পদ্মাপাড়ে মাটিকাটার ধুম

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে পদ্মাপাড়ের মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছে প্রভাবশালীরা
মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকুল ও বাঘরা ইউনিয়নের নয়টি গ্রামের পদ্মাপাড় থেকে বালি ও মাটিকাটার মহোৎসব চলছে। এখান থেকে প্রতিদিন অবৈধভাবে কয়েক লাখ ঘনফুট বালি ও মাটি কেটে নেয়া হচ্ছে। দুই শতাধিক শ্রমিক কোদাল-ওড়া নিয়ে বালি কাটায় মহাব্যস্ত। দিন-রাত বালি ও মাটি কেটে চলেছে তারা। কোথায় বালি নিয়ে যাওয়া হচ্ছে তা শ্রমিকরা জানেন না। জানেন না কার বা কাদের নির্দেশে মাটি কাটছেন তারা। পদ্মাপাড়ে যত্রতত্র অপরিকল্পিতভাবে মাত্রাতিরিক্ত মাটিকাটার ফলে হুমকির মুখে নয়টি গ্রামের হাজার হাজার বসতবাড়িসহ বিস্তীর্ণ এলাকা। উৎকণ্ঠায় রয়েছেন ওই অঞ্চলের বাসিন্দারা।

গ্রামবাসী জানায়, শ্রীনগর উপজেলার পদ্মাপাড়ে প্রতিদিন কয়েক লাখ ঘনফুট বালি ও মাটিকাটা হচ্ছে। এখানকার ভাগ্যকুল ও বাঘরা ইউনিয়নের নয়টি গ্রামে পদ্মাপাড়ের বালি ও মাটি কেটে নেয়ার মহোৎসব চলছে। ওই দু’টি ইউনিয়নের মান্দ্রা, ভাগ্যকুল, চারিপাড়া, জেলেপাড়া, মাঠপাড়া, বাঘরা, কবুতরখোলা, কেদারপুর ও কামারগাঁও গ্রামের পদ্মা নদীর পাড়ে বালি কেটে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। মাটিকাটার ফলে পদ্মাপাড়ে ৮-১০ ফুট গভীরে গর্ত সৃষ্টি হচ্ছে। একেকটি গর্ত থেকে কয়েক হাজার ঘনফুট বালি কেটে থাকেন শ্রমিকরা। তাছাড়া কার্গো ও জাহাজে করেও বালি নেয় অনেকে। একটি জাহাজের বালি ও মাটি বিক্রি করা হয় ৩ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকায়। একটি ট্রাকের বালি ও মাটির দাম এক হাজার টাকা এবং এক ট্রলি বালুর দাম পড়ে ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা। কাদের নির্দেশে চলছে পদ্মাপাড়ে ওই বালু লুটের মহোৎসব কেউই তা জানাতে পারেনি। তবে গ্রামবাসী কারো নাম-পরিচয় জানাতে না পারলেও এ কাজের সঙ্গে ক্ষমতাসীন দলের অন্তত পাঁচটি সিন্ডিকেট জড়িত রয়েছে বলে জানা গেছে। আবার ওই সিন্ডিকেট প্রশাসনের সুনজরে থেকে বালু লুট করছে বলে গ্রামবাসীর অভিযোগ।

[ad#co-1]

Leave a Reply