মুক্তি ও সম্ভাবনার বয়ান

সৌমিত্র শেখর
অন্ধের মতো হাতড়াতে হয় না, প্রবন্ধ পাঠের আগে একটি দিকনির্দেশনা মেলে; সূত্র নির্বাচনে সহায়ক হয়; ক্রমিক না মেনেও এগিয়ে যাওয়া যায়। নূহ-উল আলম লেনিনের প্রবন্ধগুলোর মধ্যে বেশ কয়েকটি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশ পেলেও প্রায় সব প্রবন্ধেই আছে তার গবেষকসুলভ দৃষ্টি। বিষয় নির্বাচনেও তিনি একমুখী নন
সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে ‘শত্রুমুক্ত’ করে পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামের একটি সুন্দর দেশের জন্ম দিয়েছিলেন। তারপর চার দশকে পেরিয়ে গেছে। কখনও কখনও এ রকম কথা হামেশা আমাদের কানে আসে, চার দশক পরও স্বাধীনতা বা মুক্তিযুদ্ধের প্রসঙ্গ কেন? যারা প্রায়ই এ ধরনের প্রসঙ্গের অবতারণা করেন, নূহ-উল আলম লেনিনের স্বাধীনতার সন্ধানে গ্রন্থটির শিরোনাম তাদের আরও উস্কে দেবে নিশ্চয়ই; তারা বলবেন, এতদিনে আবার স্বাধীনতার ‘সন্ধান’! কিন্তু এ গ্রন্থটি পাঠ করে ভাবুক আর অনুসন্ধানীমাত্রই চিন্তামগ্ন হবেন; শ্বাপদসঙ্কুলতা থেকে পরিত্রাণের লক্ষ্যে আবার আত্ম-আবিষ্কারের চেষ্টা করবেন; আপনমনেই জিজ্ঞাসা উত্থাপন করবেন_ একাত্তরে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ সংঘটিত হলেও দেশ সত্যি কি ‘শত্রুমুক্ত’ হয়েছে, ভৌগোলিক স্বাধীনতা এলেও প্রকৃত ‘মুক্তি’ কি এসেছে লোক-মানুষের? তারা শুধু প্রশ্নেই সীমাবদ্ধ থাকবেন না, ইতি-নেতির দোলাচল থেকে এগিয়ে যেতে থাকবেন ইতির লক্ষ্যে, উপলক্ষ যা-ই হোক না কেন।

নূহ-উল আলম লেনিনের স্বাধীনতার সন্ধানে গ্রন্থে ১০ বছর ধরে লিখিত ঊনত্রিশটি প্রবন্ধ স্থান পেয়েছে। ‘সমাজচিন্তা’, ‘উন্নয়ন ভাবনা’, ‘বৈদেশিকী’, ‘রাজনীতি’_ এই চারটি ভাগে প্রবন্ধগুলোকে ভাগ করা হয়েছে। এক দশক ধরে রচিত বলে প্রসঙ্গগুলো পুরনো হয়ে যায়নি মোটেই। তবে সবকিছুই যে ১০ বছর ধরে এক আছে তেমনও তো নয়! যে বিষয় পরবর্তীকালে আরও ব্যাখ্যা দাবি করে সে বিষয়ে প্রবন্ধের নিচে ‘পাদটীকা’ সংযোজন করে লেখক নিজস্ব বক্তব্য রেখেছেন এবং এর ফলেই এক দশক ধরে রচিত প্রবন্ধনিচয় সমকালীন হয়ে উঠেছে। আরেকটি বিষয় বেশ আকর্ষণীয়, গবেষণামূলক রচনাতে যেমন থাকে_ প্রতিটি প্রবন্ধের শুরুতে ‘সারসংক্ষেপ’ প্রদান_ নূহ-উল আলমের প্রতিটি প্রবন্ধে তা দেখা যায়। ফলে অন্ধের মতো হাতড়াতে হয় না, প্রবন্ধ পাঠের আগে একটি দিকনির্দেশনা মেলে; সূত্র নির্বাচনে সহায়ক হয়; ক্রমিক না মেনেও এগিয়ে যাওয়া যায়। নূহ-উল আলম লেনিনের প্রবন্ধগুলোর মধ্যে বেশ কয়েকটি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশ পেলেও প্রায় সব প্রবন্ধেই আছে তার গবেষকসুলভ দৃষ্টি। বিষয় নির্বাচনেও তিনি একমুখী নন। পত্রিকায় শুধুই ‘কলাম’ লেখার সহজ তাড়নায় তিনি যে ‘কলমনিষ্ঠ’ হননি (একালে প্রায়ই যা দেখা যায়) নূহ-উল আলম লেনিনের প্রবন্ধের পাঠকমাত্রই তা বলবেন। তার প্রবন্ধে অনুসন্ধিৎসা আছে, বিষয়ের গভীরে প্রবেশের আয়াসে তিনি অক্লান্ত, সিদ্ধান্ত পরিণামাকাঙ্ক্ষী।

