ঔপনিবেশিকতার এপার ওপার

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
ঔপনিবেশিক বৃটিশ ভারতে যে সকল রাজকর্মচারী আইসিএসের তকমা নিয়ে কাজে নামতেন তাদের মধ্যে যারা সাদা চামড়ার তাদের ভাবমূর্তিটা ছিল অত্যাচারীর, দেশীয় যারা ওই পদলাভের সুযোগ পেতেন তারাও ঔপনিবেশিক শাসনব্যবস্থারই অংশ হয়ে যেতেন। কিন্তু তবু তাদের মধ্যে কেউ কেউ ছিলেন তারা প্রথমে দায়িত্ব পেতেন মহকুমা প্রশাসকের এবং পেয়ে নিজের এলাকাটাকে ভালোভাবে জানতে চাইতেন, স্থানীয় মানুষের সমস্যা সম্পর্কে অবহিত হতেন, লোকের মুখের ভাষার সম্পর্কে খবর রাখতেন। সবটাই অবশ্য ঘটতো ঔপনিবেশিক শোষণ কাঠামোর মধ্যেই। তাদের মূল দায়িত্ব ছিল আইন-শাঙ্খলা রক্ষা করা, যাতে রাজস্ব সংগ্রহে বিঘœ না ঘটে, বৃটিশের ব্যবসা-বাণিজ্য, চাকরি-বাকরি এবং বিশেষভাবে সম্পদ পাচার অব্যাহত থাকে। তবু তারা নিজের এলাকটাকে জানতেন, ঘুরে বেড়াতেন এবং তাদের শাসনকার্য ও কর্তব্য পালনে তাতে সুবিধা হতো।

যেমন ধরা যাক, আইসিএস অশোক মিত্রের কথা। তিনি পশ্চিমবঙ্গের লোক, কিন্তু দায়িত্ব পেয়েছিলেন ঢাকার মুন্সীগঞ্জ মহকুমার। ‘তিন কুড়ি দশ’ নামে আত্মজীবনীমূলক এক বইতে লিখেছেন যে, একদিনে তিনি নব্বুই মাইল পর্যন্ত সাইকেলে চড়ে তার এলাকা পরিদর্শন করেছেন। সময়টা ছিল ১৯৪৩-এর অর্থাৎ পাশ্চাত্যের মন্বন্তরের। দুর্ভিক্ষের সময় লঙ্গরখানা ও হাসপাতালগুলো কেমন চলছে সেটা নিজের চোখে দেখার জন্যই তার ওই সাইকেলভ্রমণ। সাইকেল ছাড়া উপায় ছিল না। কেননা এলাকায় অন্য কোনো যানবাহন চলতো না। সাইকেলের জন্য একটানা রাস্তা ছিল না, অনেক সময় বাঁশের তৈরি সাঁকোতে খাল পার হতে হতো, তখন সাইকেল থেকে কেবল নামতে নয়, সাইকেলকে ঘাড়ে তুলে নিতে হতো। কাজটা ছিল বিপজ্জনক। কেননা তিনি সাঁতার জানতেন না। সঙ্গে তাই হৃষ্টপুষ্ট একজন কর্মচারীকে রাখতেন, যিনি নিজেও ওইভাবে সাইকেল চালাতেন, কিন্তু প্রস্তুত থাকতেন যে ‘সাহেব’ যদি পানিতে পড়ে যান তবে সঙ্গে সঙ্গে হাত বাড়িয়ে জামার কলার ধরে তাকে টেনে তুলবেন এমন মনোভাব নিয়ে। একদিনে সাইকেল চালানোর রেকর্ড করেছিলেন নব্বুই মাইলের। এর আগের রেকর্ড ছিল আশি মাইলের। সেটাও করেছিলেন একজন আইসিএসই এবং ওই মুন্সীগঞ্জ এলাকাতেই। তবে সে ভদ্রলোক বাঙালি ছিলেন না, ছিলেন ইংরেজ।

