একটি ব্রিজের অভাবে

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলা সদর থেকে রসূলপুর-বাগাইয়াকান্দি সড়কের আন্ধারমানিক নদীতে একটি মাত্র সেতুর অভাবে নিম্নাঞ্চলের ৫০ হাজার লোকের যাতায়াতে অসুবিধা হচ্ছে। উপজেলা সদর থেকে মাত্র দেড় কিলোমিটার দূরে রসূলপুর-বাগাইয়াকান্দি সড়কের সংযোগস্থলেই আন্ধারমানিক নদীতে খেয়াঘাট। ইমামপুর ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চলের এ খেয়াঘাট দিয়ে হোগলাকান্দি, বাগাইয়াকান্দি, ইমামপুর, দৌলতপুর, করিম খাঁ, কালীপুর, ষোলআনী, জটিলতা গ্রামের লোকজন, গুয়াগাছিয়া ইউনিয়ন ও চাঁদপুরের মতলব থানার প্রায় ৫০/৬০ হাজার লোক যাতায়াত করে। এলাকাবাসী দুঃখ করে বলেন, স্বাধীনতার পর দেশে বেশ ক’দফা রাষ্ট্রপ্রধান পরিবর্তন হলেও এ অঞ্চলের জনগণের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটেনি। দেশে যতবারই সংসদ ও উপজেলা নির্বাচন হয়েছে প্রার্থীরা এ নদীতে একটি ব্রিজ নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট আদায় করার পর ভুলে গেছে। জনপ্রতিনিধিদের প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন হয়নি আজও। উপজেলা সদরের সঙ্গে নিম্নাঞ্চলের ১০/১২টি গ্রামের সরাসরি সড়ক যোগাযোগের জন্য কয়েক কোটি টাকার সড়ক নির্মাণ ও ব্রিজ, কালভার্ট নির্মিত হলে এলাকাবাসীর কোন কাজে আসছে না।

আন্ধারমানিক নদীতে একটি ব্রিজের অভাবে এ অঞ্চলের মানুষকে উপজেলা সদর ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যোগাযোগ করার জন্য মান্ধাতা আমলের নৌকা ব্যবহার করতে হয়। এছাড়া সরাসরি সড়ক যোগাযোগের অভাবে এ এলাকার উৎপাদিত আলু তিল, সরিষা, ভুট্টা, পাটসহ কৃষিপণ্য বিভিন্ন স্থানে যাতায়াতে বিলম্ব ও খরচ বেশি পড়ছে। এলাকাবাসী সরকার ও প্রতিনিধিদের কাছে এ খেয়াঘাটে একটি ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন।

[ad#co-1]

Leave a Reply