মুন্সীগঞ্জে আলু বীজ সংকট

গোলজার হোসেন, মুন্সীগঞ্জ
মুন্সীগঞ্জে আলু চাষে ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন কৃষকরা। সার নিয়ে সমস্যা না থাকলেও বীজের উচ্চমূল্য ও চাহিদার তুলনায় ভালো বীজ না পাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন তারা। নিম্নমানের বীজের কারণে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে আলু উৎপাদন কম হবে বলে কৃষকরা জানিয়েছেন। এছাড়া এবার কীটনাশক ওষুধের দাম বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। জেলা কৃষি অফিস জানায়, গত বছর ৩৫ হাজার ৫৮৭ হেক্টর জমিতে আলু রোপণ করা হয়েছিল। এতে আলু আবাদ হয় ৯৪ হাজার ৩৪০ মেট্রিক টন। এ বছর ২৯ হাজার ৯৬০ হেক্টর জমিতে আলু রোপণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। জেলায় আলু বীজের চাহিদা রয়েছে ৭০ হাজার মেট্রিক টন; কিন্তু বিএডিসি বরাদ্দ দিয়েছে মাত্র ১ হাজার ৪৪০ টন। সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, মূল্যবৃদ্ধি ও ভালো বীজের অভাবে বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন আলু চাষিরা। তারা বাধ্য হয়ে নিম্নমানের বীজ চড়াদামে কিনে আলু রোপণ করছেন।

গত বছর পুরনো বীজ ২ হাজার ৪০০ টাকা বস্তা ছিল। এ বছর ৩ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বিএডিসি গত বছর ছিল ১ হাজার ৫০০ টাকা আর এ বছর ২ হাজার ৪০০ থেকে ২ হাজার ৫০০ টাকায় বীজ বিক্রি করেছে। বেসরকারি আলু বীজের মধ্যে বেলজিয়ামের ডায়মন্ড বাক্স গত বছর ৬ হাজার টাকা, যা এবার ৮ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কৃষকদের পছন্দের বীজ বিএডিসির ডায়মন্ড চাহিদার তুলনায় কম থাকায় কোনো কোনো জমিতে কৃষকরা তাদের নিজস্ব বীজের ওপর নির্ভর করে। সদর উপজেলার আলু চাষি মীর গোলাম কিবরিয়া বলেন, কৃষকরা এবার কম মূল্যে সার পেলেও বীজ নিয়ে চলছে বাড়াবাড়ি।

সরকার বিএডিসির আলু বীজ ‘এ’ গ্রেড কেজিপ্রতি ৩৮ টাকা, ‘বি’ গ্রেড ৩৫ টাকা নির্ধারণ করলেও কৃষকদের কেজিপ্রতি ৭০ থেকে ৭৫ টাকায় কিনতে হচ্ছে। এছাড়া হল্যান্ড থেকে আমদানিকৃত ডায়মন্ড বীজ কিনতে হচ্ছে কেজিপ্রতি ১৬০ থেকে ১৭৬ টাকায়। এখন কীটনাশক ওষুধ চড়ামূল্যে বিক্রি করলে কৃষকরা বিপদে পড়বেন। ঘাসিপুকুরপাড়ের আলু চাষি কাসেম চোকদার জানান, বীজ নিম্নমানের হলেও উচ্চমূল্যে এবার বিক্রি হচ্ছে। বীজের কারণে আবাদ কম হবে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক এ কে এম আমিনুর রহমান জানান, বিএডিসির বীজ উচ্চমূল্যে বিক্রি করার বিষয়টি মনিটরিং করা হচ্ছে। তবে মুক্তবাজার অর্থনীতির কারণে ডিলাররা দেশের বাইরে থেকে আলু বীজ আনলে সেগুলো মনিটরিং করা দুঃসাধ্য।

[ad#co-1]

Leave a Reply