বাঙালি অশোক মিত্রের ব্যাপারটা বোঝা গেল, তার অল্প বয়স। ত্রিশ হয়নি। তিনি দেশপ্রেমিক এবং জাতীয়তাবাদী। দেশের মানুষ মারা যাচ্ছে না খেয়ে, অসুখে ভুগেÑ তিনি তাদের দুর্দশা লাঘবের জন্য দেশপ্রেমিক অনুপ্রেরণা থেকে কাজ করছেন। কিন্তু ইংরেজ ভদ্রলোক যে সারা এলাকা চষে ফিরতেন তার কারণটি কী? মনে হয় কারণ একই। তিনিও হয়তো দেশপ্রেমিক ও জাতীয়তাবাদীই ছিলেন। ভদ্রলোক তার নিজের দেশের স্বার্থ দেখছিলেন, অশোক মিত্র যেমন দেখছিলেন বাংলার স্বার্থ। একদিক দিয়ে দেখতে গেলে তাদের অবস্থানটা পরস্পরবিরোধী বটেই। ইংরেজের জাতীয়তাবাদী ছিল ঔপনিবেশিক আর বাঙালির জাতীয়তাবাদ ছিল ঔপনিবেশিক শক্তিকে বিতাড়নের। কিন্তু এক জায়গায় দেখা গেল তারা এক হয়ে গেছেন, সেটা হলো দুঃসাহসিক কাজের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ। কেবল ব্যক্তিগত অনুপ্রেরণার দ্বারা পরিচালিত হলে ওইভাবে দুঃসাহসিক হওয়া যায় না, পেছনে একটা সমষ্টিগত, এক্ষেত্রে জাতীয়তাবাদী অনুপ্রেরণা নিশ্চয়ই ছিল। উভয়ের ক্ষেত্রেই।


উপনিবেশবাদী আধিপত্য শেষ হয়েছে। কিন্তু হয়েছে কি? উপনিবেশবাদ যে এখন সাম্রাজ্যবাদের রূপ নিয়েছে এটা স্বীকৃত সত্য। ভেতরে শক্তিটা অবশ্য পুঁজিবাদের। পুঁজিবাদই হচ্ছে চালিকাশক্তিÑ যেমন উপনিবেশবাদের, তেমনি পরবর্তীতে সাম্রাজ্যবাদের।

আজকের সাম্রাজ্যবাদ অনেক বেশি আগ্রাসী। তার কারণ একদিকে তার বিপক্ষে দাঁড়াবার মতো প্রবল কোনো শক্তি নেই, অন্যদিকে তার বিকল্প যে ব্যবস্থা যাকে বলা হয় সমাজতন্ত্র সেও আজ নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে পারছে না। তবে পুঁজিবাদ যে সঙ্কটের মুখে পড়েছে তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। বিশ্বব্যাপী মন্দা দেখা দিয়েছে। এ মন্দা পুঁজিবাদের ভেতরকার যে স্ববিরোধিতা তারই প্রকাশ। পুঁজিবাদ অত্যধিক পরিমাণে উৎপাদন করছে, কিন্তু মানুষের ক্রয়ক্ষমতা না বাড়িয়ে তাকে বরং কমিয়ে আনছে। এ মানুষরা দুর্দশাগ্রস্ত হচ্ছে। পুঁজিবাদ অল্প মানুষকে ধনী ও ভোগবিলাসী করছে বহু মানুষকে নিঃস্ব করে দিয়ে। সেটা ঠিক। কিন্তু তবু পুঁজিবাদ যে ভেঙে পড়ছে না তার কারণ তার বিকল্প যে সমাজতান্ত্রিক শক্তি সেটা প্রবল হতে পারছে না। গত শতাব্দীর নব্বুইয়ের দশকে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতন ঘটেছে, একবিংশ শতাব্দীর প্রথম দশকে চীন পুঁজিবাদী হয়ে উঠেছে।

