বর্ষায় পদ্মা রিসোর্টে

রাজীব পাল রনী
ঋতুর পালাবদলে রহৃপসী বাংলা সেজে উঠে নানা সাজে ৷ বর্ষার আগমনে প্রকৃতির খেয়ালিপনায় অশ্রুসিক্ত হচ্ছে বাংলার মাঠ-ঘাট ৷ কিল্পস্নু থেমে নেই কর্মব্যস্টস্নতা ৷ বাংলাদেশের নদীনির্ভর জীবনযাত্রার হাজার বছর ধরে সে অপরহৃপ সৌন্দর্য তাই দেশ ও বিদেশের মানুষের কাছে তুলে ধরতে এক ব্যতিকদ্ধমী উদ্যোগ নিয়েছে বেসাকারি প্রতিষ্ঠান ‘টু্যর অপারেটর’ ৷ পদ্মার চরের মধ্যে তারা গড়ে তুলেছে পদ্মা রিসোর্ট ৷ নগরজীবনের যাল্পিপক কোলাহল, বায়ুদহৃষণ এবং সর্বোপরি কর্মজীবনের ব্যস্টস্নতার মাঝে একটু নিরবচ্ছিল্পম্ন শাল্পিস্ন ও আনন্দ-বিনোদনের জন্য নীরব পরিবেশ বা স্ঙ্ট বেছে নেবেন প্রকৃতির স্ট্বাদ উপভোগ করার জন্য ৷ পদ্মার রির্সোট আপনার মনের সেই বাসনা পহৃরণ করতে প্রস্টস্নুত ৷ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য : ভ্রমণপ্রিয়দের আনন্দ দিতে কি নেই এখানে! মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজং থানার নদীর অপর পাড়ে মসজিদের পাশে দাঁড়ালেই পাবেন মনোমুগ্গব্দকর পদ্মা রিসোর্ট ৷ নদীর মাঝেই বিশাল বিস্টস্নৃত চর ৷ প্রকৃতির সৌন্দর্য নিয়ে চরটি দীর্ঘকাল পদ্মার বুকজুড়ে দাঁড়িয়ে আছে ৷ পদ্মা রির্সোটের সামনে আছে ঘন ঘাস ও বালুর প্রাল্পস্নর ৷ পদ্মা রিসোর্ট পহৃর্ণিমায় হয়ে ওঠে মায়াবি এবং সকালটি দেখলে মনে হবে ক্যানভাসে অাঁকা এক মনোহর সাদা-কলো ছবি ৷ রিসোর্টটির চারদিকে পদ্মা নদী প্রবাহিত হওয়ায় সার্বক্ষণিক মৃদু ঠাণ্ডা বাতাস বিরাজ করে ৷ একটু দহৃরেই চরজুড়ে চোখে পড়বে নদীর স্রোতোধারা ৷ বালুচরে পদ্মা রিসোর্টে বসে দেখতে পারেন সহৃর্যাস্টস্ন বা সহৃর্যোদয় ৷ এক নজরে পদ্মা রিসোর্ট : পদ্মার চরে গড়ে ওঠা রিসোর্টে থাকার জন্য আসে ১৮টি ডুপ্টে্নক্স ৷ একটি কটেজে ৬ জন করে থাকা যায় ৷ এ কটেজগুলো বাংলার বার মাস ও ছয় ঋতুর নামে নামকরণ করা হয়েছে ৷ প্রতিটি কটেজ সুন্দর আসবাবপত্র দিয়ে সাজানো হয়েছে ৷ ঘরের চাল সুন্দরী পাতা দিয়ে তৈরি ৷ দেয়াল ও অন্যান্য জায়গায় বাঁশ ও তাল গাছের কাঠ ব্যবহার করা হয়েছে ৷ রিসোর্টে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কর্মীবৃন্দ আপনাকে নিয়ে যাবে আপনার বুকিং রুমে ৷ রুমে ঢুকেই দেখতে পাবেন একসেট সোফা ও টেবিলসজ্জিত লিভিং রুম, দেড়তলায় অত্যাধুনিক ফিটিংসে তৈরি বাথরুমে ৷ দি্বতীয়তলায় উঠে দেখতে পাবেন পরিষ্ফকার-পরিচ্ছল্পম্ন দুটি সুসজ্জিত বিছানা ৷ মধ্যখানে সেন্টার টেবিল, ওয়ারড্রব, লাইট ও ফ্যান ইত্যাদি ৷ সুসজ্জিত রেস্ল্টুরেন্ট ও রাত্রিযাপন : পদ্মা রিসোর্টের সুসজ্জিত রেস্ল্টুরেন্ট, যা ২০টি টেবিল ও চেয়ার দিয়ে সাজানো ৷ সেখানে ২শ’ লোক নিয়ে আপনি কনফারেন্স, সেমিনার অথবা লাঞ্চ ও ডিনার সারতে পারেন ৷ রিসোর্টের ফুড মেনু্য দেখে ৩-৪ জনের খাবার বুক করতে পারেন যে কোনো সময় ৷ জনপ্রতি ডিনারের মহৃল্য হবে ৩শ’ টাকা এবং রাত যাপন করতে একটি রুমের ভাড়া পড়বে ৩ হাজার টাকা ৷ দুপুর ও রাতের খাবারে মধ্যে আছে পদ্মার ইলিশ, সবজি, ঘন ডাল, মুরগির মাংস ৷ সকালের নাস্টস্নার জন্য রুটি-পরোটা, ডিম, সবজি-ডাল ইত্যাদি ৷ বিনোদন : পদ্মার রিসোর্ট বিনোদনের জন্য উত্তম স্ট্হান ৷ আপনি ইচ্ছে করলেই এই বালুচরে করতে পারেন পিকনিক ৷ ছেলে-মেয়ে ও পরিবারসহ খেলতে পারেন ভলিবল, বাস্টেকট বল, ব্যাডমিন্টন, কাবাডি ৷ ইচ্ছে করলে চড়তে পারেন ঘোড়ার পিঠে ৷ গল্কপ্প করার জন্য আছে দোলনা, ইজি চেয়ার, ভেসে বেড়ানোর জন্য আছে ট্রলার ও স্ঙ্িডবোটে ঘুরে আসতে পারেন পদ্মার আশপাশ ৷

[ad#co-1]

Leave a Reply