মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের বেহাল দশা : অস্ত্রোপচার বìধ

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পর্যাপ্ত ডাক্তার, নার্স ও জনবল না থাকায় জেলার স্বাস্খ্যসেবা ভেঙে পড়েছে। রোগীদের শামাল দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে ডাক্তারদের। আনেসথেসিয়ার ডাক্তার না থাকায় গাইনীসহ বিভিন্ন অপারেশন বìধ। প্যাথলজিস্ট না থাকায় বিভিন্ন রোগের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা যাচ্ছে না। এ ছাড়াও ডাক্তারদের বিরুদ্ধে রয়েছে বিভিন্ন অভিযোগ।

মুন্সীগঞ্জে ১৫ লাখ লোকের বসবাস। তাদের স্বাস্খ্যসেবা নিশ্চিত করতে ৩৩ শয্যার মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালকে প্রথমে ৫০ শয্যা ও পরে গত জোট সরকার আমলে ১০০ শয্যায় রূপান্তর করে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল নামকরণ করা হয়। ওই সময় অবকাঠামোর উন্নয়ন সাধন ও সিট বাড়ানো হলেও চাহিদা মোতাবেক ডাক্তার-নার্সসহ জনবল বাড়ানো হয়নি। ফলে রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়লেও সে মোতাবেক চিকিৎসাসেবা দিতে পারছেন না কর্তৃপক্ষ। প্রতিনিয়ত হিমশিম খাচ্ছেন কর্তব্যরত ডাক্তার ও নার্সরা।

রোগীদের এ হাসপাতাল সম্পর্কে রয়েছে বিস্তর অভিযোগ। তারা বলেন, ডাক্তাররা ঠিকমতো অফিস করেন না। দূর-দুরান্ত থেকে দিনের পর দিন এসেও ডাক্তারদের সময়মতো পাওয়া যায় না। পাওয়া যায় না পর্যাপ্ত ওষুধ। আউটডোরে ব্রাদার দিয়ে রোগী দেখানো হয়। তারা আরো বলেন, কিছু ডাক্তারের ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধির সাথে এতটাই সখ্য যে, রোগীদের তাদের দেয়া ওষুধ দেখিয়ে নিয়ে যেতে হয়। পরীক্ষার নামে টাকা আদায়ের কৌশল অবলম্বন করেন অনেকে। তাদের পছন্দ মতো ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পাঠানো হয়। অনেককে আবার ডাক্তারদের চেম্বারের সিরিয়াল মেইনটেইন করতে দেখা যায়। অনেক সিনিয়র নার্স রোগীদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন। ওষুধ চুরির দায়ে একাধিক নার্সের বিরুদ্ধে মামলার রেকর্ড আছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগীদের আরো অভিযোগ কোনো সিভিল সার্জনের এলপিআরে যাওয়ার কিছুদিন আগে মুন্সীগঞ্জে পাঠানো হয়। এতে স্বাস্খ্য ব্যবস্খায় বিঘí ঘটছে।

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ছয় মাসে তিনজন সিভিল সার্জন অবসরে যাওয়ায় একজন ডাক্তারকে তিনবার ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন হতে হয়েছে। সিভিল সার্জন মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে থাকেন।

বর্তমানে ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা.আব্দুর রশীদ নয়া দিগন্ত কে জানান, ডাক্তারদের বেশির ভাগই ঢাকা থেকে আসেন। এজন্য দেরি হয়। তাদের বিরুদ্ধে অন্য যে অভিযোগ আছে, তা ক্ষতিয়ে দেখা হবে। সার্বিক ব্যবস্খাপনার পরিবর্তন না হলে জেলার স্বাস্খ্যসেবা ব্যাহত হওয়া স্বাভাবিক।

[ad#co-1]

Leave a Reply