পুঁজিবাদের কেবল অর্থনৈতিক নয়, একটা মতাদর্শিক দিকও রয়েছে। সেটিও কম শক্তিশালী নয়। মানুষ জন্মে স্বার্থপর হয়ে, তারপর অনুশীলনের ভেতর দিয়ে তাকে সামাজিক হতে হয়। কাজটা যে সহজ নয় তার সবচেয়ে বড় প্রমাণ তো সমাজতান্ত্রিক বিশ্বের পতনের ভেতর দিয়েই লেখা হয়ে গেছে। আর পুঁজিবাদের বিকাশের প্রতিশ্রুতি প্রোথিত রয়েছে ওই যে মানুষের জন্মগত স্বার্থপরতা তার ভেতরেই। পুঁজিবাদ ওই স্বার্থপরতাকে পরিপুষ্ট করে তোলে, এবং তুলছে। তার মতাদর্শ ভিতটি হচ্ছে মানুষের আত্মপরায়ণতা, তার স্বার্থপরতা। এমনকি সমাজতান্ত্রিক বিশ্বে যখন শ্রেণীশোষণ ও শ্রেণীব্যবস্থা উঠে গিয়েছিল তখনো যে ভেতরে ভেতরে মানুষের আত্মস্বার্থবোধ কার্যকর ছিল তার প্রমাণ তো হাতেনাতেই পাওয়া গেছে। মানুষের সামাজিক সত্তাকে জীবিত রাখতে হলে সমষ্টির সমৃদ্ধির মধ্যেই যে ব্যক্তির স্বার্থ নিহিত রয়েছে এ বোধটাকে কার্যকর রাখা দরকার। সেটা কেবল রাজনীতি দিয়ে, অর্থাৎ রাষ্ট্রক্ষমতা দখল দ্বারাই সম্ভবপর হয় না। সামাজিক, বিশেষভাবে সাংস্কৃতিকভাবেও নিরন্তর অনুশীলনের সাহায্যে তাকে সজীব রাখার দরকার পড়ে। পুঁজিবাদী মূল্যবোধই স্বাভাবিক, সমাজতান্ত্রিক মূল্যবোধকে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে আন্দোলন চাই।


সেকালে আইসিএস ছিল, একালে বিসিএসরা এসেছেন। বিসিএসদের প্রশিক্ষণের সঙ্গে জড়িত একজন জানালেন যে, প্রশিক্ষণের গোটা পরিবেশটাই হচ্ছে ঔপনিবেশিক। সেটাকেই মেনে নেয়া হচ্ছে, যেন ওইটাই স্বাভাবিক। প্রশিক্ষণের মাধ্যম হিসেবে যে ভাষাকে ব্যবহার করা হয় তা আগের মতোই ইংরেজি। ইংরেজ আমলে সেটাকে অতোটা কৃত্রিম মনে হতো না, এখন যতোটা মনে হয় বা হবার কথা। কেননা সে-আমলে আমরা ছিলাম ঔপনিবেশিক ব্যবস্থার অধীনে। ‘প্রভু’দের অনুকরণ করতে চাইতাম, তাদের মতো হতে চেষ্টা করতাম, ইংরেজি লেখা এবং বলার প্রশংসা যদি পাওয়া যেতো তবে খলবলিয়ে উঠতাম। কিন্তু এখন তো তারা নেই। এখন তো আমরা স্বাধীন। বলা হয়ে থাকে যে, রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন থেকেই স্বাধীনতার অভিমুখে আমাদের যাত্রা শুরু। রাষ্ট্রভাষা বাংলা হয়েছে; বাঙালি একটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করে ফেলেছে। তাহলে আমাদের যারা প্রশাসক হবেন তারা বাংলা ভাষায় প্রশিক্ষণ না নিয়ে ইংরেজি ভাষায় যে নিয়ে যাচ্ছেন সেটা কোন দুঃখে? প্রশাসক বিদেশি সাহেবরা বাংলা শিখতেন, আর আমাদের বাঙালি প্রশাসকরা ইংরেজি শিখতে এমন অস্থির হচ্ছেন, ব্যাপারটা কী? কেবল ভাষা নয়, প্রশিক্ষণকালে তাদের পোশাক-পরিচ্ছদও থাকে সাহেবদের মতোই। আশি-নব্বুই মাইল দূরের কথা, সাইকেলে করে তারা নিজ এলাকার অবস্থা দেখতে এক মাইল গেছেন এমন দৃশ্য দুর্লভ তো বটেই, হবে লোমহর্ষকও। মনে পড়ে স্বৈরশাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ একদিন সাইকেলে করে অফিসে গিয়ে খবর তৈরি করেছিলেন। কিন্তু উদ্দেশ্য ছিল এইটাই, ওই খবর তৈরি করাই, তার বাইরে কিছু নয়।

