পদ্মার পানিপ্রবাহ পর্যবেক্ষণে জেআরসি কর্মকর্তারা

গঙ্গার পানিবণ্টন চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশ-ভারত যৌথ নদী কমিশনের (জেআরসি) কর্মকর্তারা হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টের কাছে পদ্মা নদীর পানিপ্রবাহ পর্যবেক্ষণ করেছেন। শুক্রবার জেআরসি কর্মকর্তারা পদ্মা নদীর হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টের দশ হাজার ফুট উজানে পানিপ্রবাহ পর্যবেক্ষণ করেন বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) পাবনা হাইড্রোলজি বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী কবিবুর রহমান।

চুক্তি অনুযায়ী প্রতি বছর ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ মে পর্যন্ত জেআরসির পানি বিশেষজ্ঞ দল ভারতের ফারাক্কা ও বাংলাদেশের হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে পানিপ্রবাহ পর্যবেক্ষণ করে থাকে।

বিগত আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ১৯৯৬ সালে ভারতের সঙ্গে এ চুক্তি স্বাক্ষর হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে জেআরসির এক কর্মকর্তা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, চুক্তি হলেও ভারত বাংলাদেশকে কম পানি দিয়ে আসছে। তারা একতরফাভাবে গঙ্গার পানি প্রত্যাহার করায় পদ্মা নদী শুকিয়ে যাচ্ছে।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রতিনিধি জানান, হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে পানিপ্রবাহ পর্যবেক্ষণের জন্য বৃহস্পতিবার ভারতীয় জল ও বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের দুই সদস্যের প্রতিনিধিদল ভেড়ামারা পৌঁছান। তারা হলেনÑ ভারতীয় পানি কমিশনের উপ-পরিচালক শ্যাম নারায়ণ সিং ও সহকারী পরিচালক সুনিল কুমার সিনহা।

পনিপ্রবাহ পর্যবেক্ষণে বাংলাদেশের তিন সদস্যের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন কবিবুর রহমান।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, “চুক্তি অনুযায়ী (১-১০ জানুয়ারি) প্রথম মাসের প্রথম সাইকেলে গড়ে প্রতিদিন ৬৭ হাজার ৬৫০ কিউসেক পানি পাওয়ার কথা। কিন্তু পদ্মায় যে পানিপ্রবাহ রয়েছে তাতে এবারও নায্য হিস্যা না পাওয়ার আশঙ্কা আছে।”

চুক্তির পর থেকে কোনো বছরই বাংলাদেশ তার নায্য হিস্যা পায়নি বলে তিনি জানান।

পানি না পাওয়ায় গত ৭-১১ ডিসেম্বর গঙ্গা-কপোতাক্ষ সেচ পাম্প বন্ধ করে দিতে হয়েছিল জানিয়ে ভেড়ামারা পাম্প স্টেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী মোশারফ হোসেন বলেন, “পদ্মার পশ্চিমপাড় ভেড়ামারাসহ আশপাশের এলাকার আবহাওয়া ও পরিবেশ আস্তে আস্তে পাল্টে যাচ্ছে। দিনের বেলায় প্রচণ্ড গরম আর রাতে কনকনে শীত অনুভূত হচ্ছে।”

[ad#co-1]

Leave a Reply