পদ্মা সেতু হবে দোতলা নিচে চলবে ট্রেন উপরে অন্য যান

আশরাফ খান
মাওয়া থেকে জাজিরা পর্যন্ত ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতুর পুরোটা হবে দোতলা। নিচে চলবে ট্রেন, দোতলায় অন্য যান। কংক্রিটের সঙ্গে স্টিলট্রাস দিয়ে সেতু নির্মাণ করা হবে। এতে প্রায় দু’হাজার কোটি টাকা বেশি ব্যয় হবে। এ নিয়ে রেলসহ সেতু, সড়ক নির্মাণে মোট ব্যয় হবে ১৬ হাজার ৬৮০ কোটি টাকা। তবে সেতু এতটাই শক্ত হবে যে, একশ’ বছরেও এতে হাত দিতে হবে না। যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন সমকালকে জানিয়েছেন, এতে খরচ বাড়লেও মোট নির্মাণ ব্যয় ২ দশমিক ৩৮ বিলিয়ন ডলারের মধ্যেই থাকবে। রেলপথসহ মোট নির্মাণ ব্যয় ২ দশমিক ৪০ বিলিয়ন ডলার হবে বলে প্রাক্কলন করা হয়েছিল।

সেতু বিভাগ সূত্রে জানা যায়, সেতুর ওপর দিয়ে রেললাইন একদিকে ফরিদপুর-রাজবাড়ী-যশোর হয়ে বেনাপোল, অন্যদিকে কালকিনি-বরিশাল হয়ে কুয়াকাটা পর্যন্ত বিস্তৃত হবে। প্রথমে পদ্মা সেতু প্রকল্পের জন্য একনেক অনুমোদিত ব্যয় ধরা হয় ১০ হাজার ১৬১ কোটি টাকা। পরে তা বাড়িয়ে ১২ হাজার ৪২০ কোটি টাকায় নির্ধারিত হয়। দ্বিতল সেতু নির্মাণ ও নির্মাণসামগ্রীর বর্ধিত মূল্য ধরে এখন ব্যয় বেড়ে গেল। উন্নয়ন সহযোগীরা বর্ধিত সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছে। বিশ্বব্যাংক নদীশাসনের জন্য ৩ হাজার ২২০ কোটি টাকা (৪৬০ মিলিয়ন ডলার) দেওয়ার কথা জানিয়েছে।

মোট প্রকল্প ব্যয়ের মধ্যে প্রায় ৬ হাজার কোটি টাকা ব্যয় হবে নদীশাসনে। বাকিটা যাবে রেলপথসহ সেতু ও সড়ক নির্মাণে। উন্নয়ন সহযোগীরা মোট ১ হাজার ১৬৪ দশমিক ৮০ মিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এর মধ্যে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক ৩০০ মিলিয়ন, জাইকা ২০০ মিলিয়ন, ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক ১৩০ মিলিয়ন, আবুধাবি ফান্ড ৩১ দশমিক ৪ মিলিয়ন এবং জেডিসিএফ দেবে ৪৩ দশমিক ৪৮ মিলিয়ন ডলার। বৈদেশিক উৎস থেকে ৮ হাজার ৭০০ কোটি টাকা ও অভ্যন্তরীণভাবে ৪ হাজার কোটি টাকা নিয়ে মোট সম্ভাব্য প্রাপ্তি হবে ১২ হাজার ৭৮০ কোটি টাকা। তারপরও ৪ হাজার ৮০ কোটি টাকার ঘাটতি থেকে যাচ্ছে। গত মাসে উন্নয়ন সহযোগীদের নিয়ে সেতু বিভাগের সচিব বৈঠকে বসেছিলেন। এতে মোট ব্যয় কমিয়ে আনতে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক সেতু প্রকল্প থেকে রেলের অংশ বাদ দেওয়ার প্রস্তাব করেছিল। সরকার তাতে রাজি হয়নি। রেলপথসহ চূড়ান্ত প্রকল্প নকশা সব উন্নয়ন সহযোগীই অনুমোদন করেছে। তবে এখনও অর্থায়নের ব্যাপারটি নিশ্চিত করেনি। গত ১ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ও পদ্মা সেতু প্রকল্পের বৈদেশিক অর্থায়ন সংক্রান্ত সমন্বয়কারী ড. মশিউর রহমান সেতু বিভাগ ও বহিঃসম্পদ বিভাগের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠকে বসেছিলেন। এতে উন্নয়ন সহযোগীদের দ্রুত অর্থায়নের ব্যাপারটি নিশ্চিত করতে বলা হয়।

সেতু বিভাগের সচিব জাহিদ হোসেন বলেন, ডিসেম্বরের মধ্যেই অধিকাংশ উন্নয়ন সহযোগীর সঙ্গে ঋণচুক্তি স্বাক্ষর হবে। তা না হলেও সেতু নির্মাণে আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বানে সমস্যা হবে না। পরে উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে চুক্তি স্বাক্ষরের নিশ্চয়তা পাওয়া যাবে। এডিবির পর্যালোচনা মিশন ৭ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ ঘুরে গেছে। বিশ্বব্যাংক মিশনও দু’মাস আগে এসেছে। এ ব্যাপারে তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে।

পদ্মা সেতুর জন্য সরকার প্রায় ১ হাজার ৪শ’ কোটি টাকার বন্ড বাজারে ছাড়বে। ৪ হাজার ২শ’ কোটি টাকার বন্ড ছাড়ার প্রস্তাব থাকলেও তার প্রয়োজন হবে না বলে সচিব জানান।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের জন্য দেশের পাঁচ শীর্ষস্থানীয় প্রকৌশলীকে নিয়ে গঠিত জাতীয় বিশেষজ্ঞ প্যানেলে রয়েছেন প্রফেসর জামিলুর রেজা চৌধুরী, প্রফেসর ড. আইনুন নিশাত, প্রফেসর ড. এএমএম শফিউল্লাহ, প্রফেসর ড. এম ফিরোজ আহমদ ও প্রফেসর ড. আলমগীর মুজিবুল হক। সেতু প্রকৌশল, জিওটেকনিক্যাল প্রকৌশল, নদীশাসন প্রকৌশল, পরিবেশ ও পুনর্বাসন সংক্রান্ত পাঁচজন বিদেশি বিশেষজ্ঞ সমন্বয়ে বিদেশি বিশেষজ্ঞ প্যানেল গঠন করা হয়েছে।

One Response

Write a Comment»
  1. goog

Leave a Reply