মুন্সিগঞ্জ বিএনপির কমিটি গঠন নিয়ে বিরোধ

কেন্দ্রে পাল্টাপাল্টি কমিটি জমা পড়েছে
মুন্সিগঞ্জে বিএনপির দুই পক্ষ পাল্টাপাল্টি কমিটি কেন্দ্রে জমা দিয়েছে। এতে দুই পক্ষের বিরোধ আরও তীব্র আকার ধারণ করেছে। গত শনিবার ছয় যুগ্ম আহ্বায়ক ৫১ সদস্যের কমিটি দলীয় চেয়ারপারসনের বরাবরে জমা দিয়েছেন। এর আগে আহ্বায়ক মিজানুর রহমান সিনহা একটি কমিটি জমা দিয়েছিলেন।

দলীয় সুত্রে জানা গেছে, পাল্টা জমা দেওয়া ছয় যুগ্ম আহ্বায়কের স্বাক্ষরিত ৫১ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটিতে সাবেক তথ্যমন্ত্রী এম শামসুল ইসলাম, সাবেক উপপ্রধানমন্ত্রী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক কাজী আজিজুল হক লেবু, সাবেক সাংসদ উইং কমান্ডার হামিদুল্লাহ খান ও লৌহজং উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফকু ব্যাপারীসহ ১৫ জনের নাম রয়েছে। তাঁদের অভিযোগ, আগের কমিটিতে তাঁদের নাম বাদ দেওয়া হয়েছিল। এ ছাড়া ওই কমিটি গঠনে তাঁদের মতামত নেওয়া হয়নি।
স্বাক্ষরিত ছয় যুগ্ম আহ্বায়কেরা হলেন শাহজাহান শিকদার, শফি বিক্রমপুরী, সাইফুল ইসলাম, মীর সরফত আলী সপু, রহিমা শিকদার ও আতাউর রহমান।

দলীয় সুত্রে জানা গেছে, বর্তমাণ আহ্বায়ক মিজানুর রহমান সিনহা গত বৃহস্পতিবার ৫১ সদস্যের একটি কমিটি দলীয় চেযারপারসনের বরাররে কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে জমা দিয়েছিলেন।

জানা গেছে, গত ৯ জুন দেশের ৭১টি জেলা আহ্বায়ক কমিটির সঙ্গে মুন্সিগঞ্জেরও একজন আহ্বায়কসহ নয়জন যুগ্ম আহ্বায়ক নিযুক্ত করা হয়। পরে আরও তিনজনকে আহ্বায়ক কমিটিতে যুক্ত করা হয়। একই সঙ্গে আহ্বায়ক কমিটিকে ২৫ জুনের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করে কেন্দ্রে জমা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

আহ্বায়ক মিজানুর রহমান সিনহা বলেন, ‘আমরা যে ১৩ জন কমিটিতে আছি, তাদের সবার সঙ্গে কথা বলে সম্পুর্ণ গণতান্ত্রিক উপায়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি জমা দিয়েছি। এখন ওই কমিটি অনুমোদন দেবে কি দেবে না এটা কেন্দ্রের ব্যাপার।’ তিনি বলেন, যা কিছু করা হয়েছে, সবার মতামতের ভিত্তিতেই করা হয়েছে।

++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++

কেন্দ্রে জমা পড়েছে দুটি কমিটি – মুন্সীগঞ্জ বিএনপি

মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে বিরোধের জের ধরে পাল্টা কমিটি গঠন করে কেন্দ্রে জমা দিয়েছেন কমিটির ছয় যুগ্ম আহ্বায়ক। এ ঘটনায় দলীয় বিভেদ বেড়েছে। তৃণমূল নেতাকর্মীরা হয়ে পড়েছে দ্বিধাবিভক্তি। অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে অধিকাংশ নেতাকর্মী উদ্বিগ্ন ও হতাশ হয়ে পড়েছে। ৫১ সদস্যবিশিষ্ট পাল্টা এ কমিটিতে আহ্বায়ককে অপরিবর্তিত রেখে নতুন পাঁচজনকে সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। জেলা বিএনপির আহ্বায়ক মিজানুর রহমান সিনহা তার একক সিদ্ধান্তে গঠিত ৫১ সদস্যের কমিটিতে অনেক ত্যাগী ও গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বকে বাদ রেখেছেন বলে তারা অভিযোগ তুলেছেন। পাল্টা কমিটিতে যাদের রাখা হয়েছে তারা হলেন সাবেকমন্ত্রী ও স্থায়ী কমিটির সদস্য এম শামসুল ইসলাম, বিএনপির প্রভাবশালী নেতা শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, সাবেক সংসদ সদস্য উইং কমান্ডার (অব). হাসিদুল্লাহ খান বীর-প্রতীক, জেলা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক কাজী আজিজুল হক লেবু এবং লৌহজং বিএনপি সভাপতি সিরাজুল আলম ফুকু।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আহ্বায়ক মিজানুর রহমান কর্তৃক গঠিত ৫১ সদস্যের কমিটির বিরোধিতা করেছেন যেসব যুগ্ম আহ্বায়ক তারা হলেন শাহজাহান সিকদার, মীর সরাফত আলী সপু, ইঞ্জিনিয়ার সাইফুল ইসলাম, রহিমা সিকদার, শফি বিক্রমপুরী ও শেখ আতাউর রহমান। দলীয় চেয়ারপারসনকে সংবোধন করে তারা শনিবার বিএনপির মহাসচিবের কাছে পাল্টা কমিটি জমা দিয়েছেন। এদিকে ৮ জুন সাবেক প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহাকে আহ্বায়ক করে নয়জনকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে ১০ সদস্যবিশিষ্ট মুন্সীগঞ্জ বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। কেন্দ্রীয় নির্দেশ মতে, ২৫ জুন আহ্বায়ক কর্তৃক ৫১ সদস্যের একটি পূর্ণাঙ্গ আহ্বায়ক কমিটি গঠন করে কেন্দ্রে পাঠানো হয়। নতুন তিনজন আহ্বায়কসহ বাকি ৪১ সদস্য নিয়ে আপত্তি তোলেন ছয় যুগ্ম আহ্বায়ক। নতুন যুগ্ম আহ্বায়করা হলেন নজরুল ইসলাম বাচ্চু, শাহজাহন খান ও শ্রীনগর বিএনপির সভাপতি মমিন আলী।

জেলা বিএনপি আহ্বায়ক মিজানুর রহমান সিনহা জানান, জেলা বিএনপির পাল্টা আহ্বায়ক কমিটি গঠন সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না। এ ব্যাপারে আমার ইন্টারেস্ট নেই। দল যে সিদ্ধান্ত নেবে আমি তা মেনে নেব।

জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক শাহজাহান সিকদার জানান, অনেক ত্যাগী ও গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিকে জেলা কমিটিতে না রেখে আহ্বায়ক মিজানুর রহমান সিনহা তার একক সিদ্ধান্তে কমিটি গঠন করেছেন, যা কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের পরিপন্থী। তার নিজস্ব বলয় সৃষ্টি করে রাজনৈতিক সুবিধা আদায়ের লক্ষ্যে এ ধরনের কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমরা এই কমিটি মানি না।

[ad#co-1]

Leave a Reply