তুর্কি রেনেসাঁ ও কামাল বিল বাশার

সরকার মাসুদ
কথাসাহিত্যিক হিসেবে কামাল বিল বাশারের আত্মপ্রকাশ এবং উত্থানের সঙ্গে রয়েছে তুর্কি (Turkey) রেনেসাঁর নিবিড় সম্পর্ক। সাহিত্যিক খালেদা এদিব হানুমসহ তিন/চার জন ব্যক্তি গল্প-উপন্যাস, ভ্রমণকাহিনী, আত্মকাহিনী প্রভৃতি লিখে দেশের ভেতর ঢের আলোচিত-সমালোচিত হয়েছেন। পেয়েছেন ব্যাপক পরিচিতি। স্বর্ণানন্দিনী নামে হানুমের যে উপন্যাসটির বাংলা অনুবাদ একসময় বাজারে পাওয়া যেত, তা রীতিমতো রাজনৈতিক-সামাজিক পটভূমিতে লিখিত বলা উচিত সুলিখিত। কামাল আতাতুর্ক এর সময়কার রাজনৈতিক পরিস্থিতির পটভূমিতে রচিত হয়েছে এই সাহিত্যকর্ম। কিন্তু এদের ভেতর বিশ্বসাহিত্যের আঙিনায় উঠে এসেছেন এবং সত্যিকার অর্থে খ্যাতির শীর্ষে উঠতে পেরেছেন একমাত্র কামাল বিল বাশার। আমি এখানে ওরহান পামুকের কথা অবশ্যই ভুলে যাইনি। ২০০৬ সালের নোবেল লরিয়েট পামুক যে চার শ’ বছরের তুরস্কের সামাজিক ইতিহাসকে বড় মাপের সাহিত্যের ভেতর তুলে ধরার জন্য যথাসাধ্য করেছেন, তাও বিস্মৃত হইনি। শুধু বলতে চাচ্ছি, বিল বাশারের মতো লেখকরা হচ্ছেন পামুক ও তার ভাবশিস্যগণের যথার্থ পূর্বসুরি।

কামাল বিল বাশারের পিতা, যিনি জন্মসূত্রে তুর্কি নন, ছিলেন ককেসাসের পাহাড়ি এলাকার মানুষ। তার মা বুলগেরিয়। বিলবাশারের জন্ম সাল ১৯১০। দু’বছর বয়সে তিনি পিতাকে হারান। পরে তার মা মেডিডোনিয়ার এক ভদ্রলোককে বিয়ে করেন। সব মিলিয়ে তাদের অবস্থা মোটেও ভালো ছিল না। সেসময় যুদ্ধে লিপ্ত তুরস্কের অবস্থা শোচনীয় হয়ে ওঠে। পরোক্ষভাবে যুদ্ধের ঢেউ এসে লাগে মানুষের পারিবারিক জীবনেও। কিশোর বাশারের কাছে অবশ্য ওই যুদ্ধ ভয়াবহ চেহারা নিয়ে হাজির হয়নি। তাই স্মৃতিকথায় বাশার কৈশোরের কথা বলেছেন এভাবে আমার যখন আট বছর বয়স মা আবার বিয়ে করেন। আমার সৎ বাবা ছিলেন একজন ধর্মপ্রাণ মুসলমান। আমি তার সাথে মসজিদে যেতাম, দরবেশদের আস্তানায় যেতাম। আমরা একসঙ্গে নামাজ পড়েছি। নামাজ শেষ করে নব্বই দানার তসবি পড়াও শিখেছিলাম। সে সময় জোব্বা পরা দরবেশদেরকে ঘুরে ঘুরে নাচ করতে দেখতাম তাদের আস্তানায়। ছেলেবেলায় আমার কাছে খেলাধুলার চাইতে ওই মসজিদে যাওয়া আর দরবেশদের নাচ দেখা বেশি ভালো লাগতো। (ইংরেজি থেকে অনুবাদ: লেখক)

