মধু’র ক্যান্টিন । যার ভালোবাসায় সিক্ত সবাই

বাঙালির ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস, স্বাধীনতা অর্জনের ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে আছে মধুর ক্যান্টিনের গৌবরোজ্জ্বল ভূমিকা। বাঙালীর স্বাধীকার অর্জনের ইতিহাস থেকে মধুর ক্যান্টিনকে আলাদা করা কঠিন। নিজস্ব ভূখণ্ডের সামাজিক, সাহিত্যিক, সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক আন্দোলনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন ক্যান্টিনের স্বত্বাধিকারী সবার প্রিয় মধুদা। আর বাংলাদেশের ঐতিহাসিক আন্দোলনের মূখ্য পীঠস্থান অথবা তার বীজরোপনের জমিন ছিল মধুর ক্যান্টিন।

’৪৮এর ভাষা আন্দোলন, ’৪৯ এর বিশ্ববিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের আন্দোলন, ৫২’র আগুনঝরা দিন, ৫৪’র যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনী যুদ্ধ, ১৯৫৮-’৬০ সালের প্রতিক্রিয়াশীল বিরোধী ছাত্র-আন্দোলন, ৬৬’র ৬ দফার আন্দোলন, ’৬৯’র গণঅভ্যুত্থান, ৭০’র নির্বাচন; এ সব কিছুর সঙ্গে মধুর ক্যান্টিনের নাম ওতপ্রোতভাবে জড়িত। মধুর ক্যান্টিনের সঙ্গেই জড়িয়ে আছে এক অনন্য ইতিহাস।

ঊনিশ শতকের প্রথম দিকে বিক্রমপুরের শ্রীনগরের জমিদারদের সঙ্গে মধুদার পিতামহ নকরীচন্দ্রের ব্যবসায়িক সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ব্যবসা প্রসারের উদ্দেশ্যে নকরীচন্দ্র তার দু’পুত্র আদিত্যচন্দ্র ও নিবারণ চন্দ্রসহ ঢাকায় আসেন। তারা জমিদার বাবুর জিন্দাবাজার লেনের বাসায় আশ্রয় নেন। ১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর নকরী চন্দ্র পুত্র আদিত্য চন্দ্র’র ওপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ব্যবসা প্রসারের দায়িত্ব দেন।

নকরীচন্দ্রের মৃত্যুর পর আদিত্য চন্দ্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় স্থায়ীভাবে বসবাসের মাধ্যমে তার ব্যবসা শুরু করেন। ব্রিটিশ পুলিশ এ সময় ক্যাম্পাসের আশপাশের ব্যারাক ও ক্যাম্প প্রত্যাহার করার উদ্যোগ নিলে আদিত্য চন্দ্র বৃটিশ পুলিশের কাছ থেকে ৩০ টাকার বিনিময়ে দু’টি ছনের ঘর ক্রয় করে তার একটিতে বসবাস শুরু করেন।

মধুদা তখন ১৫ বছরের তরুণ। তিনি ১৯৩৪-৩৫ সাল থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তার পিতা আদিত্য চন্দ্রের সঙ্গে খাবারের ব্যবসা শুরু করেন। ১৯৩৯ সালে পক্ষাঘাতে পিতার মৃত্যুর পর মধুদা পারিবারিক ব্যবসার হাল ধরেন। পাশাপাশি তার বড়ভাই নারায়ণচন্দ্রের পড়াশুনার খরচ জোগাতে থাকেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের দাবির পেক্ষিতে ডাকসু কার্যক্রম শুরু হয় এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের পাশে মধুদার দায়িত্বে ক্যান্টিন প্রতিষ্ঠিত হয়।

‘মধুর ক্যান্টিন’ নামটি প্রতিষ্ঠিত হবার আগে এর নাম মধুর ষ্টল, মধুর টি-স্টল, মধুর রেস্তোরা ইত্যাদি ছিল।

