ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক মাদক পাচারের নিরাপদ রম্নট

দড়্গিণাঞ্চলের অন্যতম প্রবেশপথ ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক এখন মাদক পাচারের প্রধান ও নিরাপদ রম্নট হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এ রম্নট দিয়ে মাদকের পাশাপাশি অস্ত্র চোরাচালানেরও অভিযোগ রয়েছে।

আরিচা-দৌলতদিয়া রম্নট অনিরাপদ ও মাদক পাচারের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় ঢাকা-মাওয়া রম্নট হয়ে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের অন্যান্য স্থানে খুব সহজেই পৌঁছে যাচ্ছে ভারতীয় মাদক। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা দু’একটি ছোটখাটো চালান আটক করলেও বড় চালানগুলো থেকে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। জানা গেছে, ভারতের সীমানত্মবর্তী যশোরের বেনাপোল, চৌগাছা, শার্শা, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, ঝিনাইদহ ও সাতড়্গীরা জেলার সীমানত্ম দিয়ে পাচার হয়ে আসা প্রচুর মাদক ঢাকা-মাওয়া রম্নট হয়ে রাজধানীতে আসে।

বড় বড় চালান পাচারের জন্য ব্যবহার করা হয় মালবোঝাই ট্রাক, দূরপালস্নার বাসসহ, কালো গস্নাসের বিলাসবহুল গাড়ি। অনেক সময় পাচারের ড়্গেত্রে একসঙ্গে কয়েকটি বিলাসবহুল গাড়িও ব্যবহার করা হয়। সামনের গাড়িতে রাখা হয় চালানের অংশ এবং যাত্রীবেশে থাকে হাই সোসাইটির কলগার্লসহ উচ্চ লেভেলের পোশাকধারী একাধিক ব্যক্তি। তারা মাওয়া ঘাটের পরিবেশ পর্যবেড়্গণ করে নদীর ওই পাড়ে অপেড়্গমাণ মাদক ব্যবসায়ীদের সংকেত প্রদান করে। পর্যবেড়্গণকারীদের সংকেত বুঝেই চলে আসে মাদক। যাত্রীবেশে এবং হকার সেজেও পাচার করা হয় মাদকের ছোট চালান। ঢাকা-মাওয়া সড়ক পথে আসা মাদক চালানের কিছু অংশ বিক্রির জন্য থেকে যায় মাওয়া ঘাট, গোয়ালী মান্দ্রা বেদেপট্টি ও শ্রীনগরের বিভিন্ন স্পটে।

[ad#co-1]

Leave a Reply