পিতা তাকে হাফেজ বানাতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তার নিজের ইচ্ছা আর মায়ের প্রবল সমর্থনে বাশার ১৯২৯ সালে স্নাতক হন একটি শিক্ষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চতর ডিগ্রী অর্জন করেন ১৯৩৫ সালে। লেখক হিসেবে তার আত্মপ্রকাশ ১৯৩৭-এ ছোটগল্পের মাধ্যমে। বাশার কিছুকাল আরামাক নামে একটি মাসিক পত্রিকা বের করেছেন। আরামাক শব্দের অর্থ অনুসন্ধান। প্রথম গল্পগ্রন্থ প্রকাশিত হয় ১৯৩৯ সালে। বইটি প্রকাশের অল্প কয়েক বছরের ভেতর বিল বাশারের খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে চারদিকে। তিনি পুরস্কৃত হন। পরবর্তী দুই দশকে তার একাধিক গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে যার ভেতর গল্প উপন্যাস ছাড়াও রয়েছে চিন্তামূলক প্রবন্ধ, স্মৃতিকথা ইত্যাদি। ১৯৬১-তে শিক্ষকতা থেকে অবসর নেয়ার পর বাশার হয়ে ওঠেন সার্বক্ষণিক লেখক। ১৯৬৬ সালে প্রকাশিত হয় বিল বাশারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ জেমো। এটা উপন্যাস। এই গ্রন্থের জন্য বাশারকে দেয়া হয়েছে তুরস্কের সর্বশ্রেষ্ঠ সাািহত্য পুরস্কার। ‘জেমো’ বাশারকে তুলে এনেছে বিশ্ব সাহিত্যের দরবারে। ইউনেস্কো প্রকাশ করেছে এই বইয়ের ইংরেজী অনুবাদ। এর ফলে বাশার বহির্বিশ্বের পাঠকদের কাছেও একজন কৃতী পুরুষ হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছেন। তার অনান্য গুরুত্বপূর্ণ বই হচ্ছে ১. মেমো (উপন্যাস) ১৯৬৯; ২. ইয়েসিল জুলজে (উপন্যাস) ১৯৭০, ৩. মেমইরস (স্মৃতিকথা) ১৯৭৬।

তুর্কি রেনেসাঁর এক বরপুত্র কামাল বিল বাশার। কামাল পাশার নেতৃত্বে তুর্কিরা ১৯২০ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু করে এবং ১৯২৩-এ স্বাধীনতা অর্জন করে। তুর্কি প্রজাতন্ত্র গঠিত হওয়ার পর দ্রোহী স্বভাবের কামাল আতার্তুক সেদেশের রাষ্ট্রব্যবস্থায় নিয়ে আসেন আমূল পরিবর্তন। দেশ পরিচালনার কাজকে ধর্ম থেকে আলাদা করা হয়। বিলুপ্ত করা হয় খেলাফত। আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে আতার্তুক বড় ধরনের পরিবর্তন আনতে সক্ষম হয়েছিলেন। আগে আরবি হরফে তুর্কি লেখার প্রচলন ছিল। কামাল আতাতুর্কের নির্দেশে রোমান অক্ষরে তুর্কি লেখা আরম্ভ হয়। তুর্কি সাহিত্যের ক্ষেত্রে সূচিত হয় বিরাট পরিবর্তন। কেননা রোমান অক্ষরের মাধ্যমে তুর্কি ভাষার ধ্বনি প্রকরণ সহজ ও সুষমভাবে প্রকাশিত হতে পারে। আরবি ভাষার শাসন থেকে তুর্কি ভাষা মুক্তি পাওয়ার সাহিত্যিকগণ অভাবনীয় স্বাধীনতা ভোগ করতে শুরু করেন। তুর্কি সাহিত্য এবার প্রধানত বিশের দশকের মাঝামাঝি সময় থেকে, নিজস্ব গতি প্রকৃতি অর্জন করে। কামাল আতার্তুক কেবল আধুনিক তুরস্কের জন্মই দেননি, সেদেশের আধুনিক শিল্প সাহিত্য সৃজনের উপযোগী পরিবেশ সৃষ্টির ক্ষেত্রেও অগ্রণী পুরুষের ভূমিকা পালন করেছেন। বিল বাশার ও তার সমসাময়িক শ্রেষ্ঠ লেখকদের রচনার শাঁসে পৌঁছতে হলে তুরস্কের এই ইতিহাসটুকু মাথায় রাখা কর্তব্য।

