সম্মাননা পেলেন ফরিদুর রেজা সাগর ও রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা

প্রবাস প্রজন্মের মিলনমেলা
রাহমান মনি
গত ১৭ জানুয়ারি রবিবার জাপানের রাজধানী টোকিওর কিতা সিটি তাকিনোগাওয়া কাইকান হলে তৃতীয় বারের মতো অনুষ্ঠিত হয়ে গেল দুই প্রজন্মের মিলনমেলাখ্যাত প্রবাস প্রজন্ম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টোকিও বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত আশরাফ-উদ-দৌলা, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এশিয়ান পিপল্স ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটি (এপিএফএস)-এর সভাপতি কাৎসুও ইয়োশিনারি। অনুষ্ঠানের বিশেষ আকর্ষণ দুই প্রজন্মের মিলনমেলাকে অনুপ্রাণিত করার জন্য সুদূর বাংলাদেশ থেকে ছুটে এসেছেন চ্যানেল আই এবং ইমপ্রেস গ্রুপ লিমিটেড-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব, শিশুসাহিত্যিক ফরিদুর রেজা সাগর। দুই বাংলার গর্ব, কণ্ঠশিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যাকে কাছে পাওয়া ছিল অনুষ্ঠানের অন্যতম আকর্ষণ। প্রবাস প্রজন্মের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে তাদের ডাকে শত ব্যস্ততার মাঝেও স্বনামধন্য এ দুই ব্যক্তিত্ব ছুটে আসেন জাপানে।

প্রবাসী প্রজন্মের শিশু-কিশোররা তাদের প্রিয় ব্যক্তিত্ব ফরিদুর রেজা সাগর এবং রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যাকে কাছে পেয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়ে। ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে নিজেদের করে নেন।

দেশবরেণ্য এ দুই বিশিষ্ট ব্যক্তি রবীন্দ্র সঙ্গীতশিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা এবং শিশুসাহিত্যিক, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব, ইমপ্রেস গ্রুপ ও চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগরকে প্রবাস প্রজন্ম জাপান সম্মাননা-২০১০ প্রদান করা হয়। চার শতাধিক প্রবাসীর উপস্থিতিতে এক জাঁকজমক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে তাদের হাতে এই সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা।

ফরিদুর রেজা সাগর তার অনুভূতি জানিয়ে বলেন, পৃথিবীর অনেক দেশেই প্রবাসী বাঙালিরা অনেক ভালো ভালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকেন। আমাদেরও যাওয়ার সৌভাগ্য হয়। তবে তার সবগুলোই বড়দেরকে কেন্দ্র করে। কিন্তু একমাত্র জাপান প্রবাসী বাঙালিরাই শুধুমাত্র ছোটদেরকে নিয়ে এমন বর্ণাঢ্য আয়োজন করে থাকেন। এটি একটি বিরল দৃষ্টান্ত। তৃতীয়বারের মতো আয়োজন করতে পারাটা সত্যিই প্রশংসনীয়। ড. জাফর ইকবাল স্যার এর সূচনাতে এসে বাচ্চাদের উৎসাহ দিয়ে গেছেন। তারই ধারাবাহিকতা চলছে। আশা করি ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। আমি না আসতে পারলেও যে কোনো ধরনের সহযোগিতা থাকবে।

রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা বলেন, প্রবাসে এমন আয়োজন করার জন্য আয়োজকদের প্রশংসা জানাই। আমি আপনাদের উদ্দেশ্যের কথা জানতে পেরেছি। জাপানে বেড়ে ওঠা বাংলাদেশি শিশু-কিশোরদের বাংলাদেশ, বাংলা ভাষা এবং বাংলা সংস্কৃতি পরিচয় করানো ও তার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট করার জন্য আপনাদের এই আয়োজন। কিন্তু উদ্দেশ্য যাই হোক না কেন প্রথমেই শিশুদেরকে শৃঙ্খলাবদ্ধ থাকতে হবে। প্রতিটি অভিভাবককে এ ব্যাপারে সহযোগিতা করতে হবে। একজন অভিভাবকই হন একটি শিশুর প্রথম শিক্ষক। একজন ভালো মা-ই একজন ভালো শিক্ষক হয়ে থাকেন। প্রথম শিক্ষাটি শিশু পেয়ে থাকে তার মায়ের কাছ থেকে। তাই শিশুটিকে প্রথমেই শৃঙ্খল হওয়ার শিক্ষা দিতে হবে। প্রতিটি শিশুর মধ্যেই প্রতিভা আছে। সেই প্রতিভা বের করে তাকে কাজে লাগাতে হবে। যত ব্যবস্থাই থাকুক না কেন একটু সময় বের করে শিশুটিকে বাংলাদেশ, বাংলা ভাষা এবং বাংলা সংস্কৃতি শিক্ষা দিতে হবে। শুধুমাত্র বছরে একটি অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে কিছু শেখালে সেটি প্রকৃত কাজে আসবে না। এ জন্য নিয়মিত অনুশীলনের ব্যবস্থা নিতে হবে। বাসায় যখন সন্তানের সঙ্গে কথা বলবেন তখন বাংলা চর্চা রাখলে অনেকটাই কাজে আসবে।

রাষ্ট্রদূত আশরাফ-উদ-দৌলা বলেন, আমার সৌভাগ্য প্রবাস প্রজন্মের তিনটি আয়োজনের তিনটিতেই আমি প্রধান অতিথি হতে পেরেছি। এটি আমার জন্য বিরল সম্মান। ৩৫ বছর কূটনৈতিক জীবনে এমন সুন্দর আয়োজন শিশুদের নিয়ে আমি আর কোথাও পাইনি। জাপান প্রবাসীদের যে কোনো আয়োজনে সবার স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ আমাকে বিমোহিত করে।

এশিয়ান পিপল্স ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটি সভাপতি কাৎসুও ইয়োশিনারি বলেন, জাপানে বাঙালি কমিউনিটিটি খুবই সুনাম অর্জন করতে পেরেছে। এপিএফএস প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশিদের অবদান উল্লেখযোগ্য। সে জন্যই জন্মলগ্ন থেকেই প্রতিষ্ঠানটির উচ্চ পদগুলো সব সময় বাংলাদেশিদের দখলে থাকে। এর বেশিরভাগ সদস্যই বাংলাদেশি। শিশুদের নিয়ে এমন একটি মহতী উদ্যোগ অন্য কোনো দেশের কমিউনিটি নিতে পেরেছে বলে আমার জানা নেই। এ জন্য বাংলাদেশিরা কৃতিত্বের দাবি রাখে।

জাপান বিদেশি সাংবাদিক ক্লাবের সভাপতি মঞ্জুরুল হক বলেন, এমন একটি মহতী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পেরে আমি খুবই গর্ববোধ করছি। আমার বাংলাদেশি ভাইয়েরাই কেবল এমন আয়োজনের উদ্যোগ নিতে পারেন এবং একটু গভীরে গেলে দেখা যাবে এর সঙ্গে যারা জড়িত তারা সকলেই সাংবাদিকতা কিংবা লেখালেখির সঙ্গে জড়িত।

অভিভাবক আবু হোসেন রনি বলেন, প্রবাসী প্রজন্মের ছেলেমেয়েদেরকে বাংলাদেশে থাকা ছেলেমেয়েদের চেয়ে একটি ভাষা বেশি রপ্ত করতে হয়। এ জন্য তাদের ওপর একটি বাড়তি চাপ থাকে। অভিভাবকদের ওপরও এই চাপটি থাকে। তারপরও অভিভাবকদের তাদের সন্তানকে এমনভাবে গড়া উচিত যাতে করে তার মনের মধ্যে যেন গেথে যায় যে, বাংলা তার ভাষা, বাংলাদেশ তার দেশ, সে বাঙালি এটাই তার অহঙ্কার। এই প্রজন্মই হয়ত একদিন দেশ পরিচালনার দায়িত্ব নেবে। নোবেল জয়ী হয়ে দেশের জন্য বিরল সম্মান বয়ে আনবে।
হিমু ইসলাম বলেন, প্রতিদিন কাজ শেষে ঘরে ফিরে যখন নিজের সন্তান দুটির হাসিমুখ দেখি তখন মনে হয় সারা বিশ্বের সবগুলো ছেলেমেয়ের মুখে যদি হাসি ফুটাতে পারতাম। শিশুদের জন্য কিছু করার ইচ্ছা আমার সবসময় আছে। শিশুদের কল্যাণে যে কোনো কাজে আমার সহযোগিতা থাকবে। উল্লেখ্য, হিমু ইসলাম প্রবাস প্রজন্মের সবগুলো আয়োজনেই প্রধান পৃষ্ঠপোষক।

