রাজধানীর পাশেই এক পশ্চাৎপদ জেলা শহর

168384_1।। ফারাজী আজমল হোসেন, মুন্সীগঞ্জ থেকে ফিরে ।।
মুন্সীগঞ্জ বিক্রমপুর নামে যার পরিচিতি। সেখানে আধুনিক নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করার সহজ উপায় থাকা সত্ত্বেও উদ্যোগের অভাবে কিছুই হচ্ছে না। মুন্সীগঞ্জের দূরত্ব সদরঘাট থেকে নৌপথে মাত্র ২২ কিলোমিটার। সড়ক পথে জিরো পয়েন্ট থেকে ২৫ কিলোমিটার। বুড়িগঙ্গা দ্বিতীয় সেতুর উপরেই মুন্সীগঞ্জ যাবার লোকাল গাড়ীগুলো দাঁড়িয়ে থাকে। জেলাবাসীর জন্য আলাদা কোন বাস টার্মিনাল নেই। এখনো গুলিস্তান এলাকা থেকে কিছু গাড়ি মুন্সীগঞ্জে চলাচল করে। কেরানীগঞ্জ থেকে ঢাকা-মাওয়া রোডের ৭/৮ কিলোমিটার গেলেই নিমতলী। সেখান থেকে আঁকাবাঁকা সরু পথ গেছে মুন্সীগঞ্জ শহর পর্যন্ত। মাঝখানে সিরাজদীখান উপজেলা শহর। ঢাকা-মাওয়া রোড থেকে মুন্সীগঞ্জ পর্যন্ত সড়কের বেহাল দশার কারণে এই পথে স্বাচ্ছন্দ্যে চলাচলের কোন উপায় নেই। সরু পথে যেমন আছে অনেকগুলো বেইলী ব্রীজ ও কালভার্ট তেমনি সড়কের দুইধার জুড়ে দোকানপাটের সারি। দুইটি গাড়ী সাইড দিতে গেলে সড়কের উভয় দিকে যানজটের সৃষ্টি হয়। ফিটনেসবিহীন গাড়ীগুলো মাঝে-মধ্যে উল্টে পড়ে। সড়ক পথের এ বেহাল দশা চলছে যুগ যুগ ধরে।

মুন্সীগঞ্জের লোকজন ঢাকায় বড় বড় ব্যবসা করেন। তারা ঢাকায় থিতু হওয়ার পর এলাকায় যোগাযোগ রাখেন কম। এ জেলার দুইজন রাষ্ট্রপতি হয়েছেন। প্রধান উপদেষ্টা ও উপ-প্রধানমন্ত্রীও হয়েছেন। বিগত জোট সরকারের আমলে মন্ত্রী ছিলেন পাঁচজন। একজন সিনিয়র মন্ত্রী সড়ক পথের বিড়ম্বনা বুঝে পাগলার মেরী এন্ডারস থেকে স্পীডবোটে নিজ জেলা শহরে যেতেন। রাষ্ট্রপতি দুইবার গিয়েছেন হেলিকপ্টারযোগে। প্রধান উপদেষ্টারও একাধিকবার পদধূলি পড়েছে। কিন্তু সড়ক পথের বিড়ম্বনা তারাও বুঝতেই পারেননি। শহরের বেশ কয়েকজন অধিবাসী জানালেন, আমাদের বড় সমস্যা যোগাযোগের অব্যবস্থা। ঢাকা-মাওয়া সড়ক প্রশস্ত হওয়ায় মুন্সীগঞ্জ শহরের সাথে রাজধানী ঢাকার যোগাযোগ দ্রুত ও সহজ করা সহজেই সম্ভব। কিন্তু মাত্র ১৫ কিলোমিটার সড়ক প্রশস্ত করার উদ্যোগের অভাবে মুন্সীগঞ্জের যোগাযোগ সমস্যার সমাধান হচ্ছে না।