১৯৩৯ সালটি কামাল বিল বাশারের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। ওই বছরেই তার প্রথম বই বেরোয়। গল্পের বই। রাতারাতি তিনি খ্যাতিমান হয়ে ওঠেন। এই খ্যাতির আগুনে ঘি ঢেলে দেয় একটি পুরস্কার। ১৯৬১ সালে তিনি চাকরি থেকে অবসর নিয়ে লেখালেখি কাজে পুরোপুরি মনোনিবেশ করেন। জেমোর, যেটা তার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে, ইতোমধ্যে আটটি সংস্করণ নিঃশেষিত হয়েছে। এর দ্বারাই বোঝা যায়, কথা সাহিত্যিকরূপে তিনি কতটা আদরণীয় পাঠকের কাছে।

এবার উপন্যাসটি সম্বন্ধে আলোচনা করা যাক। বরফ ঢাকা পর্বত, পাহাড়ি গুহা, পাহাড়ের নদী, উপত্যকা-এসবের পটভূমিতে রচিত জেমো হচ্ছে একটি কুর্দি মেয়ের গল্প। এই মেয়ের জীবনের কথা উপন্যাসে বর্ণিত হয়েছে দু’ভাবে। প্রথম অংশের বর্ণনা দিয়েছে তার বাবা। জীবনের দ্বিতীয় অংশ বর্ণনা করেছে তার স্বামী। দুই ব্যক্তির বয়ানের ভেতর দিয়ে জেমোর জীবনকাহিনী অর্জন করেছে অপরূপতা। বয়ানকারীগণ বেশিরভাগ সময় নিজেদের কথা বলেছেন, যেন নিজিদেরকে নায়করূপে প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছেন। বর্ণনা দু’জনের হওয়ার ফলে দুটি আলাদা অন্তরঙ্গ ভঙ্গি আমরা পাচ্ছি এখানে। লেখক সামগ্রিকভাবে তুর্কি লোক কাহিনীর ন্যারোটিভ স্টাইলের আশ্রয় নিয়েছেন যা বেশ সাফল্যের সঙ্গে প্রযুক্ত হয়েছে বলে মনে হয়।

