কাকরাইলে বাস চাপায় শিশু ছাত্র নিহত

কি মর্মান্তিক দৃশ্য! স্কুল থেকে বের হয়ে মায়ের আঁচল ধরে হাঁটছে। আঁচল ধরে হাঁটা ছোট এই শিশুর নাম হামিম শেখ (৬)। মা ছাড়া এক মুহূর্ত থাকতে চাইতো না সে। স্কুলে যেতে চাইত না। তাই স্কুল থেকে বের হয়ে মায়ের আঁচল আঁকড়ে রাস্তা পার হয়। রাস্তা পার হয়ে একটি রিকশায় ওঠার সময় ঘটে সেই মর্মান্তিক ঘটনা। পেছন থেকে একটি বাস আচমকা ধাক্কা দেয় রিকশাকে। এতে মা ও শিশু দুইজনই রাস্তায় ছিটকে পড়ে। বাসটি হামিমকে চাপা দেয়। ঘটনাস্থলেই চিরতরে বিদায় নেয় হামিম। তার মা সোনিয়া বেগমকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে কাকরাইল ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে নেয়া হয়। গতকাল বুধবার সকালে রাজধানীর কাকরাইলে উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা ৫/৬টি যানবাহন ভাংচুর করে। এসময় প্রায় ১ ঘন্টা কাকরাইল সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। ঘাতক বাস ও চালককে আটক করে রমনা থানা পুলিশ। নিহত হামিম শেখ ছিল উইল্স লিট্ল ফ্লাওয়ার স্কুল এন্ড কলেজের প্রভাতী শাখার কেজি ক্লাসের ছাত্র। হামিমের মৃত্যুর ঘটনায় স্কুলে ২ দিনের ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ লে. কর্নেল মোহাম্মদ মইনুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বেলা ১১টা ১০ মিনিটের দিকে হামিম এবং তার মা স্কুলের গেটের সামনের রাস্তা পার হন। এরপর একটি রিকশায় উঠতে গেলে মধুমতি পরিবহনের একটি বাস পিছন থেকে তাদের রিকশাকে ধাক্কা দেয়। এতে হামিম ও তার মা রিকশা থেকে ছিটকে রাস্তায় পড়ে যান। এসময় বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায় হামিম। ঘাতক বাসটি দ্রুত পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে বাসের যাত্রীরা প্রধান বিচারপতির বাসার সামনে বাসটি আটকে দেয়। এরপর বাসচালক শামসুর রহমানকে রমনা থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়। স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে হামিমের মাকে উদ্ধার করে কাকরাইল ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে ভর্তি করে। পরবর্তীতে তাকে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। হামিমের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে স্কুলের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা কাকরাইল ভিআইপি সড়ক অবরোধ করে। এতে কাকরাইল মসজিদ থেকে কাকরাইল মোড় পর্যন্ত সড়কে দুই ঘণ্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। এসময় উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা কাকরাইল মোড়ে মধুমতি পরিবহনের তিনটি বাস ভাংচুর করে। এ পরিস্থিতিতে দুপুর একটার দিকে স্কুলের শিক্ষক এবং পুলিশ সদস্যরা বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের সড়ক থেকে সরিয়ে নিলে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়। এদিকে পুলিশ ময়না তদন্তের জন্য হামিমের লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল এন্ড কলেজের প্রিন্সিপাল লে.ক. মইনুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় স্কুল কর্তৃপক্ষ শোকাহত। এ কারণে বৃহস্পতিবার স্কুল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। স্কুলের সামনের সড়কে আর যেন এ ধরনের দুর্ঘটনা না ঘটে সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সিটি কর্পোরেশন এবং পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে স্কুল কর্তৃপক্ষ আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে। তিনি জানান, নিহত হামিম উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের বাংলা মাধ্যমে কেজি শ্রেণীর খ শাখার ছাত্র ছিল। তার বাবার নাম মোতালেব শেখ। হামিম ছিল বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান। তাদের বাসা পুরান ঢাকার সুরিটোলার ১০৮, লুৎফর রহমান লেনে । তাদের গ্রামের বাড়ি মুন্সিগঞ্জে।

এদিকে একমাত্র সন্তানের মৃত্যুর খবরে পাগলপ্রায় বাবা মোতালেব শেখ। ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে ছেলের লাশ দেখে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তিনি। কারো কাছেই যেন পুত্রহারা এ বাবাকে সান্ত¡না দেয়ার ভাষা নেই। পরিবারের অন্য সদস্যরাও শোকে পাথর হয়ে গেছেন। হামিমের স্বজনদের আহাজারিতে ভারি হয়ে উঠছিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গ এলাকা।

এদিকে গতকাল দুপুরে সবুজবাগের কমলাপুর বিশ্বরোডে বাস চাপায় জাহাঙ্গীর হোসেন (৩৫) নামে এক ব্যক্তি মারা গেছেন। গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে জাহাঙ্গীর হোসেন কমলাপুরে রেল স্টেশনের ওভার ব্রীজের পূর্ব পাশ দিয়ে রাস্তা পার হচ্ছিলেন। এসময় পেছন থেকে একটি বাস তাকে চাপা দিয়ে দ্রুত চলে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। দুপুর ২টার দিকে জাহাঙ্গীর হোসেন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। পুলিশ জানিয়েছে, জাহাঙ্গীর হোসেনের বাবার নাম মোবারক হোসেন। বরগুনা জেলা সদরে তার গ্রামের বাড়ি।

ইত্তেফাক

—————————————————————
কাকরাইলে বাসের চাপায় স্কুল ছাত্র নিহত

রাজধানীর কাকরাইলে বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে বুধবার সকালে হামীম শেখ (৬) নামে উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের এক শিক্ষার্থী মারা গেছে। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, বুধবার সকাল ১১টার দিকে স্কুলের সামনেই দুর্ঘটনায় হামীম মারা যায়। সে ওই স্কুলের বাংলা মাধ্যমে কেজি শাখায় পড়তো। স্কুল ছুটির পর মা ও ছেলে বাসায় ফিরতে রাস্তা পার হচ্ছিলেন। এ সময় মধুমতি পরিবহনের একটি বাস তাদের ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই হামিম মারা যায়।

দুর্ঘটনায় হামীমের মা সোনিয়া শেখও আহত হয়েছেন। তাকে কাকরাইলের ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

জানা গেছে, হামীম শেখের পিতার মোতালেব শেখ। তাদের বাসা সূত্রাপুরের সুড়িটোলায়। গ্রামের বাড়ি মুন্সীগঞ্জে।

দুর্ঘটনার পর স্কুলের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা সড়ক অবরোধ করে। এতে কাকরাইল মসজিদ থেকে কাকরাইল মোড় পর্যন্ত সড়কে গাড়ি চলাচল আধা ঘণ্টা বন্ধ থাকে। পরে পুলিশের আশ্বাসে পৌনে ১২টার দিকে তারা সড়ক ছেড়ে দেয়।

দুর্ঘটনার পর উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল বুধবার ছুটি হয়ে যায়।

আরটিএনএন

Leave a Reply