“মুখ ও মুখোশ” একটি নাম ও ইতিহাস- গবেষক নাহার সরোয়ার।

jabbar১৯৫৬ সাল বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে একটি গুরত্বপূর্ণ ঘটনা।এদেশের প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ সবাক চলচ্চিত্র “মুখ ও মুখোশ” মুক্তি পায়। সে বছর চলচ্চিত্রের ইতিহাসে রচিত হয় একটি নতুন অধ্যায়। যদিও বিশ্বে চলচ্চিত্র প্রথম নির্মিত হয় ১৮৯৫ সালে।

১৯৪৭ এ দেশ ভাগের পর পূর্ব পাকিস্তানের রাজধানী ঢাকা নতুন করে যাত্রা শুরু করে সংস্কুত অঙ্গনে।
১৯৫১ সালে গঠিত হয় “ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংস্কৃতি সংসদ”।ওই বছর আব্দুল জব্বার খানের পরিচালনায় কার্জন হলে মঞ্চস্থ হয় নাটক “ছেড়া তার”।

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের সাথে সাথে বাঙালির চেতনা বোধ জাগ্রত হয়।পরিবর্তন আসে নাটক,সংগীত,শিল্পকলা ও সাহিত্যে।

১৯৫৩ সালে আব্দুল জব্বার খান একটি নাটক লেখেন”ডাকাত”নামে।এই ডাকাত নাটকটিই পরে “মুখ ও মুখোশ” নামে চিত্রায়িত হয়।

পূর্ব বাংলায় প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ সবাক চলচ্চিত্র নির্মান হচ্ছে,তাই এ নিয়ে আলোচনায় মুখর ছিল সংস্কৃতি অঙ্গনে।

১৯৫৪ সালের ৬ আগষ্ট এ ছবির মহরত অনুষ্ঠিত হয় শাহবাগ হোটেলে। মহরত উদ্বোধন করেন পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর ইস্কানার মির্জা।উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথী হিসেবে ভাষন দিয়েছিলেন শেরে বাংলা এ.কে.ফজলুল হক।

ছবির অভিনেতা অভিনেত্রী নির্বাচিত হয় বিভিন্ন মঞ্চ,বেতার ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে। ছবির নায়ক পরিচালক নিজেই।নায়িকা চট্রগ্রামেরে মঞ্চাভিনেত্রী পূনিমা সেন। অপর দুই পার্শ্ব নায়িকা ইডেন কলেজের ছাত্রী দুই বান্ধবী জহরত আরা ও নাজমা।

123970893520090414_0ছবির শুটিং হয় ঢাকায়।১৯৫৫ সালে ৩০ শে অক্টবর শুটিং শেষ হলে লাহোরে ফিল্ম পাঠানো হয় ডেভলপ,এডিটিং এবং ডাবিং করার জন্য।মুখ ও মুখোশ প্রথম প্রদর্শিত হয় করাচীতে অবস্থানরত বাঙ্গালীদের মধ্যে।d

আর পরে ১৯৫৬ সালের ৩ আগষ্ট মুক্তি পায় “মুখ ও মুখোশ”। ঢাকার “রাজমহল” প্রথম শো দেখানো হয় বিকাল ৩ টায়।পরে চট্রগ্রাম ও নারায়নগঞ্জের বিভিন্ন হলে ছবিটি দেখানো হয়।ছবিটি নির্মানে ব্যায় হয়েছিল ৬৪ হাজার টাকা।

রেডটাইমস বিডি ডটকম

Profile

[ad#co-1]

Leave a Reply