‘জেমো’র গল্প আরম্ভ হয়েছে আনাতোলিয়া নামের এক উপত্যকায়। ওই পাহাড়ি অঞ্চলে জমিদারদের শোষণক্রিয়া তখনো অব্যাহত এবং দাপটি। গ্রামের মোড়লরা সাধারণ মানুষের সঙ্গে দাসের মতো আচরণ করছে। ফলে তাদের ন্যূনতম দাবিও অপূর্ণ থেকে যাচ্ছে। ক্ষুব্ধ হয়ে উঠছে জনসাধারণ। ১৯১৮ সালে ওসমানীয় সাম্রাজ্যের পতন ঘটার পর পশ্চিমারা তুরস্ককে বিভক্ত করে ফেলে। কুর্দিস্তান নামে একটি এলাকার জন্ম হয়। সেসময় কামাল পাশা আতাতুর্ক সামন্ত প্রথাকে ভেঙে ফেলে একটা বড় ধরনের পরিবর্তন আনতে চান। কামালের বিরুদ্ধে এবং সামন্তদের পক্ষে বিদ্রোহ ঘোষণা করে শাহ সাঈদ নামে এক ব্যক্তি। উপন্যাসের ঐতিহাসিক পটভূমিতে এই বিদ্রোহের চেহারা আমরা প্রত্যক্ষ করি। জেমোর বাবা জানো কামালের সমর্থক আরও বহু লোকের সঙ্গে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে। বিদ্রোহে শাহ সাঈদের পক্ষে নেতৃত্ব দিয়েছিল শরিক আঘা নামে আরেক ব্যক্তি। শত্রুপক্ষের হাতে আঘা ধরা পড়ে। পরে তার ফাঁসি হয়। পিতার ফাঁসি কার্যকর হওয়ার পর পুত্র শরিক উঘলু ভীষণ ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। সে জানো এবং কারগা দুজু গ্রামের চাষীদের মেরে ফেলার জন্য প্রস্তুতি নেয়। শরিক উঘলু শেষ পর্যন্ত মেমো ও তার স্ত্রী জেমোর হাতে মারা পড়ে। প্রতিশোধ নেয়া হলে মেমো এবং জেমো আলাদা আলাদা ঘোড়ার পিঠে সওয়ার হয়ে দ্রুত ওই উপত্যকা অঞ্চলটি ত্যাগ করে। পিছনে পড়ে থাকে যুদ্ধ-বিগ্রহের নানা চিহ্ন। ভোরের সূর্য ছড়িয়ে দেয় সোনারঙ। জেমো মেমো এগিয়ে যায় পাহাড় চূড়ার বরফের দিকে, যেন সিনেমার শেষ দৃশ্য। খুব সংক্ষেপে এই হলো জেমো উপন্যাসের কাহিনী।

গল্পটা অসাধারণ কিছু নয়। বইয়ে একাধিক থিম আছে যার একটি হচ্ছে সেই চিরকালিক প্রবঞ্চনা আর প্রতিশোধ। কিন্তু পরিবেশনরীতিটি অভিনব। বিদ্রোহ আর রক্তকান্ডের আন্তরিক বর্ণনা আছে গ্রন্থে, যা দ্বিতীয় অংশে মেমোর জবানিতে আমরা পাই। মেমো হচ্ছে জেমোর স্বামী। মেমোর মুখে তার স্ত্রীর বিচিত্র কর্মকান্ড বর্ণিত হয়েছে সংশয় আর সংঘর্ষের পটভূমিতে। এক্ষেত্রে স্বামীর ভাবমূর্তিটি উজ্জ্বলতর, বীরত্বময়। অন্যদিকে জানো (জেমোর পিতা) মেয়ের কার্যকলাপকে এমন ভঙিতে বর্ণনা করেছেন যেন কন্যা তার কিংবদন্তীর নায়িকা। এই বয়ানের ভেতর দিয়ে মেয়ের জন্য বাবার অহংকারটাই ফুটে উঠেছে বেশি পরিমাণে। বর্ণনায় কাব্যিকতাও চোখে পড়ে। উপন্যাসে লোকগীতির অংশ ব্যবহৃত হয়েছে বারবার, যা আমাদেরকে মনে করিয়ে দিচ্ছে, কাঞ্চনমালা উপন্যাসের কথা। কাঞ্চনমালায় শামসুদ্দীন আবুল কালাম প্রতিটি পরিচ্ছেদের শুরুতে একটি করে পল্লীগীতি ব্যবহার করেছেন। জেমো উপন্যাসে প্রযুক্ত একটি গানে জেমোর সৌন্দর্য বর্ণিত হয়েছে এভাবে-মেয়েটার ভ্রুজোড়া রাতের মতো ঘন কালো, তার দৃষ্টি তারার আলোর মতো, তার শরীরে আছে মধুর সুগন্ধ, আর তার হাঁটার ছন্দ রাজহংসীর মতো। (ইংরেজি থেকে অনুবাদ: লেখক)

