মুন্সীগঞ্জে গরুর হাটের ইজারা নিয়ে আ’লীগের দুই গ্রুপ মুখোমুখি

কোরবানি উপলক্ষে গরু-ছাগলের অস্থায়ী হাটের ইজারা নিয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার ইউএনওর অফিসে স্থানীয় আ’লীগের দুগ্রুপের মধ্যে সোমবার দুপুরে হট্টগোল, বাগবিত-ার ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

মুক্তারপুর বিসিক এলাকার হাটের ইজারা নিয়ে মূলত এ হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। এ হাটের ইজারা নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে সমঝোতা হয়নি। জিয়াউর রহমান অপু গত বছরের চেয়ে প্রায় তিনগুণ বেশি দাম দিয়ে বিসিক হাটটির ইজারা নেন। দ্বিতীয় দরদাতা সাইফুল ইসলাম সোহাগ গত বছরের চেয়ে মাত্র ৫০ হাজার টাকা বেশি দর দিয়ে টেন্ডার ড্রপ করেন।
বিসিক হাটের জন্য ২৫টি সিডিউল বিক্রি হলেও মাত্র দুটি টেন্ডার ড্রপ হয়। এদিকে সদর উপজেলার আটটি অস্থায়ী হাটের মধ্যে পাঁচটি হাটের ইজারা দেয়া হয়। মাকহাটি ও বজ্রযোগিনী হাটের কোনো সিডিউল বিক্রি হয়নি এবং ধলাগাঁও বাজারে ১৮টি সিডিউল বিক্রি হলেও একটি সিডিউল ড্রপ হয়নি। মদিনা বাজারের জন্য ১১টি সিডিউল বিক্রি হলেও ড্রপ হয়েছে মাত্র একটি, লোহারপুল হাটের জন্য পাঁচটি সিডিউল বিক্রি হলেও ড্রপ হয়েছে মাত্র একটি, চরডুমরিয়া হাটের জন্য ১১টি সিডিউল বিক্রি হলেও ড্রপ হয়েছে মাত্র একটি। তবে শিলই হাটের জন্য তিনটি সিডিউল বিক্রি হয় এবং তিনটিই ড্রপ হয়।

ইউএনও বেগম রায়না আহমদ জানান, বিসিক হাটের সিডিউল নিয়ে অফিসের বাইরে দুই দরদাতার পক্ষের লোকজনের মধ্যে হট্টগোল হয়। পুলিশ মোতায়েন করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ছিল। তিনদিনের মধ্যে ইজারাপ্রাপ্তরা পুরো টাকা পরিশোধ করবে। তা না হলে রিটেন্ডার ডাকা হবে।

[ad]

Leave a Reply