বড় রাজনৈতিক দলগুলোর দেশপ্রেম না থাকায় সমুদ্র সীমানা নির্ধারণে উদাসীন: অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী

আমারা সমুদ্র সীমানার ওপর থেকে অধিকার হারাতে বসেছি। বড় রাজনৈতিক দলগুলোর দেশপ্রেম না থাকায় সমুদ্র সীমানা নির্ধারণে তারা উদাসীন বলে উল্লেখ করেছেন অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী। গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশের সামুদ্রিক অঞ্চল ও সম্পদ রক্ষা জাতীয় কমিটি আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ভারত ও মিয়ানমারের দাবির বিপক্ষে আমাদের তথ্য উপাত্ত এখনই উপস্থাপন করা জরুরি। প্রয়োজনে দেশীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে জনমত গঠনের চেষ্টা করা প্রয়োজন।

অর্থনীতিবিদ আনু মুহাম্মদ বলেন, ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশ সমুদ্র বিষয়ক আইন করলেও এর মধ্যে কিছু সংশোধনী প্রয়োজন। এছাড়া ২০০১ সালে বাংলাদেশ জাতিসংঘ সমুদ্র আইন ১৯৮২ (ইউনাইটেড ন্যাশন কনভেনশন অন দ্যা ল অব দ্য সি ১৯৮২, আনক্লস) রেটিফাই করে একটি টেকনিক্যাল কমিটি গঠন করলেও এটি কোনো কাজ করেনি। ভারত ও মিয়ানমার সমুদ্র সীমার বিষয়ে যে রিপোর্ট জমা দিয়েছে তার মূলে ছিলেন এক ব্যক্তি যিনি ভারত ও মিয়ানমারের পক্ষে কাজ করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে একটি আলাদা সমুদ্র অধিদফতর, ১৯৭৪ সালের আইন পরিবর্তন, দ্রুত জরিপ চালানো, সমুদ্র এলাকার ব্লকগুলোতে অধিকার প্রতিষ্ঠা ও জরিপের বিষয়টি আন্তর্জাতিকভাবে তুলে ধরার দাবি জানানো হয়।

অন্যদের মধ্যে সাবেক বিচারপতি গোলাম রাব্বানী, প্রকৌশলী শেখ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ, অধ্যাপক রমজুল হক, প্রকৌশলী ম. ইনামুল হক, নূর মোহাম্মদ প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

[ad#co-1]

Leave a Reply