তুর্কি লোকসাহিত্যে সচরাচর একজন কথক থাকেন যিনি সুরেলা বাক-ভঙ্গিতে কাহিনী বয়ান করে যান, ঠিক আমাদের পুঁথি পাঠের মতো। কিন্তু অনেক সময় দেখা যায়, কথক ব্যক্তিটি নিজেও কাহিনীর একটি চরিত্র। এই কৌশলটি কামাল বিল বাশার তার উপন্যাসে প্রয়োগ করেছেন। যেমন মেমো তার স্ত্রীর (জেমোর) কার্যকলাপ বর্ণনা করেছে কিন্তু সে নিজেও উপন্যাসের একটি চরিত্র। আনাতোলিয়া অঞ্চলের, জেমোর পটভূমি হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে যে স্থানটি, মানুষের মুখে মুখে শোনা যায় কুর্দিদের লোককাহিনী। এগুলোতে আছে গ্রামের মানুষের সহজ-সরল ভাষা। সেই ভাষার একটি গুণ সঙ্গীতিকতা। পর্যাপ্ত পরিমাণে উপভাষাও লক্ষ্য করা যায় এসব গল্পগাথায়। জেমো উপন্যাসে এসব উপকরণ দক্ষহাতে ব্যবহৃত হয়েছে। এর ফলে দুটি জিনিস ঘটেছে। এক, লোকসাহিত্য সার্থকভাবে প্রযুক্ত হওয়ার ফলে তাতে ধ্রুপদী সাহিত্যের যে জাজ অর্জন করা সম্ভব হয়েছে, কেননা লোককাহিনীর প্রাচীনতা এক্ষেত্রে একটা বড় ব্যাপার। দুই, উপন্যাসের গল্পটি গতিশীল ও সহজপাঠ্য হয়ে উঠেছে। অসংখ্য পাঠক কোনরকম বিরক্তি ছাড়াই বইটির স্বাদ নিতে পারবেন বলে মনে হয়।

শিল্পে আধুনিক কলা-কৌশল প্রয়োগের ক্ষেত্রে অন্যসব দেশের লেখকদের মতো তুরস্কের লেখকরাও পশ্চিমের ভাবধারা অনুসরণ করে চলেছেন। কিন্তু তুর্কি ইতিহাস-ঐতিহ্যের পরিপ্রেক্ষিতে যারা কলম চালাচ্ছেন, স্বদেশে এমনকি বিদেশেও তাদের মর্যাদা তুলনামূলকভাবে বেশি। ওরহান পামুকের মতো লেখককে যে নোবেল পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে তারও অন্যতম কারণ তার ঐতিহ্যজিজ্ঞাসা এবং স্বদেশঅন্বেষা। পামুকের সুযোগ্য পূর্বসূরী হিসেবে কামাল বিল বাশার যথেষ্ট সুনাম ও স্বীকৃতি অর্জন করেছেন। কেননা আঙ্গিক ও রচনারীতির ক্ষেত্রে পাশ্চাত্যের প্রেরণা কমবেশি কাজে লাগালেও সমাজ জিজ্ঞাসার বেলায় দেশি ঐতিহ্যের সীমা লঙ্ঘন করেননি তিনি।

সত্তরের দশকের মাঝামাঝি থেকে বাশার দেশের বাইরেও একজন শ্রদ্ধেয় লেখক হিসাবে পরিগণিত হচ্ছেন। তার এই ভাবমূর্তি নির্মাণে সবচেয়ে বড় পিলারের ভূমিকা পালন করেছে। ব্যতিক্রমী সাহিত্যকর্ম জেমো। আমার ধারণা বাঙালি পাঠকের কাছে এই উপন্যাস নতুন অভিজ্ঞতার দরজা খুলে দেবে। আমরা, সমতলভূমির মানুষেরা, পাহাড়ি পটভূমিনির্ভর কথাসাাহিত্যে অভ্যস্ত নই। সেজন্য পর্বত-ঝর্না উপত্যকা অধ্যুষিত এলাকার লোককাহিনীর উপাদান মিশ্রিত আধুনিক উপন্যাস এবং তার নির্মাণ শৈলী পাঠকের অনভ্যস্ত মনে অভিনবত্বের অনুভূতি নিয়ে হাজির হবে এটাই স্বাভাবিক।

[ad#co-1]

Leave a Reply