সায়ান : আজ না হয় কাল

গত বছরের মে মাসে স্বনামে নিজের গাওয়া গানের প্রথম একক অ্যালবাম প্রকাশ করে সায়ান। অ্যালবামটি বাজারে আসতেই চারদিকে তার প্রশংসা শুরু হয়। কারণ গানের কথার বৈচিত্র্য আর সুরের মূর্ছনা একই মোহনায় এনে তিনি একরকম জাদুই করেছেন বলা যায়! ফলে এক নিমিষেই সঙ্গীতপ্রেমীদের মনে জায়গা করে নেন ফারজানা ওয়াহিদ সায়ান। তিনি এখন ব্যস্ত নিজের দ্বিতীয় একক অ্যালবাম ‘আবার তাকিয়ে দেখ’র কাজ নিয়ে। ডাবল সিডির এ অ্যালবামে গান থাকছে মোট ২০টি। এটি বাজারে আনছে গানপোকা ডিস্ট্রিবিউশন। এ অ্যালবামের সব গানের কথা ও সুর সায়ানের। আগামী ২০ ডিসেম্বর জাতীয় জাদুঘরের শহীদ জিয়া মিলনায়তনে বরেণ্য শিল্পী শাহনাজ রহমতউল্লাহ অ্যালবামটির মোড়ক উন্মোচন করবেন। এ প্রসঙ্গে সায়ান বলেন, ‘আপাতত জমে থাকা গানগুলো দিয়েই সাজিয়েছি অ্যালবামটি। ডাবল সিডির একটিতে থাকবে আমাদের স্বাধীনতা ও বিদ্রোহের গান। আর অন্যটিতে রেখেছি হালকা মেজাজের গান।’

১৫ বছর বয়সে প্রথম গান লিখেছিলেন সায়ান। তা-ও আবার একজনের ওপর খুব হিংসা করে। পরিচিত একজন গান লিখে সায়ানের এক বন্ধুকে মুগ্ধ করেছিল। সেটা দেখে সায়ানের খুব হিংসা হলো। তার মনে হলো, ‘গান লিখে এত সহজেই মানুষকে মুগ্ধ করে ফেলা যায়? দেখি, আমিও পারি কি-না। লিখতে বসে গেলাম, দেখলাম, আমিও তো পারি!’ তারপর আর হিংসাতে নয়, বরং গান লেখায় আনন্দ খুঁজে পেলেন।

সায়ানের বাবা খসরু ওয়াহিদ গান করতেন। চাচা ফেরদৌস ওয়াহিদ, চাচাতো ভাই হাবিব ওয়াহিদ গান করেন। বাবার বংশের সবাই গান করলেও গানে সায়ানের হাতেখড়ি হয় মায়ের পরিবার থেকে। মা নাজমা বানু যখন গানের শিক্ষকের কাছে তালিম নিতেন, তখন ছোট্ট সায়ান তার পাশে বসে সেগুলো খুব মনোযোগ দিয়ে শুনতেন। এক-দু’বার শোনার পরেই গানগুলো অনায়াসে রপ্ত করে ফেলতেন। মূলত মায়ের সঙ্গে থাকার সময়ে তার গান শোনার ক্ষেত্রে ভিন্ন একটা রুচি তৈরি হয়েছিল। ফলে সায়ান একসময় মনে করলেন, যেহেতু সঙ্গীত নিয়ে তার সবচেয়ে বেশি আনন্দ, তাই সঙ্গীতসাধনা শুরু করলেন। আর সেই সাধনার ফসল হল ‘সায়ানের গান’ অ্যালবামটি। সায়ান কখনও ভাবেননি, তিনি জনপ্রিয় হবেন। সবসময় ভাবতেন গান করতে হবে। নিজের স্বাধীনতা দরকার। কারণ তিনি জানালার ধারে বসে গান করার জন্য গান করেন না। তবে সবসময় শিল্পী হওয়ার একটা ইচ্ছা ছিল তার।

সায়ান হতে চান একজন শিল্পী। প্রথম অ্যালবাম প্রকাশের কিছুদিন পরেই সায়ানকে দেখা যায় একুশে টেলিভিশনের ‘ফোনো লাইভ স্টুডিও কনসার্ট’-এ। একদিকে গান আর অন্যদিকে নিজের গানের সঙ্গে নিজেই বাজাচ্ছেন নানা যন্ত্রাণুষঙ্গ। এটা দেখে অনেকেই বলেছেন, আরে মেয়েটা অন্য সবার চেয়ে আলাদা। কিন্তু সায়ান বলেন, ‘আমার কাছে গানটাই মূল। একটা গানের তিনটি অংশ থাকে_ কথা, সুর এবং কণ্ঠ। এই তিনটিকেই খুব কাছাকাছি থাকতে হবে। আমার যত গান, সব আমার মতোই। এখন পৃথকভাবে বলতে গেলে, অনেকে যেমন আধুনিক বাংলা গানের মতো রাগপ্রধান গান করে, বা বিশুদ্ধ প্রেমের গান করে, ঠিক ওরকম না।’

গানে তাকে প্রভাবিত করেছে কে? এ প্রশ্ন অনেকের। সায়ান বলেন, ‘বেশিরভাগ মানুষই আমাকে কম-বেশি প্রভাবিত করে। ধরা যাক, আপনি একটা গান গেয়েছেন, সেটা থেকে আমার যেটা দরকার আমি আপনার থেকে নিয়ে নেব চুপিচুপি। আপনি টেরও পাবেন না। আমার এক নম্বর মানুষটির নাম শাহনাজ রহমতউল্লাহ। তার কিছু গান আমি গাইতাম। ওটাই ছিলো আমার গানের চর্চা। আমি কোনো প্রাতিষ্ঠানিক তালিম নেওয়ার সুযোগ পাইনি। এটা লজ্জারই কথা! কিন্তু সব দোষ আসলে আমারও না। মানে ওভাবে আমাকে কখনো গানের কেতাবি স্কুলে পাঠানো হয়নি। যখন বুঝতে শিখলাম, ততদিনে অনেক বড় হয়ে গেছি। এ কারণে কেউ মূলত গুরু হয়নি আমার। তবুও যাদের নাম বলতে হয়, তাদের মধ্যে শুরুতেই আছেন সুমন চট্টোপাধ্যায়।’

গানের মাধ্যমে আপনি কী বক্তব্য তুলে ধরতে চান? ‘আমি যা অনুভব করি সেটাই দেওয়ার চেষ্টা করি। এটা খুবই সাধারণ একটা প্রবণতা। যেমন, আপনি যখন একটা ভালো ছবি দেখেন, আপনি আপনার প্রিয় বন্ধুকে বলেন, এইটা দেখেছিস? এইটা দেখিস কিন্তু। তারপর সে দেখে। তারপরে আবার আপনি জিজ্ঞাসা করেন, কেমন লাগল? ওর হয়তো ভালো লাগেনি, বুঝলাম না, তোর কি করে ভালো লাগে নাই… আমার তো খুব ভালো লাগছে। এ ধরনের ব্যাপার আর কি! বাংলাদেশে সঙ্গীতশিল্পের যারা শ্রোতা, তাদের কত ভাগ মানুষ বাংলা ভাষাকে ভালোভাবে জানে? সারা পৃথিবীতে যত বাঙালি আছে, সবাই আমার গান শুনুক। আজ না হয় কাল শুনুক। এই প্রত্যাশাটা সবসময়ই করি।’

[ad#co-1]

Leave a Reply