এই যে প্রশাসকরা, চ্যালেঞ্জ এদের জন্যও রয়েছে। কিন্তু সেটা দেশপ্রেমিক ও জাতীয়তাবাদী নয়, বরঞ্চ উলটো। সেটা হচ্ছে পুঁজিবাদী লাইনে সাফল্য লাভ। অর্থাৎ নিজে বড় হওয়া, অন্যদের হটিয়ে দিয়ে। সে জন্যই সাহেব সাজার চেষ্টা। এটা কেউ যে একা করছে তা নয়, সবাই করছে, ব্যক্তিগত ইচ্ছা নিরপেক্ষভাবেই। ব্যধিটা পুঁজিবাদী। পুঁজিবাদ দেশপ্রেমের উচ্ছেদ ঘটাচ্ছে, যথার্থ জাতীয়াতবাদকে কোণঠাসা করছে।

বৃটিশ শাসনের কালে ইংরেজি ভাষার চর্চা বাধ্যতামূলক ছিল। কিন্তু সে-যুগেই আবার বাংলা গদ্যের বিকাশ ঘটেছে, চর্চার আগ্রহ দেখা গেছে মাতৃভাষার। মাতৃভাষার ওই চর্চার সঙ্গে যুক্ত ছিল দেশপ্রেম, জাতীয়তাবাদ এবং সাম্রাজ্যবাদ-বিরোধিতা। একই সঙ্গে প্রোথিত ছিল এই মূল্যবোধগুলো। ইংরেজি শিখবার ও বলবার একটা উন্মাদনা তখন তৈরি হয়েছিল বইকি। কিন্তু সেটা মোটামুটি সীমাবদ্ধ ছিল কলকাতা শহরের মধ্যেই, বাইরে তেমন যায়নি। এখন ব্যাপার ভিন্ন। ওই উন্মাদনা সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে। এবং তাকে ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। ছড়িয়ে দিচ্ছে ইংরেজি ব্যবহারকারী পুঁজিবাদী বিশ্ব। ইংরেজি ভাষা নিজেই একটা পণ্যে পরিণত হয়েছে। তার ক্যাসেট, বই, শিক্ষকÑ সবকিছুরই ভালো বাজার তৈরি হয়েছে। তার চেয়েও বড় কথা যেটা তা হলো ওই ভাষার সাহায্যে মাতৃভাষার ব্যাপারে হীনমন্যতার বোধ এবং ইংরজি ভাষা ব্যবহারকারী পুঁজিবাদী ব্যবস্থা সম্পর্কে গভীর আস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। পুঁজিবাদ সাংস্কৃতিকভাবে মনোজগতের ওপর তার আধিপত্যকে দৃঢ়তর করে তুলছে।

এই যে ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার এবং তথাকথিত ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়বার তৎপরতা এর ভেতর দিয়ে বাংলা ভাষাকে বিকৃত এবং ক্ষেত্রবিশেষে অপাঙক্তেয় করবার চেষ্টা যে চলছে তা অনেকেই লক্ষ করছেন কিন্তু বিরোধিতা করতে পারছেন না। কেননা ওই পক্ষ অত্যন্ত প্রবল, তাদের হাতে টাকা রয়েছে এবং সে-কারণে তারা ক্ষমতাও রাখে। এখন দেখা যাচ্ছে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বিনামূল্যে চব্বিশ ঘণ্টা ইংরেজি কথোপকথন শেখাবার আয়োজন করা হয়েছে। মোবাইল ফোন তো এখন গ্রামে-গঞ্জে চলে গেছে, সকলেরই হাতের মুঠোর ভেতরে রয়েছে; ইংরেজি কথোপকথন তাই কানের কাছে বাজতে থাকবে। পুঁজিবাদ এখন কর্ণপথেও প্রবেশ করার পথ করে নিয়েছে। লোকে বাংলা বলবে যেমন তেমন, লজ্জিত বোধ করবে শুদ্ধভাবে ইংরেজি বলতে না পারলে।


পুঁজিবাদকে হটানোও হচ্ছে বিশ্বের সামনে এখন প্রধান চ্যালেঞ্জ। ধরিত্রীকে সে তপ্ত করছে, প্রকৃতিকে ধ্বংস করছে, মানুষকে ভোগ-লোলুপ প্রাণীতে পরিণত করেছে। এ চ্যালেঞ্জটা পৃথিবীর সর্বত্র আজ গৃহীত হয়েছে। পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে মানুষ রুখে দাঁড়াচ্ছে। আমাদেরও দাঁড়াতে হবে। নিজেদের স্বার্থে, আসলে বাঁচার প্রয়োজনেই পুঁজিবাদকে আজ ধাক্কা দেয়া চাই, যাতে তার পতন ঘটে।

[ad#co-1]

Leave a Reply