প্রবাসীদের ঈদ আয়োজন

1256190081_japan-38রাহমান মনি
কিন্তু প্রবাসে বিশেষ করে অমুসলিম দেশগুলোতে ঈদের আনন্দ পরিবেশ দেখে বোঝার উপায় নেই। তাই বলে কি ঈদ আনন্দের মিলন মেলা হবে না? প্রবাসে কমিউনিটিগুলো সাধ্যমতো চেষ্টা করে আনন্দ উপভোগ করার জন্য। এখানে শত শত মানুষের মিলনই হয়ে যায় মহামিলন। ঈদ উৎসবের আমেজে পরিণত হয়ে প্রবাসীরা ভুলে যায় বাপ-মা, ভাই-বোন, বন্ধু-বান্ধব এবং স্বজন ছাড়া কেবলই কর্মব্যস্ততার কথা, ভুলে যায় হিংসা, বিদ্বেষ ও ভেদাভেদ, ধনী-গরিব, ছোট-বড়, উঁচু-নিচু, ঈদের আনন্দে সবাই যেন সমান। এটা ইসলামের শিক্ষাও বটে। প্রবাসে ঈদের এই আনন্দকে উপভোগ করতে বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রণ করে আনা হয় বরেণ্য ব্যক্তিদের। বিশেষ করে শিল্পীদের। বিনোদনের জন্য।
প্রতি বছরের মতো এবারও ঈদ আনন্দ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ঈদ আনন্দ কমিটি। গত ২১ সেপ্টেম্বর টোকিওর কিতা সিটি’র তাকিনোগাওয়া কাইকান হলে আয়োজিত ঈদ আনন্দ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ হতে আমন্ত্রিত হয়ে এসেছিলেন সঙ্গীত শিল্পী মিমি, বাউল শিল্পী পাগলা বাবুল এবং উপস্থাপক খন্দকার ইসমাইল। দুপুরের আপ্যায়ন পর্ব এবং সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। খন্দকার ইসমাইলের উপস্থাপনায় আমন্ত্রিত অতিথিদের পাশাপাশি স্থানীয় শিল্পীরাও অংশগ্রহণ করে ঈদ আনন্দ আয়োজনকে আরও প্রাণবন্ত করে তোলে।

২৩ সেপ্টেম্বর প্রথমবারের মতো চিবাকেন ইয়াচিয়োদাই বুনকা কাইকানে বাংলাদেশ কমিউনিটি জাপান ব্যানারে ঈদ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। গতানুগতিক না করে একটু ভিন্ন আমেজে আয়োজন করায় একদিকে যেমন নতুনত্ব থাকে তেমনি দর্শকরাও প্রচুর আনন্দ উপভোগ করে। ছোটদের জন্য বিনোদনের ব্যবস্থা এবং উপহার ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের উৎসাহের পাশাপাশি ঈদ মানে যে আনন্দ উৎসব সেই ম্যাসেজও পেয়ে যায়। সর্বক্ষেত্রে তাই-ই হওয়া উচিৎ। মহিলাদের জন্য বিশেষ আয়োজন বালিশ খেলা দর্শকরা উপভোগ করে।

আপ্যায়নের মধ্যেও গতানুগতিক প্যাকেট বিরিয়ানির মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে সম্পূর্ণ ঘরোয়া পরিবেশের খাবারের বিভিন্ন আয়োজন থাকায় অতিথিরা পছন্দের খাবারটি খেয়েছেন তৃপ্তি সহকারে। খাবারের মধ্যে ছিল বিরিয়ানি, সাদা ভাত, বিভিন্ন প্রকার ভুনা মাংস, সবজি, হরেক রকমের ভর্তা এবং বিভিন্ন প্রকারের মিষ্টান্ন ও তার সঙ্গে দধি।
সন্ধ্যাকালীন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রিত অতিথি শিল্পী নাজু আখন্দ এবং জ্যোৎস্না দর্শকদের আনন্দ দিতে সক্ষম হন। জ্যোৎস্না ইতোমধ্যে আরও দুবার জাপান সফর করেছেন এবং দর্শক হৃদয়ে স্থান করে নিতে পেরেছেন। তার মার্জিত ব্যবহার, পোশাক নির্বাচন এবং সঙ্গীত নির্বাচন দর্শকদের হৃদয় স্পর্শ করে। এ ছাড়াও খন্দকার ইসমাইলের ওয়াজ, পাগলা বাবুলের লালনগীতি অনুষ্ঠানে নতুনত্ব আনে। মিমি পরিবেশন করেন হিন্দি সঙ্গীত।

উভয় আয়োজনে টোকিওস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত আশরাফ-উদ-দৌলা সপরিবারের উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠান উপভোগ করেন এবং প্রবাসীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন। উপস্থিত ছিলেন দূতাবাসের অন্যান্য কর্মকর্তা ও কর্মাচারীবৃন্দও।

এ ছাড়াও ছোট পরিসরে ঈদ আনন্দ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা ওসাকা, লাগোয়া, সাপ্পরো, সিগা, কিয়োটো এবং অন্যান্য শহরেও। এবারের ঈদের ছুটি (কাকতালীয়ভাবে) বাংলাদেশের সঙ্গে মিলে যাওয়ায় প্রবাসীদের ঈদ উৎসব অন্যবারের চেয়ে বেশি আনন্দমুখর হয়েছে। ঈদের জামাতের সংখ্যা এবং উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়।
rahmanmoni@gmial.com

[ad#co-1]

Leave a Reply