তিরিশের দশকে কবি বুদ্ধদেব বসু স্মৃতিচারণে বলেছিলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় কম্পাউন্ডের এক প্রান্তে টিনের চালওয়ালা দর্মার ঘর, ভিতরে মলিনবর্ণ টেবিলের পাশে লম্বা টুল পাতা। এখানেই আমরা ক্ষুদপিপাসা স্বহস্তে নিবরণ করে থাকি, যেহেতু সারা তল্লাটে দ্বিতীয় কোন চা-ঘর নেই। ভোজ্যতালিকা অতি সীমিত, কোনদিন তার স্বহস্তে প্রস্তুত মিষ্টান্ন ছাড়া আর কিছুই দিতে পারে না চায়ের সঙ্গে। কিন্তু তাতেও কিছু যায় আসে না আমাদের। গদ্য-পদ্য সমস্ত খাদ্যই আমাদের পক্ষে উপাদেয় ও সুপ্রাচ্য, সেগুলোর রাসায়নিক গুণাগুণ নিয়ে চিন্তিত হবার মতো দুর্দিন তখনও বহুদুর। আমাদের বন্ধুর দল ছুটির ঘন্টায়, কখনও কেউ কাস পালিয়ে বসি গোল হয়ে ঘন ঘাসের উপর ঘনিষ্ট হয়ে আর ফরমায়েশের পর ফরমায়েশ ছাড়ি আদিত্যকে। অনেকখানি মাঠ পেরিয়ে আমাদের কলহাস্য ধ্বনিত হয় এক ক্লাসঘরে, যেখানে চারু বন্দোপাধ্যায় কবি কঙ্কন পড়াচ্ছেন। দাম দেবার জন্য পকেট হাতড়াবার প্রয়োজন নেই; লিখে রেখো এই বলাই যথেষ্ট। এই আদিত্যের এবং আমার পুরানো পল্টনের মুদিখানায় সিগারেটের দেনা পরিশোধ না করেই আমি ঢাকা ছেড়ে ছিলাম, সে কথা ভেবে আজকের দিন আমার অনুশোচনা হয়। (আমার যৌবন ১৯৭৬ সালে)’।

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে সহযোগীতার অভিযোগে পাকবাহিনীর হাতে নির্মমভাবে শহীদ হন মধুদা, তার স্ত্রী, বড় ছেলে ও তার নববিবাহিত স্ত্রী। কিন্তু তার মৃত্যুতে থেমে থাকেনি মধুর ক্যান্টিনের কর্মকাণ্ড। ছোট্ট একটি চায়ের দোকান কালক্রমে বাংলার স্বাধীনতা সংগ্রামের একটি অনিবার্য অংশ হিসেবে মধুর ক্যান্টিন আপন ঐতিহ্যে সমুজ্জ্বল।

ষাটের দশকের কবি, ছাত্রনেতা বুলবুল খান তার ‘মধুর ক্যান্টিন’ গ্রস্থে লিখেছিলেন, ‘ঊনিশ’শ বাষট্টির ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ইউক্যালিপটাস এভিনিউ’র ধার ঘেঁষে মেডিক্যাল কালেজ হাসপাতালের গ্রাস থেকে কোন রকমে নিজেকে বাঁচিয়ে রাখা বিশাল বিল্ডিংয়ের পূর্বদিকের অংশ তখন আমাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভবন। ছোট মাঠের দক্ষিণ আর পুবে টিনশেড পাকা দেয়ালের অতিরিক্ত কিছু ঘরেও কাস হতো। মাঠের দক্ষিণ কোনে ডোবার চেয়ে কিছুটা বড় সাইজের একটি পুকুর, মাঠের মাঝামাঝি বিখ্যাত আমগাছ, তার পুবে বেলগাছ। মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে যে অংশটুকু বিশ্ববিদ্যালয় হিসাবে ব্যবহৃত হয় তার উত্তর পাশের রাস্তা ঘেঁসে ছিল মধুর ক্যান্টিন। দু’বছর পর বিশ্ববিদ্যালয় নীলক্ষেতে কলাবভনে স্থানন্তরিত মধুর ক্যান্টিন ঢাকার নবাবদের শাহবাগ এলাকার নাচঘরে শুরু হয়।

এই ঘরেই আওয়ামী মুসলিম লীগ গঠনের জন্য একদিন উপমাহাদেশের বাঘা বাঘা মুসলিম নেতারা বৈঠক করেছিলেন। সেই ঘরটিই মধুর ক্যান্টিন স্মৃতি বিজড়িত হলঘর। বাঈজিদের নূপুরের রিনিঝিনি দখল করে নিয়েছিল ছাত্রদের গুঞ্জন।’

মধুর ক্যান্টিন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এলাকা থেকে এ সময় স্থান্তরিত হয় নীলক্ষেত এলাকায়। পেছনে পড়ে থাকে রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের অজস্র স্মৃতিবিজড়িত পুরানো বিশ্ববিদ্যালয় ভবন, একুশে ফেব্রুয়ারিতে দশজনী মিছিলের স্মৃতি বিজড়িত সেই ফটক, আমতলা, প্রথম মধুর ক্যান্টিনের টিনশেড, আর ডাকসু কার্যালয়।

