মুন্সীগঞ্জে ২৭ খুন

মহাজোট সরকারের ৬ মাস
আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের শাসনামলের ছয় মাসে জেলার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। খুন, ধর্ষণ, লুটপাট, ছিনতাই, চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকা- বেড়েছে। ছয় মাসে মুন্সীগঞ্জে ২৭ জন খুন হয়েছে। এছাড়া পাঁচটি ডাকাতি, দুটি দস্যুতা, চারটি দাঙ্গা-হাঙ্গামা, ৩৭টি ধর্ষণ, ৩৮টি দুঃসাহসিক চুরি ও সিঁধেল চুরির ঘটনা ঘটেছে ১৭টি। মুন্সীগঞ্জ পুলিশের একাধিক সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে। বেসরকারি হিসাবে এসব ঘটনার সংখ্যা দ্বিগুণ হবে বলে জানা গেছে। মহাজোট সরকারের ছয় মাসে ২৭ হত্যাকা-ে মুন্সীগঞ্জের নিরীহ মানুষের মাঝে উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। সাধারণদের জীবনযাপন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে বলে অনেকেই মন্তব্য করেছেন।

জানা গেছে, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট ক্ষমতায় আসার পর জেলা সদরের চরাঞ্চলের আধারা ইউনিয়নের জাজিরা-কুঞ্জনগরে বিএনপি সমর্থিত শ্বশুর-জামাই ডাবল খুনের ঘটনাটি জেলার সবচেয়ে আলোচিত হয়। মহাজোট সরকারের আমলে ২ ফেব্রুয়ারি ভোরে চরাঞ্চলের জাজিরা-কুঞ্জনগরে আওয়ামী লীগ সমর্থক বেপারি গোষ্ঠীর লোকজনের হামলায় গুলি, বোমা বিস্ফোরণ ও পিটুনিতে এ খুনের ঘটনা ঘটে। এতে বিএনপি সমর্থিত খাঁ গোষ্ঠীর শ্বশুর আলমাছ বেপারি (৬২) ও তার মেয়ের জামাই শাহজাহান খাঁ (৪০) খুন হয়। এ ঘটনায় আওয়ামী লীগ সমর্থক ৩৫ নেতাকর্মীর নামে সদর থানায় মামলা করা হয়েছে।

এদিকে মে মাসে সদরের কালিঞ্চি পাড়া এলাকায় পল্লী চিকিৎসক অনূকুল চন্দ্র দাসকে রাতের আধারে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি উপজেলার দীঘিরপাড়ে যুবদল কর্মী দিদার হোসেন (২৫) হত্যাকা-ের ঘটনায় আলোচিত হয় টঙ্গীবাড়ি। ১১ মে টঙ্গীবাড়ি আওয়ামী লীগ সভাপতি জগলুল হালদার ভুতু ও বিএনপি নেতা ওয়ালিউল্লাহ খান গ্রুপের সঙ্গে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনায় দিদার হোসেন নিহত হয়। এ হত্যার ঘটনায় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল বাংলাভিশনের ‘ক্রাইম ওয়াচ’ অনুষ্ঠানের জন্য অনুসন্ধানী প্রতিবেদন তৈরির লক্ষ্যে দীঘিরপাড় এলাকায় একটি টিম সংবাদ সংগ্রহে গেলে আওয়ামী লীগ সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হয়। এতে ওই টেলিভিশন মিডিয়ার পাঁচ সাংবাদিক আহত হন।

১৫ জানুয়ারি জেলার সিরাজদিখান উপজেলার বাড়ৈপাড়া এলাকায় ছোট বোনকে উত্ত্যক্ত করার ঘটনায় বাধা দেয়ায় সন্ত্রাসীদের হাতে খুন হয় কলেজ ছাত্র সাগর হোসেন (১৮)। এদিন বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে সন্ত্রাসীরা খুন করে তাকে। এ ঘটনায় মামলা হলে পুলিশ কয়েক বখাটে-সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করে। এতে ঘটনার ক্লু উদ্ধার হয়। এ ঘটনার ১০ দিন পর ২৫ জানুয়ারি একই উপজেলার বাসাইল গ্রামে অরুন সরকার নামে আরেক ব্যক্তি খুন হয়। সিরাজদিখানের দোসরপাড়ায় ১৩ এপ্রিল সালমা নামে এক যুবতীকে সন্ত্রাসীরা খুন করে।

জেলার শ্রীনগর উপজেলায় ৩১ জানুয়ারি ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে ষোলঘর নামক স্থানে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে ট্রাভেলস এজেন্সির এক কর্মচারীকে। এদিন সকালে ঢাকার ফকিরাপুলের ট্রাভেলস প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী সোহেল হোসেন টিটুকে সন্ত্রাসীরা হত্যা করে মহাসড়কে লাশ ফেলে যায়। তাছাড়া শ্রীনগর বাইপাস সড়কে ১৮ মার্চ অজ্ঞাত যুবককে হত্যা করে লাশ ফেলে যায় সন্ত্রাসীরা।

৩১ মার্চ একই স্থানে আরো এক অজ্ঞাত যুবকের লাশ পুলিশ উদ্ধার করে। জেলার লৌহজং উপজেলার সাতঘরিয়া এলাকায় ৭ জানয়ারি এক যুবককে ঘাড়ে, মাথায় ও পিঠের পেছনে ড্রিল মেশিনে ছিদ্র করে হত্যা করা হয়েছে। ৩০ মার্চ একই উপজেলার খানবাড়ি নামক স্থান থেকে অজ্ঞাত এক মহিলার (৩৫) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এদিকে জেলার গজারিয়া উপজেলার নতুন বলাকী এলাকায় ১৮ জুন আছিয়া বেগম নামের এক গৃহবধূ খুন হন। ১০ এপ্রিল গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দি গ্রামে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা সোহানুর রহমান শিপন হত্যার ঘটনা ঘটে। ১৫ জানুয়ারি রায়পাড়া গ্রামের আবদুল খালেকের ছেলে রাসেলকে (১০) হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। ১৫ মার্চ ইমামপুর গ্রামে গোলবক্সের ছেলে রিয়াজুলকে (৩০) কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ২০ ফেব্রুয়ারি বাউশিয়া ইউনিয়নের বক্সারকান্দি গ্রামে আলী আকবর (৪২) নামে এক ব্যক্তিকে রাতের আঁধারে হত্যা করা হয়েছে। ১৯ মার্চ গুয়াগাছিয়া ইউনিয়নের শিমুলিয়া গ্রামে তুচ্ছ ঘটনায় মো. আলম মিয়ার স্ত্রী নূরজাহানকে পিটিয়ে হত্যা করে প্রতিপক্ষ।

এ প্রসঙ্গে জেলার পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, গত বছরের তুলনায় এবার খুনের ঘটনা কম ঘটেছে। আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে।

[ad#co-1]

Leave a Reply