সার ডিলার নিয়োগ নিয়ে কেলেঙ্কারি টঙ্গিবাড়ী উপজেলা প্রাঙ্গণে বঞ্চিত ডিলারদের বিক্ষোভ হট্টগোল

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ীতে আত্মীয় ও দলীয়করণের মাধ্যমে সার ডিলার নিয়োগ নিয়ে কেলেঙ্কারি কা- বেধেছে। এ কারণে সোম ও মঙ্গলবার উপজেলা পরিষদের সামনে বঞ্চিত ডিলার ও খুচরা সার বিক্রেতারা বিক্ষোভ প্রদর্শন ও হট্টগোল করেছে। তাদের মধ্যে দেখা দিয়েছে অসন্তোষ। সার ডিলার নিয়োগে উপজেলা চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার কাজী ওয়াহিদের বিরুদ্ধে দলীয় লোক ও তার আনুগত্য স্বীকারকারীদের অনিয়মের মাধ্যমে ডিলারশিপ প্রদানের অভিযোগ তুলেছেন ইউপি চেয়ারম্যানরা। তারা বলেন, নিয়োগ প্রক্রিয়ায় প্রকৃত সার বিক্রেতা ও ডিলাররা বাদ পড়েছেন।

জানা গেছে, সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে ইউপি চেয়ারম্যানরা সার ডিলার নিয়োগের তালিকা পাঠান। সেই তালিকা থেকে প্রতি ইউনিয়নে নয়জন করে এবং উপজেলা সদরে আরো দুজনকে সার ডিলার হিসেবে নিয়োগ দেয়ার কথা থাকায় এর বিপরীতে ২১০টি আবেদন জমা পড়ে। ৩০ সেপ্টেম্বর ডিলার নিয়োগের তালিকা তৈরির শেষ দিন থাকলেও ওই দিন তা না করে ইউপি চেয়ারম্যানদের পাঠানো তালিকা থেকে অধিকাংশদের বাদ দিয়ে দলীয় ও আত্মীয়দের নাম অন্তর্ভুক্ত করে ডিলার নিয়োগের তালিকা করা হয়েছে। এতে বঞ্চিত ডিলার ও খুচরা সার বিক্রেতারা প্রতিবাদ মুখর হয়ে ওঠে উপজেলা চেয়ারম্যানের তৈরিকৃত তালিকা বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ ও হট্টগোল করে। এ কারণে টঙ্গিবাড়ী সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির সদস্য ও প্রেসক্লাব সভাপতি আবু বকর সিদ্দিক অনিয়মের কারণে রেজুলেশনে স্বাক্ষর করেননি।

সার বিক্রেতাদের অভিযোগ, উপজেলা চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার কাজী ওয়াহিদ ও কৃষি কর্মকর্তা মহিদুর রহমান প্রভাব খাঁটিয়ে আত্মীয় ও দলীয়করণের মাধ্যমে সার ডিলার নিয়োগ দেন। ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মো. দুলাল বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ও কৃষি কর্মকর্তা অনিয়ম করে দলীয় লোক ও নিজ পছন্দের অব্যবসায়ীদের ডিলার নিয়োগ করেন। এ প্রসঙ্গে টঙ্গিবাড়ী উপজেলার চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার কাজী ওয়াহিদ বলেন, তালিকা থেকে কিছুটা পরিবর্তন করে ডিলার নিয়োগ দেয়া হয়েছে গণতান্ত্রিক পন্থায়। এটা কোনো দোষণীয় ঘটনা নয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল জলিল বলেন, এতে আমার কোনো হাত নেই। তবে সার বিক্রেতা ও আগের ডিলাররা প্রতিবাদ করছেন, হইচই করে হট্টগোল বাধিয়েছেন বলে তিনি স্বীকার করেন।

[ad#co-1]

Leave a Reply