বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি ও প্রধান উপদেষ্টাসহ অনেকেই বিভিন্ন দেশের ইমিগ্র্যান্ট

সাবেক একজন রাষ্ট্রপতি, একজন প্রধান উপদেষ্টা, সাবেক ও বর্তমান মন্ত্রী পরিষদের সিংহভাগ সদস্য এবং ঊর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তাদের বড় একটি অংশ বিভিন্ন দেশের ইমিগ্র্যান্ট হিসেবে তালিকাভুক্ত রয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া প্রভৃতি দেশের নাগরিকত্ব গ্রহণকারী স্বজনের মাধ্যমে এসব ব্যক্তি গ্রিনকার্ড পেয়েছেন অথবা নাগরিকত্ব নিয়েছেন বলে জানা গেছে। এছাড়া সাবেক ও বর্তমান এমপি, সচিব পর্যায়ের একাধিক কর্মকর্তা এবং বক্তৃতা-বিবৃতিতে হরদম যুক্তরাষ্ট্রকে ‘সাম্রাজ্যবাদী’, ‘আধিপত্যবাদী’ এবং ‘মানবতার দুশমন ও সম্প্রসারণবাদী’ হিসেবে অভিহিত করেন-এমন কয়েকজন রাজনীতিকও ইমিগ্র্যান্ট হয়েছেন কয়েক বছর আগে। ইতোমধ্যেই মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে সাবেক প্রধান উপদেষ্টা ড. ফখরুদ্দীন আহমেদ যুক্তরাষ্ট্রের গ্রিনকার্ডধারী। সাবেক প্রেসিডেন্ট ইয়াজউদ্দিন আহমেদও কয়েকবছর আগে পাশ্চাত্যের একটি দেশের ইমিগ্র্যান্ট হয়েছেন তার ঘনিষ্ঠ একজন আত্মীয়ের স্পন্সরে-এমন সংবাদও জানা গেছে। তবে পুত্র-কন্যারা যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার ইমিগ্র্যান্ট হওয়া সত্ত্বেও তিনি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কোনো দেশেই ইমিগ্র্যান্ট হওয়ার আবেদন করেননি। একইভাবে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াও ইমিগ্র্যান্ট হতে কখনোই আগ্রহ ব্যক্ত করেননি।

রাষ্ট্রপতি এবং মন্ত্রী পরিষদের সদস্য কিংবা জাতীয় সংসদের সদস্যবর্গ ভিন্ন দেশের ইমিগ্র্যান্ট হবেন-এটা আপত্তির হতে পারে না বলে সুধিজনের ধারণা। প্রসঙ্গত, ইমিগ্র্যান্টদের দেশ আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হতে পারেন না ইমিগ্র্যান্ট হিসেবে চিহ্নিতরা। কেবল তারাই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হতে পারেন যারা জন্মগতভাবে আমেরিকান। তবে সিনেটর-কংগ্রেসম্যান বা স্টেট গভর্নর হতে পারেন যে কেউ (অবশ্য অবৈধভাবে বসাসরতরা নন)। যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের এসব বিধি পরিবর্তনের কথা অতি সম্প্রতি উঠেছিল, কিন্তু অধিকাংশ আমেরিকানের অনুমোদন মেলেনি। খবর: এনা

[ad#co-1]

Leave a Reply