পলাশীর আমবাগানের সর্বশেষ আমগাছটি মরে গেলে তার কাণ্ডটি বৃটিশরা যুদ্ধ জয়ের স্মৃতিচিহ্ন হিসাবে তাদের দেশে নিয়ে গিয়েছিল।

মধুর ক্যান্টিন এবং মধুদা সম্পর্কে এককালের বামপস্থী নেতা ও প্রবীণ সাংবাদিক কেজি মুস্তফার স্মৃতিচারণমূলক বিবরণ থেকে জানা যায়, ‘ভবিষ্যত বাংলাদেশের যারা রূপকার হিসেবে বিবেচিত তাদের প্রায় সকলেই আড্ডা দিতেন মধুর ক্যান্টিনে।’

ত্রিশ, চল্লিশ ও পঞ্চাশ দশকের রক্ষণশীল পরিসরে দোতলা থেকে চায়ের অর্ডার দেয়া হতো তৃতীয় কোন মাধ্যমে। মধুদা সেই সময়ও ছেলে মেয়েদের একসঙ্গে চা পান করতে সহযোগিতা করেছেন।

কিন্তু বর্তমান পেক্ষাপট ভিন্ন। মেয়েদের কমনরুম থেকে শিক্ষকদের প্রহরায় ক্লাসে নিয়ে যাবার দিন শেষ হয়ে গেছে অনেক আগেই। মেয়েরা এখন শুধু মধুর ক্যান্টিনই নয়, ক্যাম্পাস জুড়েও নিঃসঙ্কোচে আড্ডা দিতে পারে।

ত্রিশ ও চল্লিশের দশক থেকে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডসহ নানা সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সূতিকাগার ছিল মধুর ক্যান্টিন। ষাটের দশকে ততকালিন পূর্ব পাকিস্তান অর্থাত আজকের বাংলাদেশ নতুন পেক্ষাপটের মুখোমুখি হয়। বিশেষত ’৬৬’র স্বায়ত্বশাসন আন্দোলনের পথ ধরে বাংলাদেশের স্বাধীনতার আন্দোলনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৬ দফা পেশ করার ভেতর দিয়ে যে রাজনৈতিক অধ্যায়টির সূচিত হয় তারও সঙ্গে যুক্ত ছিল মধুর ক্যান্টিন। ছাত্র আন্দোলনের সিদ্ধান্তগুলোও নেয়া হতো মধুর ক্যান্টিন থেকেই।

৬৬’র ১৩ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে সচিবালয়ের সামনে অবস্থান ধর্মঘট পালনের প্রস্তুতি হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাফেটোরিয়ায় সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা এক সভায় মিলিত হন। মধুদার ক্যান্টিনেই গভীর রতে গোপন বৈঠক হয়। মধুদার সাহার্য ছাড়া সেদিন এই সভা করা সম্ভব ছিল না।

’৬৯ থেকে ’৭১ পর্যন্ত বহু বৈঠক মধুদার ক্যান্টিনে হয়েছে। রাতের অন্ধকারে এসব বৈঠক সম্পর্কে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ছাড়া শুধুমাত্র মধুদাই অবহিত থাকতেন। মধুদা সবার খাওয়ার ব্যবস্থা করতেন। মধুর ক্যান্টিন ছিল প্রগতিবাদী গণতান্ত্রিক ছাত্র আন্দোলনের অলিখিত হেডকোয়ার্টার।

বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় শরিফ মিয়ার ক্যান্টিন, বলাইয়ের ক্যন্টিন, সায়েন্স ক্যাফেটেরিয়া, টিএসসি ক্যাফেটেরিয়াসহ অনেক স্টল ছিল। কিন্তু মধুর ক্যান্টিন-এর ঐতিহ্যেকে কেউই অতিক্রম করতে পারেনি।

উদীয়মান সাহিত্যিক, নাট্যকর্মী, সঙ্গীতশিল্পী, শিক্ষাবিদ, সেরাছাত্র, ছাত্রনেতা, রাজনৈতিক কর্মী এবং আড্ডাবাজ ছাত্রদের ঠিকানা ছিল মধুর ক্যান্টিন। আজও বাঙালীর স্বাধীনতা সংগ্রামের অনন্য অবদানে মধুর ক্যান্টিন বাঙালীর অনুপ্রেরণা।

মধুদা নেই কিন্তু তার ক্যান্টিন আজও বাঙালীর অস্তিত্বের অখণ্ড ইতিহাস।

সোর্স

[ad#co-1]

Leave a Reply