ধলেশ্বরীর পাড় ঘেঁষে শহরের মধ্যে প্রবেশ করা মোক্তারপুর-মুন্সীগঞ্জ সড়কটি পৌর এলাকার একমাত্র প্রশস্ত সড়ক। বুড়িগঙ্গার শাখা নদী ধলেশ্বরী এখন স্থবির। সেখানে জন্মেছে কচুরিপানা। নদী স্রোতহীন। শহরের কিশোররা নদী পাড় ঘেঁষে চলা রাস্তা থেকে নদীতে ঝাঁপ দেয়। নদীর ঢেউ সড়ক পাড়ে আছড়ে পড়ায় বর্ষাকালে ভাঙ্গন শুরু হয়।

এ সড়ক প্রশস্ত করার কোন উদ্যোগও নেই।

মুন্সীগঞ্জ পৌর কর্তৃপক্ষ শহরে যে রাস্তাগুলো তৈরি করেছে সেগুলোর অধিকাংশ দিয়ে দুইটি রিকশা পাশাপাশি চলতে পারে না। গলির মধ্যে পথচারিরা যানজটে আটকে যান। যান্ত্রিক যানবাহন চলাচলের মত প্রশস্ত সড়ক পৌর মহল্লায় নেই বললেই চলে। পৌরসভা কর্তৃক্ষ সম্প্রতি হাসপাতাল সড়কটি প্রশস্তকরণের উদ্যোগ নিয়েছেন।

নয়’শ মিটার দীর্ঘ এ সড়কটি প্রশস্তকরণের ব্যয় ধরা হয়েছে দেড় কোটি টাকা। কিন্তু সড়কটি স্থানীয় একজন প্রভাবশালী ব্যক্তির বাড়ির কাছে গিয়ে আপনা-আপনি সরু হয়ে গেছে। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা জাহাঙ্গীর সরকার মন্টু জানালেন, সড়ক নির্মাণের জন্য কেউ জায়গা ছাড়তে চান না। ফলে পৌরসভার পরিকল্পনা খাতাপত্রে সীমিত থাকে।

নারায়ণগঞ্জের পাগলা হয়ে মুন্সীগঞ্জে যাওয়ার সহজ একটি রাস্তা আছে। সে রাস্তার অবস্থাও করুণ। গাড়ীতে চলার সময় ঝাঁকুনি আর নিত্য যানজটের ভয়ে এ পথ দিয়ে কেউ যাতায়াত করতে চান না। ধলেশ্বরীর পাড়ে গড়ে ওঠা ৬টি সিমেন্ট কারখানার উৎপাদিত পণ্য পরিবহনকারী ৩০/৩৫ টন ওজনের গাড়ীগুলো বিকট শব্দ করে এ রাস্তা দখলে রাখে। এ পথে ধুলোবালি আর ঝাঁকুনির ভয়ে ছোট গাড়ী নিয়ে কেউ মুন্সীগঞ্জ যেতে চান না। বর্ষার সময় অবস্থা থাকে আরো নাজুক। অসংখ্য খানা-খন্দকের কারণে ছোট-বড় দুর্ঘটনা ঘটে প্রতিনিয়ত। কিন্তু সে অবস্থা দেখার কেউ নেই।

মুন্সীগঞ্জবাসীর প্রাপ্তি বলতে আছে ধলেশ্বরীর ওপর দেড় কিলোমিটার দীর্ঘ মোক্তারপুর সেতু। আনোয়ার হোসেন মঞ্জু যোগাযোগ মন্ত্রী থাকাকালে সেতুটির নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। সম্ভাব্যতা যাচাই ও অর্থ সংস্থানের আয়োজনও সম্পন্ন করা হয়। পরবর্তী সরকারের ধারাবাহিকতায় বিগত সরকারের আমলে এ সেতুর উদ্বোধন করা হয়। কিন্তু স্বপ্নের এ সেতুতে উঠতে নাকাল দশা হয় জেলাবাসীর। সেতুর দুই প্রান্ত থেকে রাস্তাঘাট অপরিসর ও ভাঙ্গাচোরা ঝক্কিঝামেলা নিয়েই তবুও প্রতিদিন পারাপার হয় হাজার হাজার মানুষ।

[ad#co-1]

Leave a Reply