লেখকের ‘সমাজচিন্তা’ শিরোনামভুক্ত আটটি প্রবন্ধে গণতন্ত্র বিনির্মাণে গণমাধ্যমের ভূমিকা থেকে কানসাটের কৃষক আন্দোলন, নারী নেতৃত্ব বিষয়ক রক্ষণশীলদের ধারণার বিপরীতে প্রগতিশীল চিন্তার ধারাবাহিকতায় ‘ইসলাম ও নারী’ নিয়ে গবেষণাধর্মী বক্তব্য ব্যক্ত হয়েছে। ‘উন্নয়ন ভাবনা’ শিরোনামে বিশ্বায়নের পরিপ্রেক্ষিতে দেশের উন্নয়নের সূত্রসন্ধান আছে। পরিবর্তিত বিশ্বব্যবস্থায় বৈশি্বক আবেদনগুলো অস্বীকার না করেও যে দেশীয় স্বার্থ ঊধর্ে্ব রাখা সম্ভব, লেখক সেকথা উল্লেখ করেছেন। তাই দেশের বিদ্যুৎ-সংকট থেকে ডবি্লউটিও (হংকং) ঘোষণা নিয়ে নিজস্ব মত এ গ্রন্থে ব্যক্ত করেছেন লেখক। বাংলাদেশের সংকট কী?_ এ জাতীয় প্রশ্নের উত্তর খুঁজেছেন লেখক। তার বিবেচনায়, দুই প্রধান দলের নেত্রীর ব্যক্তিগত আলাপচারিতা না হওয়া বা দল দুটির মধ্যে বৈরী সম্পর্ক বিরাজিত থাকা দেশের সংকটের প্রধান কারণ, এ কথা সরলীকরণমাত্র। তিনি মনে করেন, অনুন্নয়ন, দারিদ্র্য, পশ্চাৎপদতা, বিদেশনির্ভরতা, দুর্নীতি এবং সুশাসনের অনুপস্থিতি ইত্যাদি বাংলাদেশের মূল সংকট। লেখকের এ বক্তব্যের সঙ্গে দ্বিমত প্রকাশ করার অবকাশ না থাকলেও এ কথা কি অস্বীকার করা যাবে যে, দেশের স্বার্থে দুই নেত্রীর ঐক্যবদ্ধ হওয়া ছাড়া গত্যন্তর নেই? ‘বৈদেশিকী’ শিরোনামে চারটি প্রবন্ধ অন্তর্ভুক্ত; প্রবন্ধের পরিধি এশিয়া থেকে আমেরিকা পর্যন্ত বিস্তৃত। এ পর্বে ইরাকে মার্কিন আগ্রাসনের রাজনৈতিক ফলাফল এবং বিশ্বব্যাপী এর প্রভাব বিশ্লেষণ করেছেন, একই সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গে বামফ্রন্ট শাসনের অভিজ্ঞতার আলোকে পথ দেখতে চেয়েছেন। ফ্রন্টের সীমাবদ্ধতা তার কাছে অপরিষ্কার নয়। কিন্তু তার পরও ফ্রন্টের অবদানকে লেখক স্মরণ করেছেন। এ থেকে তিনি আওয়ামী লীগকে শিক্ষা নিতে বলেছেন : ‘এজন্য আওয়ামী লীগকে মার্কসবাদ-লেনিনবাদ গ্রহণ করতে হবে না। একেবারে রেজিমেন্টড পার্টি হওয়ারও দরকার হবে না। তবে ইউরোপীয় সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটদের ধাঁচে একটি সুসংগঠিত, সুশৃঙ্খল জনকল্যাণে নিবেদিত আধুনিক উদার গণতন্ত্রী দল হলেই চলবে।’ (পৃ. ১৭৮) গ্রন্থের শেষ পর্ব ‘রাজনীতি’। মূলত স্বদেশ-রাজনীতির বারোটি প্রবন্ধের পসরা সাজানো এখানে। গ্রন্থের নাম-প্রবন্ধটিও এ পর্বভুক্ত। বর্তমান পর্বের প্রবন্ধগুলোর নামকরণেই একটি সময় স্পষ্ট হয়। সচেতন পাঠককে বলে দিতে হয় না কোন সময় বা কী প্রসঙ্গ প্রবন্ধগুলোতে লেখক ধারণ করেছেন। যেমন_ ‘১৪ দলের ২৩ দফার তাৎপর্য প্রসঙ্গে’; ‘সংস্কার প্রস্তাবের সমাধি ও নির্বাচনী চ্যালেঞ্জ’; ‘রাজনৈতিক দলের সংস্কার প্রসঙ্গে’; ‘১/১১-এর প্রত্যাশা ও সুযোগ হারানোর আশঙ্কা’; ‘জরুরি অবস্থা কী এবং কেন প্রত্যাহার প্রয়োজন’; ‘দিনবদলের সংগ্রাম : পটভূমি ও অঙ্গীকার’ ইত্যাদি প্রবন্ধের শিরোনামেই বিষয়বস্তুর প্রকাশ ঘটেছে। কোনো কোনো লেখায় রচয়িতা পরিশিষ্ট যুক্ত করায় প্রবন্ধের একাডেমিক গুরুত্বও বেড়ে গেছে। যেমন_ ‘গণতন্ত্র ও রাজনৈতিক সংস্কার প্রসঙ্গে’ প্রবন্ধে লেখক তিনটি পরিশিষ্ট সংযোজন করেছেন : ক. বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, ১১ দল, জাসদ, ন্যাপের তত্ত্বাবধায়ক সরকার ও নির্বাচন কমিশন সংস্কার প্রস্তাব; খ. নাগরিক কমিটি ২০০৬-এর নির্বাচনী ও রাজনৈতিক সংস্কার প্রস্তাব; গ. বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, ১১ দল, জাসদ ও ন্যাপ ঘোষিত অভিন্ন নূ্যনতম ২৩ দফা কর্মসূচি। এই পরিশিষ্টগুলো রচনাটির একাডেমিক মূল্য বৃদ্ধির সঙ্গে অনেক বেশি প্রামাণিক করেছে। ‘জরুরি অবস্থা কী এবং কেন প্রত্যাহার প্রয়োজন’ প্রবন্ধে লেখক অনেক বেশি সাহসী। তৎকালীন সেনাসমর্থিত সরকারকে প্রকারান্তরে ‘অবৈধ’ বলা এবং জরুরি অবস্থার মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠান না করার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে লেখক সময়ের দাবিই উত্থাপন করেছেন। আজ এ বিষয়ে মন্তব্য করা সহজ হলেও ২০০৮ সালের জুলাই মাসে এতটা সহজ ছিল না। আগ্নেয়গিরিতে বসে অগি্নর দহন নিয়ে ভাষ্য রচনা কঠিন কাজ। লেখক লেনিনের এ প্রবন্ধ রচনাও ঠিক তেমনি কর্ম। উত্তপ্ত সময়ের অগি্ন-হ্রেস্বার পিঠে চেপে তিনি রচনা করেছেন সত্যের বয়ান। আর এসবই বিশেষ অনুসন্ধানের প্রয়োজনে_ ‘স্বাধীনতা’ তার নাম।

একটি প্রবন্ধ গ্রন্থে যা থাকা প্রয়োজন স্বাধীনতার সন্ধানে গ্রন্থে আছে এর পুরোটাই। এখানে চিন্তার খোরাক মেলে, দুঃসময়ে সাহসী হওয়ার প্রেরণা পাওয়া যায়, বিরুদ্ধ সমকালে সত্যনিষ্ঠ আশা থাকে জাগরূক। আর গ্রন্থের গদ্য পাঠককে বিশেষভাবে আকৃষ্ট করে এর সাবলীল গতিময়তার কারণে।

স্বাধীনতার সন্ধানে, নূহ-উল আলম লেনিন, প্রচ্ছদ : সমরজিৎ রায় চৌধুরী, প্রকাশক : সময় প্রকাশন, ঢাকা, মূল্য : ৩৫০.০০

[ad#co-1]

Leave a Reply