাঁড় করিয়ে যাত্রী ওঠানোর জন্য কোনরকম তোড়জোড় থাকবে না।
বাংলাদেশ এখন স্টিলের কাজে অনেক দক্ষ। এই রেলপথগুলো বসানো হবে সম্পূর্ণ নিজস্ব প্রযুক্তিতে এবং তা বসানোর জন্য সময় ব্যয় হবে মাত্র দুই মাস। কাজটির মধ্যে যেহেতু কারুকার্যের কোন বালাই নেই, তাই মোট তিনশজন ঠিকাদারকে এক কিলোমিটারের ওয়ার্ক অর্ডার দেয়া হলে কাজ বুঝিয়ে নিতে সময় লাগবে মাত্র দুই মাস। অন্যদিকে বর্তমানে চলাচলরত বাসগুলোকে সেই রেলগাড়ির ডিজাইন অনুযায়ী রূপান্তর করতে সময় লাগবে সর্বোচ্চ চার মাস। এ ক্ষেত্রে তৃতীয় মাস থেকেই পরীক্ষামূলকভাবে শিশুপার্কের সেই রেল গাড়িটার মতো গাড়ি যে কোন রুটে চলাচল শুরু করতে পারবে। এই পদ্ধতিতে যে পরিমাণ যাত্রী পরিবহন করা সম্ভব হবে, বাড়তি যাত্রীরা ঢাকার প্রবেশদ্বার থেকে সরকার নিয়ন্ত্রিত বাসে চলাচল করবে। এই বাসগুলো হবে অত্যন্ত ব্যয় ও বিলাসবহুল। এই চলাচলে ভ্রমণ কর আরোপ করা।
চলাচলের মাধ্যম হিসেবে এই প্রথা চালু হলে ক্ষতিগ্রস্ত পেশাজীবীদের আতংকিত হওয়ার কোন কারণ নেই। এই প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য তাদের বর্তমান বাহন ও শ্রম দুটোকেই কাজে লাগানো হবে। সেই ভিত্তিতে তারা মূল্যায়ন পাবে। এর বাইরে যারা ব্যক্তিগত গাড়ি রাখতে চাইবেন তা রাখতে পারবেন বিশেষ শর্তে। শর্তটি হল করারোপ।
উপরোক্ত পদ্ধতির সুবিধাগুলোর মধ্যে প্রথমেই যে সুবিধাটি পাওয়া যাবে তা হল, ঢাকায় আনুমানিক যে দশ লাখ রিকশাচালক আছে তারা সন্তুষ্টচিত্তে গ্রামে ফিরে যেতে পারবে। তারা তাদের নিজ নিজ এলাকায় গিয়ে এ দেশের অর্থনীতির ভিত্তি কৃষি শিল্পে নিজেকে নিয়োজিত করতে পারবে।
অফিসগামী ও অফিসফেরত প্রতিটি মানুষ যানজটের কবলে পড়ে দিনে গড়ে তিন ঘণ্টা সময় জীবন থেকে হারিয়ে ফেলছে, তা তারা ফিরে পাবে। এই সময়কে অর্থে রূপান্তরিত করলে জাতি অর্থনৈতিক দিক দিয়ে উপকৃত হবে। বর্তমান ব্যবস্থার গাড়িগুলোই সিএনজিচালিত রেলে রূপান্তরিত করা যাবে। ফলে এই কার্যক্রমে সরকারের ওপর বাড়তি কোন চাপই থাকবে না। সরকার বর্তমান বিনিয়োগ হিসেবে শুধু রেললাইনগুলো বসিয়ে দেবে। সেই টাকা পরবর্তী সময়ে চলাচলকারীদের কাছ থেকে আদায় করতে পারবে। তাছাড়া যানজট নিরসনে ভবিষ্যতে স্থাপনা ধ্বংস করে রাস্তা প্রশস্ত করার যে পরিকল্পনা তা কোনদিনও করার প্রয়োজন পড়বে না। এখানে রাস্তা খোঁড়াখুঁড়িরও কোন ঝামেলা নেই। এই পদ্ধতিতে যানজটহীনভাবে চলার কারণে আড়াই ঘণ্টার ভ্রমণ আধাঘণ্টায় সম্ভব হবে। ফলে আমরা বিশাল জ্বালানি অপচয়ের হাত থেকে মুক্তি পাব।
অরবিন্দ রায় : টেক্সটাইল প্রকৌশলী
arabindaroy2003@yahoo.com

Leave a Reply