মুন্সীগঞ্জে নদীভাঙনে ক্ষতিগ্রস্তদের ভাগ্য বদল হচ্ছে না

পদ্মার প্রবল স্রোতে কোনো কিছুই যেন বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে না। তবে সরকারের কোটি কোটি টাকার প্রকল্প কতিপয় মানুষের ভাগ্য বদলে দেয় কিন্তু নদী ভাঙনের শিকার হাজার হাজার মানুষ বসতভিটা হারিয়ে অর্ধাহারে থাকলেও তাদের ভাগ্যের বদল হচ্ছে না। এটাই কি নিয়তি ? গত শুক্রবার লৌহজং উপজেলার ডহুরী এলাকার নদী ভাঙনের শিকার বৃদ্ধ কফিলউদ্দিন মিয়া এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে এমনই মন্তব্য করেন। জানা গেছে, গত ১৫ বছরে লৌহজং উপজেলার ৩৮ টি গ্রাম পদ্মায় বিলীন হয়ে গেছে। প্রতিবছরের ন্যায় এবারও ভাঙন তাণ্ডব শুরু হয়েছে। বর্তমানে ডহুরী, কলমা, সামুরবাড়ি, ভাগ্যকুল,বাঘরা, মাওয়া, হাসাইল বানরী ও পাঁচগাঁও এলাকায় ভাঙন চলছে। তা প্রতিরোধে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ না নেয়ায় বিলীন হয়ে যাচ্ছে টঙ্গিবাড়ি, লৌহজং ও শ্রীনগর উপজেলার বিস্তীর্ণ জনপদ। এদিকে টঙ্গিবাড়ির হাসাইল বানারীতে ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত প্রতিরক্ষা বাধটি নির্মাণের কয়েক মাসের মধ্যে নদীগর্ভে চলে যায়। বর্তমানে ৭২ কোটি টাকা ব্যয়ে ওইস্থানে বাঁধ নির্মাণের কাজ চলছে। পদ্মার প্রবল স্রোতে এই বাঁধেরও টিকে থাকার গ্যারান্টি নেই বলে জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্তরা।

[ad#co-1]

Leave a Reply