ববিতা পোদ্দার প্রবাসী প্রজন্মকে বাংলাদেশীয় সংস্কৃতি বিকাশে এমন আয়োজনের প্রশংসা করে বলেন, আসলে আমরা সবসময় নিজেদের নিয়ে ব্যস্ত থাকি। শিশুদের নিয়ে কিছু ভাবি না। প্রবাস প্রজন্মের এ আয়োজন আমাদের মধ্যে ব্যাপক উদ্দীপনা কাজ করে।

সম্মাননা প্রদান এবং আলোচনা শেষে প্রবাসী শিশু-কিশোররা এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপহার দেয়। নিয়াজ আহমেদ জুয়েল এবং রাহমান মাহিনুর আইকে (ইফা)’র উপস্থাপনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রথমেই মাহাদি মাইন ঠাকুর পিয়ানোতে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত যখন বাজান হল ভর্তি দর্শক-শ্রোতা তখন দাঁড়িয়ে জাতীয় সঙ্গীতের প্রতি সম্মান দেখান। এ সময় অনেক জাপানিও দাঁড়িয়ে সম্মান দেখান। প্রবাস প্রজন্ম সংবাদ পাঠ করেন রাহমান আশিক। এ ছাড়া অন্যান্যের মধ্যে ছিল যেমন খুশি সাজো, নাচ, গান, আবৃত্তি, পাপেট শো, অভিনয়, কৌতুক, গীতিনাট্য এবং ফ্যাশন শো। বাংলাদেশ প্রবাসী কল্যাণ সমিতি আয়োজিত ফ্যাশন শো (বাংলাদেশীয় পোশাকে) নতুনত্বের পাশাপাশি সকলের দৃষ্টি আকর্ষণে সক্ষম হয়।

দর্শকদের অনুরোধে রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা দুইবার স্টেজে উঠে অনেকগুলো রবীন্দ্র সঙ্গীত পরিবেশন করেন। এই সময় দর্শক-শ্রোতারা তার সঙ্গে কণ্ঠ মেলান। এক পর্যায়ে দর্শক সারি থেকে কিছু শিল্পী স্টেজে উঠে যান এবং বন্যার সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে একাত্ম হয়ে যান। হল ভরা দর্শক বন্যার গান শুনে মুগ্ধ হন।

আলোচনাসভার সভাপতিত্ব করেন প্রবাস প্রজন্ম ২০১০ উদ্যাপন কমিটির আহ্বায়ক মুনশি খ. আজাদ। সার্বিক দায়িত্বে ছিলেন সাপ্তাহিক টোকিও প্রতিনিধি রাহমান মনি। মিডিয়া পার্টনার ছিল সাপ্তাহিক পাঠক ফোরাম জাপান, পরবাস (জাপানের বাংলা কাগজ), জেটিভি এবং জেবিসি ইনফু।

উল্লেখ্য, প্রতিবছর বাংলাদেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বদের ‘প্রবাস প্রজন্ম জাপান’ সম্মাননা জানিয়ে আসছে। প্রবাসী প্রজন্মকে বাংলাদেশি সংস্কৃতি এবং বাংলাদেশকে পরিচয় করানোর জন্য দেশবরেণ্য ব্যক্তিদের আমন্ত্রণ জানিয়ে এ সম্মাননা দেয়া হয়। প্রচুর জাপানিসহ অন্যান্য দেশের নাগরিকরাও এই অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। এর আগে এই সম্মাননা জানানো হয়েছে শিশুসাহিত্যিক, বিজ্ঞানী এবং শিক্ষক ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল, সাপ্তাহিক সম্পাদক, জাপান প্রবাসীদের প্রিয়মুখ গোলাম মোর্তোজা প্রমুখকে।
rahmanmoni@gmail.com

[ad#co-1]

Leave a Reply