মাওয়াঘাটের যাত্রীরা স্বস্তিতে

১৮ বছর পর মাওয়াঘাটের চিত্র পাল্টেছে। লঞ্চের ভাড়া এখন লঞ্চ কর্তৃপক্ষই স্বাভাবিকভাবে আদায় করছে। তাই ব্যস্ততম এই ঘাটে যাত্রী হয়রানি অনেক হ্রাস পেয়েছে। গত বুধবার থেকে এই ভিন্ন চিত্র বিরাজ করছে এখানে। এর আগে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌ রুটে চলাচলকারী লঞ্চগুলো যাত্রী বহন করলেও লঞ্চে ভাড়া আদায় করতে পারছিল না। টাকার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াও যাত্রী হয়রানির ঘটনা ছিল নিত্য দিনের।

জেলা পরিষদের খেয়া ঘাট এবং বিআইডব্লিউটিএ’র লঞ্চ ঘাট ইজারাদার লঞ্চের ভাড়া আদায় করে নিত। পরে জনপতি হিসাব করে সামান্য ভাড়া পরিশোধ করা হত। এখন জেলা পরিষদের খেয়া ঘাট ৩ টাকা, বিআইডব্লিউটিএ’র লঞ্চ ঘাট ইজারাদার ২ টাকা করে নিয়মানুযায়ী ভাড়া কাটে। আর লঞ্চের ভাড়া লঞ্চ টিকিট মাস্টার (কেরানী) জনপ্রতি ১২ টাকা করে আদায় করছে। এতে যাত্রীদের যেমন হয়রানি বন্ধ হয়েছে,তেমনি লঞ্চ মালিকরা তাদের অধিকার ফিরে পেয়েছে। এব্যাপারে এমএল নিপ্পন লঞ্চের মালিক এবং লঞ্চ মালিক সমিতির মাওয়া জোনের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন খান সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, আমরা অনেক খুশি এখন। ইজারাদার সিন্ডিকেটের রাহুগ্রাসের অবসান ঘটলো দীর্ঘ ১৮ বছর পর। জেলা প্রশাসক মো. মোশারফ হোসেন বলেন, আমরা আইনের মধ্যে থেকে জনস্বার্থে সব রকম প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদের খেয়া ঘাটের টোল আদায় করছে এখন জেলা পরিষদেরই লোকজন।

Leave a Reply